খৃষ্টান যাজক দিয়েই মুসলিমের মুত্যুদণ্ড দিলো যুক্তরাষ্ট্র

০৮ ফেব্রুয়ারি,২০১৯

খৃষ্টান যাজক দিয়েই মুসলিমের মুত্যুদণ্ড দিলো যুক্তরাষ্ট্র

ডেস্ক নিউজ
আরটিএনএন
অ্যালাবামা: মৃত্যুদণ্ডের সাজাপ্রাপ্ত আসামির শেষ ইচ্ছা পূরণ করতে দেওয়া হলো না যুক্তরাষ্ট্রের অ্যালাবামা অঙ্গরাজ্যের মুসলিম বন্দী ডোমিনিক রয়ের। নিজের ধর্মীয় একজন ইমামকে ছাড়াই খৃষ্টান যাজকের উপস্থিতিতে তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হলো।

এ বিষয়ে আইনজীবীদের আবেদনের পর একটি ফেডারেল কোর্ট মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের ওপর স্থগিতাদেশ দিয়েছিল। কিন্তু ওই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করে রাজ্য সরকার। এরপর সুপ্রিম কোর্ট সেই আবেদনটি খারিজ করে দেয়ার পর, বৃহস্পতিবার নির্ধারিত সময়েই প্রাণঘাতী ইনজেকশন দিয়ে তার মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকর করা হয়। খবর বিবিসি বাংলার

আদালতের কাছে ডোমিনিক রয়ের আবেদন ছিল যে, তার মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকরের সময় যেন খৃষ্টান যাজক উপস্থিত না থেকে একজন ইমাম উপস্থিত থাকেন, যাতে তিনি নিজের ধর্মের একজন ইমামের কাছ থেকে ধর্মীয় নির্দেশনা এবং স্বস্তি অনুভব করতে পারেন।

এই আবেদনের পর ফেডারেল আদালত সাময়িকভাবে ওই দণ্ডাদেশের কার্যকারিতা স্থগিত করেন। তবে ওই আদেশের বিরুদ্ধে দ্রুত আপিল করে রাজ্য কর্তৃপক্ষ। সুপ্রিম কোর্ট ডোমিনিক রয়ের আবেদনটি খারিজ করে দেয়।

এর আগে প্রাণঘাতী ইনজেকশনের মাধ্যমে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর স্থগিত করে তিন বিচারকের প্যানেল বলেছিলেন, রাজ্যের বিরুদ্ধে ডোমিনিক রয়ের শক্তিশালী দাবি রয়েছে। এখানে সাংবিধানিক সমস্যাটি হলো যে, কোন খৃষ্টান বন্দীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের সময় রাজ্যটি সেখানে নিয়মিতভাবে খৃষ্টান যাজককে উপস্থিত থাকার অনুমতি দেয়।। কিন্তু একজন মুসলিম এবং অন্য ধর্মের বন্দিদের ক্ষেত্রে একই সুবিধা দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।

অ্যালাব্যামা সংশোধনাগার বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, খৃষ্টান যাজক ক্রিস সামারস ১৯৯৭ সাল থেকে প্রত্যেক খৃষ্টান বন্দির মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকরের সময় উপস্থিত থাকেন।

পাশাপাশি তার ইমাম ইউসুফ মাইসোনেট ২০১৫ সাল থেকে ওই কারাগারের বন্দিদের ধর্মীয় সেবা দিয়ে আসছেন। ওই ইমামকেই মৃত্যুদণ্ড কার্যকর কক্ষে থাকতে দেয়ার আবেদন করেছিলেন রয়। তবে সেখানে থাকতে না পারলেও ইমাম প্রত্যক্ষদর্শীদের কক্ষে উপস্থিত ছিলেন বলে জানা যাচ্ছে।

১৯৯৫ সালে অ্যালাব্যামা রাজ্যে ১৫ বছরের এক কিশোরীকে ধর্ষণ এবং হত্যার অভিযোগে ডোমিনিক রয়কে ১৯৯৯ সালে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়।

মন্তব্য

মতামত দিন

আমেরিকা পাতার আরো খবর

যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম মুসলিম নারী মেয়র হয়ে ইতিহাস গড়লেন ড. সাদাফ জাফর, সাক্ষাৎকারে যা বলছেন

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনওয়াশিংটন: যুক্তরাষ্ট্রের প্রিন্সটন অঞ্চলের উত্তরের শহর মন্টগোমেরির প্রথম মুসলিম নারী মেয়র হিসেব . . . বিস্তারিত

যুক্তরাষ্ট্রের মুসলিমদের মধ্যে কৃষ্ণাঙ্গরাই সবচেয়ে বর্ণিল, অর্ধেকই ধর্মান্তরিত

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনওয়াশিংটন: এমনকি বিংশ শতাব্দীতেও যুক্তরাষ্ট্রের বেশিরভাগ অঞ্চলে যখন ইসলামের উপস্থিতি একেবারেই কম . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com