মাঝপথে বাজেট সংশোধন প্রয়োজন হতে পারে: সিপিডি

০৭ জুন,২০১৩

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: মহাজোট সরকারের শেষ বাজেট পরাবাস্তব বলে আখ্যায়িত করেছে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগ (সিপিডি)। এক্ষেত্রে মাঝসময়ে বাজেট সংশোধন প্রয়াজন হতে পারে বলেও মনে করছে সংস্থাটি।

শুক্রবার রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে ২০১৩-২০১৪ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে সিপিডির এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির সম্মানিত ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য এমন মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে এই বাজেটের বাস্তবায়ন কঠিন হবে। প্রস্তাবিত এ বাজেট তিনটি সরকার বাস্তবায়ন করবে, তাই এ সরকারের মেয়াদে কোন কোন প্রকল্প অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করবে তা অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যে উঠে আসেনি।

বাজেটে রাজস্ব আহরণ বিষয়ে দিকনির্দেশনা নেই উল্লেখ করে ড. দেবপ্রিয় বলেন, ‘এটি একটি বড় দুর্বলতা। যে পরিমাণ রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে তা অর্জন করা খুবই কঠিন।’

‘যদি রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে পারে, তাহলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড-এনবিআরকে এই বিষয়ে অভিনন্দন জানানো হবে’ জানান তিনি।

খাত অনুযায়ী পর্যালোচনা করে সিপিডির এই সম্মানিত ফেলো বলেন, স্বাস্থ্য ও শিক্ষাখাতে বরাদ্দে স্থবিরতা দেখা গেলেও বাজেটে নারী ও শিশুদের কল্যাণে ৪০টি মন্ত্রণালয়ের অধীনে বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে। সামাজিক নিরাপত্তা খাতে আক্ষরিক অর্থে বরাদ্দ বাড়লেও প্রকৃত অর্থে এর সুবিধাভোগী কমেছে ৪ শতাংশ।

তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, বৈদেশিক ঋণের ওপর অধিক প্রত্যাশা ও ব্যাংক ঋণের ওপর অধিক নির্ভরতাই এ বাজেটের বৈশিষ্ট। আর ব্যাংক ঋণের ওপর অধিক নির্ভরতার কারণে ব্যক্তিখাতে বিনিয়োগ বাধাগ্রস্ত হবে।

ড. দেবপ্রিয় বলেন, এবারের বাজেটে দুর্বলতম জায়গা হলো-রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ও প্রণোদনা। সরকার রাজস্ব আয়ের যে লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছে তা পূরণ হবে না।

অনুৎপাদনশীল খাতে ৭০ শতাংশ টাকা চলে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, জনপ্রশাসন ও সুদ দিতে এ টাকা ব্যয় হবে। ফলে উৎপাদশীল খাত বাধাগ্রস্ত হবে।

সিপিডি মনে করে, কালো টাকা সাদা করার সুযোগে কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে প্রভাব পড়বে। তার মতে কালো টাকা বিনিয়োগে জমি কেনার ফলে নতুন নতুন শিল্প কলকারখানা সৃষ্টি হবে না যা কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে বাঁধা সৃষ্টি করবে।

প্লট ও ফ্ল্যাটে কালো টাকা ব্যবহারের সুযোগ দেওয়ারও সমালোচনা করে ড. দেবপ্রিয় বলেন, প্লট ও ফ্ল্যাটে কালো টাকা বিনিয়োগের সুযোগ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি শেয়ারবাজার থেকে তা তুলে নেওয়া হয়েছে। প্লট ও ফ্ল্যাটের বিনিয়োগ শিল্প উন্নয়নের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত নয়।

‘এটি দেশজ আয়ের আধুনিকায়নের সঙ্গে সম্পর্কিত নয়। কালো টাকা ব্যবহারের সুযোগ দেওয়ায় সরকার যে খুব বেশি রাজস্ব পায় তা-ও নয়। এতে রাজনৈতিক সামাজিক ক্ষতি হয় আর অর্থনীতিও সুফল পায় না’ যোগ করেন তিনি।

অর্থনীতি পাতার আরো খবর

গার্মেন্ট বন্ধের আশংকায় উদ্বিগ্ন মালিকেরা

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: উত্তর আমেরিকার পোশাক ব্যবসায়ীদের জোট অ্যালায়েন্স ফর ওয়ার্কার্স সেফটি বলছে, বাংলাদেশের প্রায় ৪০০ . . . বিস্তারিত

দুর্নীতি: বেসিক ব্যাংকের ডিএমডিসহ ছয় কর্মকর্তা বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে বেসিক ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) এ মোনায়েম খানসহ শী . . . বিস্তারিত

ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: ০১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: [email protected]