মূল্যস্ফীতি কমে ৬ দশমিক ৫৭ শতাংশে দাঁড়িয়েছে

০৬ জুন,২০১৩

অর্থনীতি প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: চলতি অর্থবছরের গত ১১ মাসে মূল্যস্ফীতি কমে ৬ দশমিক ৫৭ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। তবে এখনো জুন মাসের হিসেবে বাকি রয়েছে। ২০০৫-০৬ অর্থবছরের তথ্যকে ভিত্তি ধরে এই তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে পরিসংখ্যান ভবনে সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) মহাপরিচালক গোলাম মোস্তফা কামাল মূল্যস্ফীতির হালনাগাদ এ তথ্য প্রকাশ করেন।

২০০৫-০৬ অর্থবছরের তথ্যকে ভিত্তি ধরে বিবিএস প্রকাশিত তথ্যে দেখা যায়, জুন ২০১২ থেকে মে ২০১৩ পর্যন্ত সময়ে গড় মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৬ দশমিক ৫৭ শতাংশ। ২০১১-১২ অর্থবছরের একই সমেয় এই হার ৯ দশমিক ১৫ শতাংশ ছিল।

২০১১-১২ অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসে যেখানে গড় মূল্যস্ফীতি ছিল ১০ দশমিক ৭৬ শতাংশ, সেখানে চলতি অর্থবছরে তা কমে ৭ দশমিক ৭৫ শতাংশ হয়েছে।

প্রসঙ্গত, আজ বিকালে সংসদে আগামী অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করবেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এতে মূল্যস্ফীতি বেধে রাখার নতুন লক্ষ্য স্থির করবেন তিনি।

বিদায়ী অর্থবছরের বাজেটে মূল্যস্ফীতি ৭ দশমিক ৫ শতাংশের (১৯৯৫-৯৬ অর্থবছরের তথ্যকে ভিত্তি ধরে) মধ্যে রাখার আশার কথা বলেছিলেন মুহিত। ১১ মাসের গড় হিসাব করলে যে মূল্যস্ফীতি হয়েছে মন্ত্রীর লক্ষ্যের তুলনায় কিছুটা বেশি।

গোলাম মোস্তফা কামাল জানান, খাদ্য পণ্যের দাম কমায় এপ্রিলের তুলনায় মে মাসে সার্বিক মূল্যস্ফীতিও সামান্য কমেছে। বিশেষ করে চালের দাম কমার কারণেই মূল্যস্ফীত কমেছে। শাকসবজিসহ অন্যান্য পণ্যের দামও কিছুটা কমেছে।

২০০৫-০৬ অর্থবছরের তথ্যকে ভিত্তি ধরে করা হিসাবে পয়েন্ট-টু-পয়েন্ট ভিত্তিতে মে মাসে সার্বিক মূল্যস্ফীতির হার দাঁড়িয়েছে ৭ দশমিক ৯৮ শতাংশ। এপ্রিলে এই হার ৮ দশমিক ৩৭ শতাংশ ছিল।

১৯৯৫-৯৬ অর্থবছরের তথ্যকে ভিত্তি ধরে করা পুরনো হিসাবেও মূল্যস্ফীতি কমেছে। মে মাসে মূল্যস্ফীতি কমে হয়েছে ৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ। এপ্রিলে এ হার ছিল ৭ দশমিক ৯৩ শতাংশ।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, নতুন হিসাবে খাদ্য খাতে মূল্যস্ফীতি কমে হয়েছে ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ। এপ্রিলে এ হার ৮ দশমিক ৬৮ শতাংশ ছিল।

আর খাদ্যবহির্ভূত খাতে মূল্যস্ফীতি কমে মে মাসে ৭ দশমিক ৭৬ শতাংশ হয়েছে। এপ্রিলে এ হার ছিল ৭ দশমিক ৯১ শতাংশ।

তবে পুরনো হিসাবে খাদ্য খাতে মূল্যস্ফীতি এপ্রিলের ৮ দশমিক ৫৭ শতাংশ থেকে কমে মে মাসে হয়েছে ৮ দশমিক ৪০ শতাংশ। তবে খাদ্যবহির্ভূত খাতে ৬ দশমিক ৮১ শতাংশ থেকে সামান্য বেড়ে ৬ দশমিক ৯৩ শতাংশ হয়েছে।

অর্থনীতি পাতার আরো খবর

গার্মেন্ট বন্ধের আশংকায় উদ্বিগ্ন মালিকেরা

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: উত্তর আমেরিকার পোশাক ব্যবসায়ীদের জোট অ্যালায়েন্স ফর ওয়ার্কার্স সেফটি বলছে, বাংলাদেশের প্রায় ৪০০ . . . বিস্তারিত

দুর্নীতি: বেসিক ব্যাংকের ডিএমডিসহ ছয় কর্মকর্তা বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে বেসিক ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) এ মোনায়েম খানসহ শী . . . বিস্তারিত

ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: ০১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: [email protected]