উ. কোরিয়া-যুক্তরাষ্ট্র সঙ্কটে পক্ষ নেয়া শুরু করেছে বিভিন্ন রাষ্ট্র

১১ আগস্ট,২০১৭

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
ওয়াশিংটন: যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে সাম্প্রতিক উত্তেজনার প্রেক্ষিতে বিভিন্ন দেশ তাদের প্রতিক্রিয়া দেখাতে শুরু করেছে। কিছু শর্তসাপেক্ষে উত্তর কোরিয়ার প্রতি সমর্থন জানিয়েছে চীন।

দেশটির ইংরেজি ভাষার সরকারি গণমাধ্যম ‘গ্লোবাল টাইমস’-এ প্রকাশিত এক সম্পাদকীয়তে বলা হয়েছে, ‘যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া যদি উত্তর কোরিয়ায় সরকার উৎখাতের চেষ্টা করে এবং কোরীয় উপত্যকায় বিদ্যমান রাজনৈতিক অবস্থায় পরিবর্তন আনতে হামলা করে তাহলে চীন তা করতে দিতে বাধা দেবে।’

তবে যে কোনো পরিস্থিতিতেই পিয়ংইয়ংকে সমর্থন দেয়া চীনের উচিত হবে না বলেও সম্পাদকীয়তে মন্তব্য করা হয়েছে।

‘চীনের এটাও স্পষ্ট করে দেয়া উচিত যে, উত্তর কোরিয়া যদি প্রথমে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি হুমকিমূলক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে এবং তার প্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্র কোনো ব্যবস্থা নেয় তাহলে চীন নিরপেক্ষ থাকবে।’

এদিকে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী ম্যালকম টার্নবুল শুক্রবার মেলবোর্নের এক রেডিওকে বলেন, ওয়াশিংটনের ‘অস্ট্রেলিয়ার চেয়ে শক্তিশালী সমর্থক আর নেই।’

তিনি বলেন, ‘পরিষ্কার করে বলি, উত্তর কোরিয়া যদি যুক্তরাষ্ট্রের উপর হামলা চালায় তাহলে এএনজেডইউএস চুক্তি কার্যকরা করা শুরু হবে এবং যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তায় এগিয়ে আসবে অস্ট্রেলিয়া।’

দক্ষিণ কোরিয়ার জয়েন্টস চিফস অফ স্টাফের মুখপাত্র রো জ্য-চেওন বলেন, পিয়ংইয়ংয়ের উসকানির ‘তাৎক্ষণিক ও কঠোর জবাব’ দিতে প্রস্তুত ওয়াশিংটন ও সিউল।

জাপানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বৃহস্পতিবার জানায়, উত্তর কোরিয়ার কাছ থেকে এমন উসকানি ‘কখনই সহ্য করা হবে না'। পিয়ংইয়ংকে তারা মনে করিয়ে দিয়েছে যে, জাপানের উপর দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের দিকে নিক্ষেপ করা কোনো ক্ষেপণাস্ত্রকে যদি নিজেদের (জাপানের) অস্তিত্বের প্রতি হুমকি মনে করে তাহলে তাতে বাধা দেয়ার ক্ষমতা জাপানের আছে।

জার্মানি ও ন্যাটোর অবস্থান
জার্মান কর্মকর্তারা বলছেন, তাদের মিত্রদেশ ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে ‘খুবই মারাত্মক পরিস্থিতি’-র উদ্ভব হয়েছে। জার্মানি এখনো কোনো রাষ্ট্রের প্রতি সমর্থন প্রকাশ করেনি।

তবে ওয়াশিংটন যদি ন্যাটোর আর্টিকেল ৫ কার্যকর করে তাহলে ন্যাটোর সদস্য হিসেবে জার্মানি কী করবে? আর্টিকেল ৫ অনুযায়ী, কোনো সদস্যরাষ্ট্র হুমকির মুখে পড়লে বাকি সদস্যদের ওই রাষ্ট্রের সহায়তায় এগিয়ে আসার কথা। অবশ্য আর্টিকেল ৬-তে যে প্রতিরক্ষা সীমানার কথা বলা হয়েছে তার মধ্যে পড়ে না যুক্তরাষ্ট্রের গুয়াম দ্বীপ। উত্তর কোরিয়া এই দ্বীপেই আঘাত হানার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে।

সূত্র: আল জাজিরা, ডয়চে ভেলে

মন্তব্য

মতামত দিন

আমেরিকা পাতার আরো খবর

পাকিস্তানের ওপর নজর রাখতে ভারতকে সাহায্যের আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএননিউইয়র্ক: জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি বলেছেন, সন্ত্রাসবাদ নিয়ে প্রেসিডেন্ট . . . বিস্তারিত

রাখাইনে ২৮৮ রোহিঙ্গা গ্রাম পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে: এইচআরডব্লিউ

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএননিউইয়র্ক: মায়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর সেনাবাহিনীর দমন অভিযান শুরুর পর এক মাসেই ২৮৮ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান, গোলাম রসুল প্লাজা (তৃতীয় তলা), ৪০৪ দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০।
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com