ঝুঁকির মুখে বাংলাদেশের প্রায় ৬০ লাখ ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ড গ্রাহক

০৬ জুন,২০১৩

নিউজ ডেস্ক
আরটিএনএন
ঢাকা: বাংলাদেশে ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ড গ্রাহকরা ঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন বলে জানিয়েছে গোয়েন্দা বিভাগ। এখানকার এটিএম বুথগুলোর নিরাপত্তা ব্যবস্থাও পর্যাপ্ত নয়। এ কারণে বড় ধরনের জালিয়তির আশঙ্কা রয়েছে।

বাংলাদেশের প্রায় ৬০ লাখ গ্রাহক ক্রেডিট এবং ডেবিট কার্ড ব্যবহার করেন। এখন প্রায় সব ব্যাংকই এই দুই ধরনের কার্ড ইস্যু করে গ্রাহকদের।

২৪ ঘণ্টা নগদ টাকা তোলা এবং কেনাকাটার জন্য দ্রুতই এই কার্ড বাংলাদেশে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। কিন্তু সম্প্রতি ক্রেডিট কার্ড জালিয়াত চক্রের এক সদস্য মোশররফ হোসেন গ্রেপ্তার হওয়ার পর কিছুটা ধাক্কা খেয়েছে ব্যাংকগুলো।

গোয়েন্দা বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মশিউর রহমান জানান, এই কার্ড জালিয়াতির ঘটনা আগে থেকেই ঘটে আসলেও ব্যাংকগুলো তাদের সুনামের কথা চিন্তা করে চুপচাপ ছিল। কিন্তু এখন তারা তা স্বীকার করছে।

তিনি জানান, কয়েক মাস আগে সেলিম নামে এক ক্রেডিট কার্ড জালিয়াত ব্র্যাক ব্যাংক থেকে চার লাখ ঢাকা টাকা তুলে নিয়েছে বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে, চট্টগ্রামে সিটি ব্যাংকেও ক্রেডিট কার্ড জালিয়াতির ঘটনা ধরা পড়েছে। জালিয়াত চক্র জাল ক্রেডিট কার্ড থেকে ১০ লাখ টাকার কেনাকাটা করেছে বলে খবর।

আর পুলিশ এই অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে আব্দুর রহমান এবং শ্রীলঙ্কান নাগরিক মোহনা থারাসকে গ্রেপ্তার করেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, বাংলাদেশে ম্যাগনেটিক স্ট্রিপের যে কার্ড ব্যবহার করা হয় তা জাল করা খুবই সহজ। এ পর্যন্ত যে ক’জন ধরা পড়েছেন তারাও একই কথা বলেছে।

এছাড়া এটিএম বুথগুলো পুরনো প্রযুক্তির। বুথের কার্ড পাঞ্চ করার জায়গায় স্ক্যাম প্রতিরোধক কোনো ব্যবস্থা নেই। তাই সেখান থেকেই এতদিন গ্রাহকদের কার্ডের তথ্য এবং পিন চুরি হয়ে আসছিল।

কিন্তু সম্প্রতি আটক হওয়া মোশাররফ আরো আধুনিক প্রযুক্তি নিয়ে এসেছে কার্ড জালিয়াতির জন্য। মশিউর রহমান জানান, তাদের ধারণা এই প্রযুক্তি এখন আরো কয়েকটি গ্রুপের হাতে রয়েছে, যা স্বাভাবিকভাবেই আশঙ্কার কারণ।

ব্র্যাক ব্যাংকের হেড অব কমিউনিকেশন জীশান কিংশুক হকও স্বীকার করেন যে, কমপক্ষে একবার টাকা উত্তোলনের আগে এই প্রতারণা ধরার সুযোগ নেই।

বাংলাদেশে ক্রেডিট এবং ডেবিট কার্ডে এখনো মাইক্রো চিপস ব্যবহার করা হয় না। অথচ গোয়েন্দারা মনে করেন, মাইক্রো চিপস ব্যবহার শুরু হলে জালিয়াতি অনেক কমবে। কারণ এটি কপি করার প্রযুক্তি এখানো বাংলাদেশে নেই।

সূত্র: ডয়চে ভেলে

অর্থনীতি পাতার আরো খবর

২৪ এপ্রিল সরকারি ছুটি ঘোষণার দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: ২৪ এপ্রিল রানা প্লাজা ট্রাজেডিতে নিহত, আহত ও নিখোঁজ শ্রমিক পরিবারের সদস্যদের ক্ষতিপূরণ, পু . . . বিস্তারিত

‘মালিকদের কাছে শ্রমিকরা মুনাফা তৈরির যন্ত্র’

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: স্বার্থান্বেষী মহলের কারণে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানো বাংলাদেশের তৈরি পোশাক শিল্প . . . বিস্তারিত

ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: ০১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: [email protected]