ভারতে নাগরিকত্ব বিল নিয়ে মার খেলেন বিজেপি নেতা

৩১ জানুয়ারি,২০১৯

ভারতে নাগরিকত্ব বিল মার খেলেন বিজেপি নেতা

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
দিল্লী: বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন সময়ে পালিয়ে আসা হিন্দুদের ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়া নিয়ে চলছে তুলকালাম। চলমান আলোচনার মধ্যে এবার ক্ষমতাসীন বিজেপির তিনসুকিয়া জেলার সভাপতি লখেশ্বর মোরানকে পিটিয়ে আহত করেছে বিক্ষুদ্ধরা।

মারের ঘটনায় কয়েকজনকে আটক করেছে পুলিশ। খোঁজ চলছে আরও কয়েকজনের। খবর বিবিসি বাংলার

বিজেপি নেতা মোরানকে পেটানোর সেই ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে গেছে। আর ভিডিও দেখেই কয়েকজন হামলাকারীকে চিহ্নিত করে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

নাগরিকত্ব বিলের বিরোধিতায় গোটা উত্তরপূর্বাঞ্চলেই বিক্ষোভ-হরতাল-প্রতিবাদ চলছে। আর গত কয়েকদিনের মধ্যে নাগরিকত্ব বিলকে কেন্দ্র করে এ নিয়ে অসমীয়া জাতীয়তাবাদী শক্তিগুলির সঙ্গে বিজেপির এটি দ্বিতীয় সরাসরি সংঘাতের ঘটনা।

বুধবার তিনসুকিয়া জেলার বিজেপি সভাপতি লখেশ্বর মোরান যখন নাগরিকত্ব বিল কেন প্রয়োজনীয় সেটা বোঝাতে এক সভায় হাজির হয়েছিলেন, তখনই বিলের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকেন হাজার তিনেক মানুষ। কালো পতাকাও দেখানো হয়।

সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে যে, হঠাৎ একদল বিক্ষোভকারী রীতিমতো ধাওয়া করা হয় ওই বিজেপি নেতাকে। কিল চড় চলতে থাকে। কেউ তার চুল টেনে দেয়, অন্য কেউ ধাক্কা দিতে থাকে।

এক পর্যায়ে তিনি মাটিতে পরে যান। তারপরে ঢিলও মারা হয়। প্রথমবার উঠে সরে যাওয়ার চেষ্টা করতে গিয়ে আবারও পড়ে যান তিনি।

গোটা সময়টা বিক্ষোভকারীরা কালো পতাকা ধরে থাকেন মি. মোরানের সামনে, চলতে থাকে স্লোগান।

রক্তাক্ত অবস্থায় পুলিশ উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

তিনসুকিয়ার পুলিশ সুপারিন্টেনডেন্ট শিলাদিত্য চেতিয়া জানিয়েছেন, ভিডিও ফুটেজ দেখে আমরা কয়েকজনকে চিহ্নিত করতে পেরেছি। তিনজন ইতিমধ্যেই গ্রেপ্তার হয়েছে। আরো ৫-৬ জন ছিল ওই হামলায়। তাদের খোঁজে বাড়িতে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। আশা করছি সবাইকেই গ্রেপ্তার করা যাবে খুব তাড়াতাড়ি।

ওই ঘটনার ব্যাপারে জানতে মোরানো সঙ্গে যোগাযোগ করা যায় নি।

কিন্তু দুদিন আগে আসাম বিজেপির প্রধান মুখপাত্র রাজদীপ রায় বলেছিলেন, এই বিল নিয়ে আমাদের অবস্থান বিজেপির জন্মলগ্ন থেকেই খুব স্পষ্ট। অনুপ্রবেশকারী আর শরণার্থীদের মধ্যে ফারাক করা উচিত এটাই আমরা মনে করি।

তিনি বলেন, যারা বিরোধিতা করছে, তারা অচিরেই বুঝতে পারবে বিষয়টা। আর যে কয়েকটি বিষয়ে নিয়ে আপত্তি রয়েছে, আলাপ আলোচনার মাধ্যমেই সেগুলো মেটানো যাবে।

রাজদীপ রায় বলেন, আলাপ আলোচনার মাধ্যমেই নাগরিকত্ব বিল নিয়ে বিরোধ মেটানো যাবে, তবে গত কয়েকদিনের মধ্যে অসমীয়া জাতীয়তাবাদী শক্তিগুলির সঙ্গে বিজেপি নেতা কর্মীদের সরাসরি সংঘাত নিয়ে চিন্তিত অনেকেই।

আসামের বাংলা দৈনিক যুগশঙ্খ কাগজের সম্পাদক অরিজিত আদিত্য বলেন, এতদিন নাগরিকত্ব বিল নিয়ে বিরোধিতাটা যে 'গণতান্ত্রিক' ভাবে হচ্ছিল, এখন সংঘাতটা বাড়ছে। ধৈর্যের বাঁধ সম্ভবত ভাঙ্গছে অসমীয়া জাতীয়তাবাদী সংগঠনগুলির। কোথাকার জল কোথায় গড়ায় সেটাই দেখার।

তিনি আরো বলেন, নাগরিকত্ব বিলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদটা যে আর কথিত গণতান্ত্রিক পন্থায় থাকছে না, সেটা আসামের এই দুটি ঘটনায় যেমন স্পষ্ট হচ্ছে, তেমনই বুধবারই মনিপুরী ছাত্ররা দিল্লিতে সংসদের গেটের সামনে প্রায় পৌঁছিয়ে গিয়ে বিলের কপি পুড়িয়েছে।

কিছুদিন আগে সম্পূর্ণ উলঙ্গ হয়ে বিলের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ হয়েছে দিল্লি প্রাণকেন্দ্র যন্তর-মন্তরে। উত্তরপূর্বের সব রাজ্যেই ক্ষোভটা ক্রমশ বাড়ছে।

জানতে চেয়েছিলাম সারা আসাম বাঙালী ছাত্র যুব ফেডারেশনের উপ সভাপতি মৃন্ময় দাস জানান, এখনো পর্যন্ত আমরা বাঙালীরা খুব একটা টেনশনে নেই। অাসমীয়া জাতীয়তাবাদী সংগঠনগুলোর সঙ্গেই বিজেপির সংঘাত চলছে। আমরা নীরবই আছি। কিন্তু একটা জায়গায় আমাদের অবস্থান স্পষ্ট, যে হিন্দু বাঙালীদের নাগরিকত্ব দিতেই হবে। এর জন্য যতদূর যাওয়া দরকার যেতে আপত্তি নেই।

সম্পাদক অরিজিত আদিত্য অবশ্য মনে করেন যে, হিন্দু বাঙালীরা নাগরিকত্ব ইস্যুতে একটা ফাঁদে পা দিয়ে ফেলেছে। ভুলটা হিন্দু বাঙালীদেরই। আমাদের আবার নাগরিকত্ব পেতে হবে কেন? আমাদের ভারতের নাগরিকত্ব তো আছেই!

তিনি বলেন, বিলটা না বুঝেই দুহাত তুলে বিলের সমর্থনে দাঁড়িয়েছে হিন্দু বাঙালীরা। তার ফলে এখন সকলেই মনে করছে যে বাংলাভাষী হিন্দু মানেই বাংলাদেশ থেকে আসা অনুপ্রবেশকারী সেজন্যই তারা নাগরিকত্ব বিলকে সমর্থন করছে। গোটা উত্তরপূর্বে হিন্দু বাঙালীরা এখন গণশত্রু হয়ে দাঁড়িয়েছে।

মন্তব্য

মতামত দিন

এশিয়া পাতার আরো খবর

পুলওয়ামাতে হামলার জের: ভারতের নানা প্রান্তে কাশ্মীরিদের হেনস্থা

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনকাশ্মীর: তিনদিন আগে ভারত-শাসিত কাশ্মীরের পুলওয়ামাতে আত্মঘাতী হামলায় চল্লিশজনেরও বেশি ভারতীয় . . . বিস্তারিত

পুলওয়ামা হামলা: পাকিস্তানকে কী করতে পারে ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনইসলামাবাদ:ভারত শাসিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় জঙ্গী হামলায় ৪০ জনেরও বেশী কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা রক্ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com