এ ড্রাগ এডিক্ট’স জার্নি টু নিউ লাইফ

০৭ জুন,২০১৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
বেইজিং: ২৯ বছর বয়সী ওয়াং কিং (ছদ্মনাম) স্ত্রী-সন্তান এবং বাড়ি-গাড়ি নিয়ে একটি সুন্দর জীবনই যাপন করতে পারতেন। কিন্তু কয়েক বছর আগে কেটামিন নামক এক কেমিকেল ড্রাগ নেয়া শুরু করার পর থেকে সে সবই হারায়।

আমরা যেদিন তার সাথে সাক্ষাৎ করি ততদিনে তিনি চুংকিং পুনর্বাসন কেন্দ্রে এক বছর পার করে দিয়েছে। তিনি লোককে নেশা থেকে দূরে থাকতে সাবধান করে দেয়ার জন্য তার গল্পটি আমাদের সাথে বলতে চান।

অন্যদের চোখে তিনি সফলই ছিলেন। ওয়াংকে ঠিক নেশাখোরের মতো দেখায় না। চকচকে চোখ এবং ভাঙ্গা চোয়াল নিয়ে তাকে খুব শক্তই মনে হয়। গালে সবসময় একটা উষ্ণ মুচকি হাসি লেগেই থাকে।

চুংকিংয়ের একটি বিশ্ব বিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগ থেকে পড়াশোনা শেষ করার পর তিনি তামাকের পাইকারী ব্যাবসা শুরু করেন। চার বছরে তিনি একটি বাড়ি, একটি গাড়ি কেনেন এবং ব্যাংকে ডিপোজিট করেন তিন লাখ ইউয়ান বা প্রায় ৪০ হাজার ডলার। বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই তার একজন গার্লফ্রেন্ডও ছিল। ২০১০ সালের ১০ অক্টোবর তারা বিয়ে করার পরিকল্পনা করেন।

ড্রাগের কারণে বদলে যাওয়া জীবন
২০০৯ সালে বন্ধুদের সাথে এক পার্টিতে প্রথমবারের মতো কেমিকেল জাতীয় ড্রাগ কেটামিনের স্বাদ নেন ওয়াং।

ওয়াং বলেন, ‘আমি ছিলাম তরুণ এবং উদ্ধত। আমি বুঝতে পারছিলাম যে আমি ভুল করছিলাম। কিন্তু বন্ধুদের সামনে বাহাদুরি দেখাতে গিয়ে আমি এর স্বাদ নেই।’

এরপর থেকেই ওয়াংয়ের জীবন এক নাটকীয় মোড় নেয়। কেটামিন থেকে হেরোইন, নেশার খরচ দিনে একশ’ থেকে বেড়ে এক হাজার ইউয়ানে দাঁড়ায়। ড্রাগের খরচ যোগাতে ওয়াং তার ব্যাংক ডিপোজিটের সব টাকাই শেষ করে ফেলেন। এমনকি তার বাড়িও বিক্রিকরে দেন তিনি। ব্যবসা থেকে মন উঠে যায় তার।

অবশেষে একদিন মাদক সেবনের দায়ে পুলিশ তাকে ধরে নিয়ে যায় এবং চুংকিং পুনর্বাসন কেন্দ্রে বাধ্যতামূলক নির্জন আসক্তিমুক্তকরণ সেলে পাঠিয়ে দেয়।

প্রথমে তার গার্ল ফ্রেন্ড মাসে একবার করে তার সাথে দেখা করতে আসতো এবং ওয়াদা করে ওয়াং ফিরে আসা পর্যন্ত সে অপেক্ষা করবে। কিন্তু এক বছর পর সে তার সাথে আর সম্পর্ক না রাখার সিদ্ধান্ত নেয়।

‘আমি তখন খুবই হাতশ হয়ে পড়ি। কিন্তু আমি তার সিদ্ধান্তের কারণ বুঝতে পারি’, যোগ করেন ওয়াং।

নতুন জীবন শুরুর আশা
ওয়াং ড্রাগ নেয়া বন্ধ করেছেন এক বছর হয়েছে। শিগগিরই তাকে পুনর্বাসন কেন্দ্র থেকে ছেড়ে দেয়া হবে। তিনি বলেন ছাড়া পেয়ে প্রথমেই তিনি তার গার্লফ্রেন্ডকে ফোন করবেন।

‘আমি বদলে গেছি। আমি নতুন করে জীবন শুরু করতে চাই’, বলবেন ওয়াং। এমন ফিরে আসা সব মাদকাসক্তদেরই হোক এই একই আশা।

জীবন পাতার আরো খবর

বাসা ভাড়ার চাপে চিরেচ্যাপ্টা মার্কিনীরাও

আন্তর্জাতিক ডেস্ক আরটিএনএনমিয়ামি: বাংলাদেশে রাজধানী ঢাকায় বাসা ভাড়ার চাপে চিরেচ্যাপ্টা ভাড়াটিয়ারা। তবে এ সমস্যা শুধু বাং . . . বিস্তারিত

মাত্র ১২ বছর বয়সে মা, ১৩ বছরে বাবা!

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনলন্ডন: বৃটেনে মাত্র ১২ বছর বয়সের একটি শিশু একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি করেছে। ত . . . বিস্তারিত

ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: ০১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: [email protected]