ল্যাটিনোদের ধর্মান্তরের আরেকটি গল্প

‘আমার সন্তান জন্মের দিনেই আমি ইসলাম গ্রহণ করি, কারণ আমি খুব ভীত ছিলাম’

০১ ফেব্রুয়ারি,২০১৯

ল্যাটিনোদের ধর্মান্তরের আরেকটি গল্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
ওয়াশিংটন: যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করা বিভিন্ন জাতি গোষ্ঠীর মধ্যে ল্যাটিন আমেরিকা থেকে আসা জনগোষ্ঠী মধ্যেই ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার প্রবণতা বেশী দেখা যাচ্ছে।

whyIslam.org এর মতে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করা মুসলিমদের শতকরা ৬ শতাংশই এই ল্যাটিনো জনগোষ্ঠীর মধ্যকার।

অন্যদিকে Latino American Dawah Organization (LADO) নামক সংস্থার মতে ল্যাটিনো জনগোষ্ঠীর ইসলাম ধর্ম গ্রহণের দিক থেকে অর্ধেকের বেশী নারী জনগোষ্ঠী রয়েছে।

উদাহরণ স্বরূপ গার্সিয়া তোরেস কিউবা থেকে যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামিতে পাড়ি জমান আজ থেকে চার বছর পূর্বে।

কিন্তু পরবর্তীতে তিনি দেশটির ফ্লোরিডা শহরে বসবাস করা শুরু করেন। একসময় তিনি অনুভব করতে থাকেন যে, তিনি তার নিজের পরিচয় নিয়ে ভুলের মধ্যে ছিলেন এবং তিনি নিজের সত্যিকারের পরিচয় নবী মুহাম্মদ (স.) এর জীবনের মধ্যেই খুঁজে পেয়েছেন।

গর্ভাবতী অবস্থায় ইসলাম গ্রহণ
গার্সিয়া তোরেস যখন দ্বিতীয় বারের মত গর্ভবতী হন তখন তিনি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

তিনি বলেন, ‘তখন এটি আমার জন্য খুবই কষ্টকর ছিল। কারণ এখানে আমি, আমার স্বামী এবং আমাদের সন্তান ছাড়া আর কোনো আত্মীয় স্বজন নেই। যেদিন আমার সন্তান জন্ম নিয়েছিল ঠিক সেদিনই আমি ইসলাম গ্রহণ করি, কারণ আমি খুব ভীত ছিলাম।’

বেসরকারি একটি জরিপে দেখা যায় যে, যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামি রাজ্যে অন্তত ৩,০০০ জন হিসপানিক মুসলিম বসবাস করে এবং পুরো যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে তাদের সংখ্যা অন্তত ৪০,০০০ হাজারের উপরে।

স্টিফেনি লোনদোনো যিনি যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছেন এবং যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করার ল্যাটিনো জনগণের ধর্মান্তর নিয়ে একটি গবেষণা প্রকাশ করেছেন।

লোনদোনো জানান, কিছু নারী ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন, কারণ তারা সফলতায় পশ্চিমা মূল্যবোধ দ্বারা নিজেদের গা বাসিয়ে দিতে চান না।

তাদের দিকনির্দেশনা প্রয়োজন
লোনদোনো জানান, তিনি তার গবেষণায় দেখতে পেয়েছেন যে, কিছু মানুষ মনে করেন ইসলাম নারীদের খুব কমই স্বাধীনতা দিয়েছে, কিন্তু যেসব ল্যাটিনো ইসলাম গ্রহণ করেন তারা একে ইতিবাচক পরিবর্তন হিসেবেই দেখেন।

তিনি বলেন, ‘তারা এর মাধ্যমে জানতে পারে যা কিছু গ্রহণযোগ্য বা ‘হালাল’, এবং যা কিছু অগ্রহণযোগ্য বা ‘হারাম’ আর এভাবেই তাদের ঠিক কি করতে হবে তা সম্পর্কে তাদের পরিষ্কার ধারণা জন্মায়। সুতরাং পবিত্র কুরআন এমন একটি বই যা কিনা আপনাকে বলে দিবে আপনি ঠিক কি পরিধান করবেন, কি আহার করবেন, কিভাবে গোসল করবেন, ঠিক কি ধরণের আচরণ করবেন এবং কখন প্রার্থনা করবেন।’

যদিও কিছু নারীবাদী মুসলিম নারী হিজাব পরিত্যাগ করেন, অন্যদিকে এসব ল্যাটিনো মুসলিম নারীগণ তা ধারণ করেন।

লোনদোনো একমত হয়ে বলেন, ‘যখন মানুষ আপনাকে হিজাব পরিহিত অবস্থায় দেখতে পাবে তখন প্রথমেই তারা আপনার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করবে। দ্বিতীয়ত, এটি আবেগের সাথে জড়িত, কারণ আপনি অন্যদের থেকে নিজেকে আলাদা মনে করেন। আপনি এমন কিছুতে বিশ্বাস করেন যা আসলেই চমৎকার।’

প্রথাগত ধ্যান-ধারণা ভেঙ্গে দেয়া
জনসমাগম স্থানে হিজাব পরিধান করে যাওয়ার মাধ্যমে ল্যাটিনো জনগোষ্ঠী এমন প্রথাগত ধ্যান ধারণা ভেঙ্গে দিতে সক্ষম হন যে, সকল আরবই মুসলিম অন্যদিক সকল হিসপানিক বা ল্যাটিনো ক্যাথলিক খ্রিষ্টান।

স্টিফেনি লোনদোনো যিশু খ্রিষ্ট থেকে মহানবী মুহাম্মদ (সা.) এর দিকে তার বিশ্বাস পরিবর্তন করার মাধ্যমে আবিষ্কার করেছেন যে, অন্তত ৪,০০০ হাজার স্প্যানিশ শব্দের মূল প্রোথিত রয়েছে আরবি ভাষার মধ্যে।

তিনি একই সাথে একে খুব ব্যবহারিক বলেও মনে করছেন, কেননা তিনি ইসলাম সম্পর্কে যা কিছু শিখছেন তার বেশীর ভাগই আরবি ভাষায়।

সূত্র: ভয়েস অব আমেরিকার ওয়াশিংটন হেড-কোয়াটারের পুরস্কার প্রাপ্ত টেলিভিশন শো ক্লারিয়ন এর প্রধান সংবাদদাতা কারোলিন প্রেসুতির কলাম থেকে।

মন্তব্য

মতামত দিন

আমেরিকা পাতার আরো খবর

যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম মুসলিম নারী মেয়র হয়ে ইতিহাস গড়লেন ড. সাদাফ জাফর, সাক্ষাৎকারে যা বলছেন

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনওয়াশিংটন: যুক্তরাষ্ট্রের প্রিন্সটন অঞ্চলের উত্তরের শহর মন্টগোমেরির প্রথম মুসলিম নারী মেয়র হিসেব . . . বিস্তারিত

যুক্তরাষ্ট্রের মুসলিমদের মধ্যে কৃষ্ণাঙ্গরাই সবচেয়ে বর্ণিল, অর্ধেকই ধর্মান্তরিত

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনওয়াশিংটন: এমনকি বিংশ শতাব্দীতেও যুক্তরাষ্ট্রের বেশিরভাগ অঞ্চলে যখন ইসলামের উপস্থিতি একেবারেই কম . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com