শীঘ্রই ট্রাম্প-কিম জং উন সাক্ষাৎ

১২ মার্চ,২০১৮

শীঘ্রই ট্রাম্প-কিম জং উন সাক্ষাৎ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
ওয়াশিংটন: শীঘ্রই প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র-উত্তর কোরিয়া সম্মেলন। আর এতে যোগ দিয়ে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য প্রস্তুত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

গতকাল বৃহস্পতিবার এক প্রতিবেদনে ট্রাম্পের এই প্রস্তুতির ঘোষণার কথা জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

পারমাণবিক অস্ত্র নিয়ে দুদেশের সম্পর্কের টানাপড়েনের মধ্যেই এই সাক্ষাতের ঘোষণা দেওয়া হলো।

দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় নিরাপত্তা দপ্তরের প্রধান চুং ইউ ইয়ং বলেছেন, কিম জং উন পারমাণবিক কার্যক্রম স্থগিত রাখার ব্যাপারে রাজি হয়েছেন। কিম জং উনের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়েছেন ট্রাম্প। তিনি জানান, ট্রাম্প মে মাসেই সাক্ষাৎ করার ব্যাপারে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

যদিও যুক্তরাষ্ট্রের জ্যেষ্ঠ একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, কয়েক মাসের মধ্যেই এ দুদেশের মধ্যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। তবে এখনো সময় ও স্থান নির্ধারণ করা হয়নি।

চুং ইউ ইয়ংয়ের সঙ্গে কথা বলার পরেই ট্রাম্প এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘একটি অনুষ্ঠানের পরিকল্পনা করা হচ্ছে।’

অবশ্য এর আগে ট্রাম্প বলেছিলেন, তিনি কিম জং উনের সঙ্গে দেখা করতে আগ্রহী, তবে অবশ্যই ভালো কোনো পরিবেশে। অন্যদিকে গত বছরের অক্টোবরে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসনের সঙ্গে ঠাট্টা করে বলেছিলেন, উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করাটাও সময় নষ্ট।

এ প্রসঙ্গে এক টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, ‘দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিনিধিদলের সঙ্গে পারমাণবিক কার্যক্রম শুধু স্থগিতই নয়, বাদ দেওয়ার কথাও জানিয়েছেন কিম জং উন। এ ছাড়া এই সময়ের মধ্যে কোনো ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষাও করা হবে না।’

উত্তর কোরিয়া শান্তি চায়: ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প শনিবার বলেছেন, উত্তর কোরিয়া শান্তি চায় বলেই তার ধারণা।

ট্রাম্প ও উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনের মধ্যে সম্ভাব্য একটি বৈঠকের ঘোষণা দেয়ার পর তিনি দেশটির প্রশংসা করেন।

ট্রাম্প পেনসিলভানিয়ায় তার সমর্থকদের একটি সমাবেশে বলেন, ‘আমি মনে করি তারা শান্তি চায়। এটাই শান্তি প্রতিষ্ঠার উপযুক্ত সময়।’
খবর এএফপি’র।

ট্রাম্প আরো বলেন, ‘আমি মনে করি আমরা আমাদের শক্তি প্রদর্শণ করেছি। আমি মনে করি এটাও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।’

এর আগে বহুবার উত্তর কোরিয়াকে সন্ত্রাসের পৃষ্ঠপোষক বলে ঘোষণা করছিল মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। পিয়ংইয়ংয়ের বিরুদ্ধে অনেক আগেই কঠোর হওয়া দরকার ছিল বলেও মন্তব্য করেছিলেন তিনি।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদন থেকে এ খবর জানা গিয়েছিল।

প্রতিবেদনে বলা হয়, মন্ত্রিসভার বৈঠকে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে বড় ধরনের নিষেধাজ্ঞা আরোপের আভাস দিয়েছেন ট্রাম্প। তবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন জানিয়েছিলেন, বাস্তবে এর প্রয়োগ কম হতে পারে।

এর আগে ২০০৮ সালে উত্তর কোরিয়াকে সন্ত্রাসবাদের পৃষ্ঠপোষকের তালিকা থেকে বাদ দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। দীর্ঘ ৯ বছর পর আবারো কিম জং উনের দেশকে ওই তালিকায় যুক্ত করল আমেরিকা।

মন্ত্রিসভার এক বৈঠকে উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক কর্মসূচির নিন্দা করে ট্রাম্প বলেছিলেন, এটি আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ।

তিনি বলেন, দেশটির শাসন ব্যবস্থা আইনসম্মতভাবে কাজ করবে এবং তারা পরমাণু অস্ত্রের কার্যক্রম বন্ধ করবে। গত সপ্তাহে এশিয়া সফর শেষে দেশে ফিরে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এই সিদ্ধান্ত নিলেন।

যে অস্ত্র আপনি সংগ্রহ করছেন সেটা আপনাকে নিরাপদ করছে না: কিমকে ট্রাম্প
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প উত্তর কোরিয়াকে কঠিন ভাষায় সতর্ক করেছেন। দক্ষিণ কোরিয়ার সংসদে বক্তৃতা দেয়ার সময় উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন ‘আমাদেরকে অবমূল্যায়ন করো না, আমাদের ঘাঁটিয়ো না।’

তিনি উত্তর কোরিয়াকে তার ভাষায় ‘ডার্ক ফ্যান্টাসি’র’ নিন্দা করেন। খবর বিবিসির।

ট্রাম্প এসময় কিমকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘যে অস্ত্র আপনি সংগ্রহ করছেন সেটা আপনাকে নিরাপদ করছে না।’ অন্যান্য দেশের প্রতি তিনি আহ্বান জানান পিয়ংইয়ং এর বিরুদ্ধে এক হওয়ার জন্য। মার্কিন প্রেসিডেন্ট এখন দক্ষিণ কোরিয়াতে রয়েছেন। তিনি এশিয়ার পাঁচটি দেশ সফর করবেন।

ট্রাম্পের পুরো সফরে পিয়ংইয়ং এর নিউক্লিয়ার অস্ত্রের বিষয়টি আলোচনায় প্রাধান্য পাবে বলে পর্যবেক্ষকরা বলছেন। গত কয়েক বছরে জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে পিয়ংইয়ং ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করে আসছে। গত সেপ্টেম্বরে দেশটি ছয় নম্বর এবং সবচেয়ে বড় নিউক্লিয়ার পরীক্ষা চালায়।
কিমের উদ্দেশ্যে ট্রাম্পের অপ্রত্যাশিত মন্তব্য

দক্ষিণ কোরিয়ার সংসদে যখন তিনি বক্তৃতা দিচ্ছিলেন তখন অপ্রত্যাশিত ভাবে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম কে লক্ষ্য করে সরাসরি মন্তব্য করতে থাকেন। মন্তব্য গুলো ব্যক্তিগত বলেই উল্লেখ করছেন পর্যবেক্ষকরা কারণ এই ধরণের আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে ট্রাম্পের এই মন্তব্যে অনেকেই অবাক হয়েছেন।

ট্রাম্প সরাসরি কিমকে লক্ষ্য করে বলেন ‘আপনি নিউক্লিয়ার কর্মসূচী এবং অস্ত্র তৈরি পরিত্যাগ করুন। এসব আপনার শাসনব্যবস্থাকে গভীর বিপদের মধ্যে ফেলে দিচ্ছে’ বলে তিনি সতর্ক করে।

উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক কর্মকাণ্ড ঘিরে দুটি দেশের মধ্যে বেশ কিছুদিন ধরেই উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় চলছে।পিয়ংইয়ং বলেছে, তারা সম্প্রতি একটি ছোট আকারের হাইড্রোজেন বোমা সফলভাবে পরীক্ষা করেছে এবং সেটি দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রে যুক্ত করা সম্ভব।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এর আগে বলেছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় স্বার্থ এবং ঐ অঞ্চলে তাদের মিত্রদের রক্ষা করতে যুক্তরাষ্ট্র উত্তর কোরিয়াকে ধ্বংস করে দিতে পারে।

মন্তব্য

মতামত দিন

আমেরিকা পাতার আরো খবর

হোয়াইট হাউসের প্রেস সচিবকে রেস্তোরাঁয় প্রবেশে বাধা

আর্ন্তজাতিক ডেস্কআরটিএনএনরিচমন্ড: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া রাজ্যের একটি রেস্তোরাঁ থেকে কোন কারণ ছাড়াই বের . . . বিস্তারিত

অভিবাসীদের বিচ্ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসলেন ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনওয়াশিংটন ডিসি: অভিবাসী পরিবারের সন্তানদের তাদের পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন করার আইন থেকে সরে এসেছে হ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com