হামাসের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের যে প্রস্তাব নাকচ করে দিল জাতিসংঘ

০৭ ডিসেম্বর,২০১৮

হামাসের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের যে প্রস্তাব নাকচ করে দিল জাতিসংঘ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
নিউইয়র্ক: জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে ইসরাইলের বিরুদ্ধে রকেট হামলা চালানোর জন্য ফিলিস্তিনি গোষ্ঠী হামাসের নিন্দা করে আনা যুক্তরাষ্ট্রের একটি প্রস্তাব পাশ করা যায়নি।

প্রস্তাবটির পক্ষে ভোট পড়ে ৮৭টি, বিপক্ষে ৫৭টি। আর ৩৩টি দেশ ভোটদানে বিরত ছিল। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে প্রস্তাবটি পাশ হওয়ার জন্য দুই-তৃতীয়াংশের সমর্থন দরকার ছিল। খবর বিবিসির।

জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্রের দূত নিকি হেলি বলেছিলেন, এই প্রস্তাবের উদ্দেশ্য হচ্ছে এক ‘ঐতিহাসিক ভুল’ সংশোধন করা। কারণ জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ আজ পর্যন্ত হামাসের নিন্দা করে এরকম কোন প্রস্তাব পাশ করেনি।

তবে হামাসের একজন মুখপাত্র বলেছেন, সাধারণ পরিষদের এই ভোট যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প প্রশাসনের মুখে একটা চপেটাঘাত।

ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু অবশ্য দাবি করছেন, যদিও প্রস্তাবের পক্ষে দুই-তৃতীয়াংশ ভোট পড়েনি, তারপরও এই প্রথম সাধারণ পরিষদে সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ হামাসের বিপক্ষে দাঁড়িয়েছে।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে পাস হওয়া প্রস্তাবের রাজনৈতিক গুরুত্ব আছে কিন্তু এটি মানতেই হবে এমন কোন বাধ্যবাধকতা নেই।

১৯৩ সদস্যের জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে এই প্রথম হামাসের নিন্দা করে এ ধরণের একটি প্রস্তাব আনা হয়েছিল। ইসরাইল, যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং ব্রিটেন হামাস এবং এর সামরিক শাখাকে একটি সন্ত্রাসবাদী দল বলে গণ্য করে।

অন্যদিকে হামাসের সমর্থকরা মনে করেন, এটি ইসরাইলি দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে একটি ন্যায্য এবং বৈধ প্রতিরোধ আন্দোলন। ২০০৬ সালে ফিলিস্তিনে যে নির্বাচন হয়, তাতে হামাস জয়ী হয়েছিল।

হামাসের মুখপাত্র সামি আবু জাহরি টুইটারে মন্তব্য করেছেন, ‘জাতিসংঘে এই মার্কিন চেষ্টা যে বিফল হলো, তা মার্কিন প্রশাসনের গালে একটা চপেটাঘাত এবং আমাদের প্রতিরোধ আন্দোলন যে বৈধ, সেটাই প্রমাণ করলো।’

আর জাতিসংঘে ইরানের উপ রাষ্ট্রদূত এসাগ আল হাবিব বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র আসলে এই সংঘাতের মূল কারণ থেকে দৃষ্টি অন্যদিকে সরানোর চেষ্টা করছে।

ইসরাইল এবং হামাসের মধ্যে এ পর্যন্ত তিনবার যুদ্ধ হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ট্রাম্প প্রশাসন ইসরাইলের বলিষ্ঠ সমর্থক। তারা জেরুসালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। এ বছর তেল আভিভ থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুসালেমে সরিয়ে এনেছে।

মন্তব্য

মতামত দিন

আমেরিকা পাতার আরো খবর

‘শ্বেতাঙ্গ হয়ে ইসলাম গ্রহণ বিশ্বাসঘাতকতার সামিল মনে করেন অনেকে’

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনওয়াশিংটন: স্টেসি নাভারেত নামের ২৩ বছর বয়সী নারী যখন ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন তখন তার পরিবারের লোকজ . . . বিস্তারিত

‘ধর্ম ইতিহাসের অবিচ্ছেদ্য অংশ, আপনি একে এড়িয়ে যেতে পারেন না’

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনওয়াশিংটন: যুক্তরাষ্ট্রের একটি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী কেলেই উড় তার বিদ্যালয়ের ‘The Mus . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com