ট্রাম্পকে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান আফ্রিকান ইউনিয়নের

১৩ জানুয়ারি,২০১৮

ট্রাম্পকে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান আফ্রিকান ইউনিয়নের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
ওয়াশিংটন ডিসি: আফ্রিকার অভিবাসীদের নিয়ে অবমাননাকর বক্তব্য দেয়ায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়েছে ৫৫ জাতিগোষ্ঠীর সংস্থা আফ্রিকান ইউনিয়ন।

আফ্রিকার দেশগুলোকে ‘অত্যন্ত নোংরা ও বসবাসের অযোগ্য’ বলে মন্তব্য করেছিলেন ট্রাম্প। এর জের ধরে তাকে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

ওয়াশিংটন ডিসি’তে আফ্রিকান ইউনিয়নের দপ্তর ‘হতাশা ও ক্ষোভ’ প্রকাশ করে বলেছে, ট্রাম্প প্রশাসন আফ্রিকার জনগণকে বুঝতে ভুল করেছে।

অবশ্য তার ওই বিতর্কত বক্তব্য গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর নিজেকে বাঁচাতে এর আগেই ট্রাম্প দাবি করেন যে, তিনি ওই পরিভাষা ব্যবহার করেননি।

ট্রাম্প শুক্রবার এক টুইটার বার্তায় দাবি করেছেন, তিনি সিনেটরদের সঙ্গে বৈঠকে আফ্রিকার অভিবাসীদের নিয়ে অনেক ‘কড়া’ কথা বলেছেন কিন্তু যে পরিভাষাগুলো গণমাধ্যমে এসেছে তিনি তা প্রয়োগ করেননি।

কিন্তু তার এই অস্বীকৃতিতে সন্তুষ্ট হতে পারেনি আফ্রিকান ইউনিয়ন। সংস্থাটি আফ্রিকার দেশগুলোকে নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্যের জন্য ট্রাম্পকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।

অভিবাসীদেরকে ‘অশ্লীল’ ভাষায় গালি দিলেন ট্রাম্প
১২ জানুয়ারি,২০১৮ বিভিন্ন দেশের অভিবাসীদের যুক্তরাষ্ট্র তাড়ানোর প্রক্রিয়া শুরু করার পর, এবার অভিবাসীদের ‘অশ্লীল ভাষায়’ গালাগাল দিলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তিনি বলেন, “ওসব নোংরা দেশের অভিবাসীদের কেন এখানে দরকার?”

একটি সর্ব সম্মত অভিবাসন প্রক্রিয়া নিয়ে বৃহস্পতিবার রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাট উভয় দলের আইন প্রণেতাদের মধ্যকার অনুষ্ঠিত বৈঠকে ট্রাম্প এ কথা বলেন।

বৈঠকে সুনির্দিষ্ট কিছু দেশের জন্য ‘সাময়িক সুরক্ষা স্ট্যাটাস’ (টিপিএস) পুণরায় বজায় রাখতে ট্রাম্পকে প্রস্তাব করেন আইন প্রণেতারা। বিনিময়ে তারা ট্রাম্প ঘোষিত মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণে দেড় বিলিয়ন ডলার অনুমোদনের আশ্বাস দেন।

ট্রাম্পের এ মন্তব্য হাইতি, এল সালভাদর, এবং আফ্রিকান দেশগুলোর উদ্দেশ্য করে করা হয়েছে। ওয়াশিংটনস্থ এল সালভাদর দূতাবাস এ বিষয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকার করে।

চলতি সপ্তাহে ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসকারী দুই লাখের বেশি এল সালভাদরের নাগরিকের টিপিএস সুবিধা প্রত্যাহার করেন। ফলে তিনি দশক ধরে বসবাসের পরও ২০১৯ নাগাদ তাদের যুক্তরাষ্ট্র ত্যাগ করতে হবে। হাইতি ও নিকারাগুয়ার নাগরিকদের টিপিএস সুবিধাও এর আগে প্রত্যাহার করা হয়।

সাউথ ক্যারোলাইনার রিপাবলিকান সিনেটর লিন্ডসে গ্রাহাম বৈঠকে উপস্থিত থাকলেও ট্রাম্পের এ অশ্লীল বক্তব্যের বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি।

ওয়াইট হাউজ সূত্র ট্রাম্পের এ মন্তব্যকে অস্বীকার করেনি। মুখপাত্র রাজ শাহ বলেন, ওয়াশিংটনের কিছু সুনির্দিষ্ট রাজনীতিবিদ অন্য দেশের জন্য লড়াই করে, কিন্তু প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সব সময় আমেরিকান জনগণের জন্য লড়াই করবে।

তিনি আরও বলেন, অন্যান্য দেশের মতো অভিবাসন বিষয়ে মেধা-ভিত্তিক স্থায়ী সমাধানের জন্য লড়াই করছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। আমাদের অর্থনীতি ও সামাজিক সমৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখার পাশাপাশি সমাজের সঙ্গে মিশতে পারা মেধাবীদের আমরা স্বাগত জানাবো।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ট্রাম্পের মন্তব্যকে কেন্দ্র করে ব্যাপক নিন্দা ও সমালোচনার ঝড় বইছে।

এক টুইট বার্তায় ম্যারিল্যান্ডের ডেমোক্র্যাট আইন প্রণেতা এলিজা কামিংস বলেন, ক্ষমার অযোগ্য এ বক্তব্যের নিন্দা জানাই আমি, এবং এটি প্রেসিডেন্ট অফিসের সম্মান ও মর্যাদা নষ্ট করছে।

ডেমোক্র্যাট আইন প্রণেতা সেডরিক রিচমন্ড বলেন, এটি প্রমাণ করে ট্রাম্পের আমেরিকাকে আবারও মহান করার উদ্দেশ্যের পেছনে রয়েছে আমেরিকাকে সাদা চামড়াদের দেশে পরিণত করা।

হাইতি বংশোদ্ভুত একমাত্র কংগ্রেস সদস্য এবং উটাহ’র রিপাবলিকান আইন প্রণেতা মিয়া লাভ, ট্রাম্পের এ বক্তব্যকে ‘নির্মম, বিভেদ সৃষ্টিকারী, এবং অভিজাতদের স্বার্থ কেন্দ্রিক’ বলে মন্তব্য করেছেন।

মন্তব্য

মতামত দিন

আমেরিকা পাতার আরো খবর

সাদিক খানের ভয়েই লন্ডন সফর বাতিল ট্রাম্পের!

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনওয়াশিংটন: দু’দিন আগেই টুইটারে ফলাও করে ঘোষণা করেছিলেন তার লন্ডন সফর বাতিলের কথা। মার্কিন . . . বিস্তারিত

ক্ষমতার ভারসাম্যের জন্য নিরাপত্তা পরিষদের সংস্কার জরুরি: গুতেরেস

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনওয়াশিংটন: জাতিসংঘকে আরও গণতান্ত্রিক ও বৈচিত্র্যমণ্ডিত করতে নিরাপত্তা পরিষদের সংস্কার জরুরি বলে . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com