ফিনানসিয়াল টাইমসকে 

প্রধানমন্ত্রী হতে জোটের কিছু লোক আমাকে বাধা দেয়ার চেষ্টা করছেন: আনোয়ার ইব্রাহীম

০৮ জানুয়ারি,২০১৯

আনোয়ার ইব্রাহীম

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
কুয়ালালামপুর: মালেশিয়ার পরবর্তী হবু প্রধানমন্ত্রী আনোয়ার ইব্রাহীম বলেছেন যে, ক্ষমতাসীন জোটের কিছু রাজনীতিবিদ আছেন যারা তাকে ড. মোহাম্মদ মাহাথিরের পর দেশকে নেতৃত্ব দেয়ার ক্ষেত্রে বাধা দিতে চাচ্ছেন।

ব্রিটিশ ফিনানসিয়াল টাইমসকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন।

গত বুধবার ব্রিটিশ ফিনানসিয়াল টাইমসে প্রকাশিত সাক্ষাৎকারে আনোয়ার ইব্রাহীম ডাঃ মহাথিরের সাথে পাকতান হারপন (পিএইচ) জোটের মধ্যে দুই বছরের একটি চুক্তির কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, পকেটগুলি, যারা নিজেদের কারণে এই ব্যবস্থাগুলি ভাঙ্গতে চায়।

ফিনানসিয়াল টাইমসকে আনোয়ার বলেন, আমি অস্বীকার করতে পারছি না যে, ক্ষমতাসীন জোটের কিছু লোকের একটি ভিন্ন এজেন্ডা রয়েছে।

তার বক্তব্যে পার্তি কিদিলান রাকায়েত(পিকেআর) এর ডেপুটি প্রেসিডেন্ট দাতুক সেরি আজমিন আলী ও তার মধ্যে উত্তেজনার স্বীকৃতি হিসাবে দেখা যায়।

এর আগে তিনি যা বলেছিলেন তা নিশ্চিত করার জন্য মালয়েশিয়ার সাংবাদিকরা জিজ্ঞাসা করেছিলেন, তিনি প্রথমে এই কথা অস্বীকার করেছিলেন। এ ব্যাপারে আনোয়ার বলেন, আমি কখনোই বলিনি যে, কোনও জাল নিউজকে বিনোদন করা হবে না।

তবে নিউ স্ট্রেইট টাইমস-এর দ্বারা তিনি পরে বলেছিলেন যে, "আপনি এটা অস্বীকার করতে পারেন না যে এখানে এমন কিছু উপাদান আছে যারা একমত নাও হতে পারেন। এটি একটি গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া। তবে পিএইচ, আমি এবং তুন মহাথির একমত হয়েছি।"

আনোয়ার ইব্রাহীম সুদীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে তিনি ১৯৯০ সালে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির মোহাম্মদের ডেপুটি প্রধানমন্ত্রী ছিলেন এবং পরবর্তীতে পিকেআরের প্রধান হয়েছিলেন, এমনকি কথিত সমকামিতার দায়ে দীর্ঘ দিন কারাভোগ করেন।

গত বছরের মে মাসে জাতীয় নির্বাচনে তার জোট বিজয়ের পর তিনি কারামুক্ত হয়ে আবার রাজনীতিতে ফিরেন।

পরে মালয়েশিয়ার পোর্ট-ডিকসনের উপনির্বাচনে বিজয়ী দেশটির ক্ষমতাসীন জোটের ডি-ফ্যাক্টো নেতা আনোয়ার ইব্রাহীম মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার খুব নিকটে অবস্থান করে রাজনীতিতে তার নাটকীয়ভাবে ফিরে আসাকে আরো বেশী নাটকীয় করে তুলেছেন।

কিন্তু তার বর্তমান অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে তিনি তার অতীতকে পেছনে ফেলে সামনে এগিয়ে যেতে একেবারে বদ্ধপরিকর। গত বছরের মে মাসে মালয়েশিয়ার সাধারণ নির্বাচনে আনোয়ার তার সাবেক রাজনৈতিক দলে United Malays National Organisation বা উমনো এর ৬০ বছরের রাজনৈতিক আধিপত্যকে ভেঙ্গে দিতে গণতন্ত্রের ত্রাণকর্তা রূপে আবির্ভূত হন।

ওই নির্বাচনে উমনো এর নেতা এবং মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের ভরাডুবির মাধ্যমে আনোয়ার তার সাবেক রাজনৈতিক গুরু এবং সাবেক শত্রু ড. মাহাথির মোহাম্মদের সাথে পুনরায় মিত্রতা গড়ে তোলেন।

তাদের এই সমঝোতা হয়েছিল সময়ের আবর্তে ড. মাহাথিরের হাতে থাকা প্রধানমন্ত্রীত্বের পদ আনোয়ারকে ছেড়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতির মাধ্যমে।

তাদের দুজনের মধ্যকার এই মিত্রতা একটি অসাধারণ ব্যাপার; কেননা আনোয়ার ইব্রাহীম ১৯৯০ সালে তার রাজনৈতিক গুরু ড. মাহাথির দ্বারা পদচ্যুত হন এবং সমকামিতার অভিযোগে দীর্ঘ কারাভোগ করেন।

আনোয়ার ইব্রাহীমের ফিরে আসার প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে তার প্রতি রাজ ক্ষমা ঘোষণা করার মাধ্যমে তাকে কারামুক্তি দেয়া হয় এবং এর পরেই তিনি পাকতান হারাপানের সাথে মিত্রতা গড়ে তোলার মাধ্যমে দলটিকে ক্ষমতার স্বাদ দেন।

অমায়িক এবং সহজ ব্যবহারের সংস্কারপন্থী আনোয়ার মালয়েশিয়াকে একটি মধ্য-আয়ের দেশ থেকে সামনের দিকে উত্তরণ করার শপথ নিয়েছেন।

আনোয়ার ইব্রাহীম মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের অর্থ কেলঙ্কারীর ঘটনা যা দেশটিতে 1MDB (1Malaysia Development Berhad (1MDB) is a Malaysian strategic development company) স্ক্যান্ডাল নামে পরিচিত, তা সবার সামনে উদ্ভাসিত করেন।

বিপরীত ক্রমভাবে আনোয়ার ইব্রাহীম একই সাথে ইসলাম এবং গণতন্ত্রের ভারসাম্য বজায় রাখতে ওস্তাদ; যিনি তার শ্রোতাদের উদ্দেশ্য তাদের চাহিদা অনুযায়ী পবিত্র কুরআন বা শেক্সপিয়রের রচনা থেকে উদ্ধৃতি দিয়ে থাকেন।

১৯৯৭ সালে এশিয়ার অর্থনৈতিক সঙ্কটের সময় ড. মাহাথির এবং আনোয়ারের মধ্যকার বিরোধ এখনো দৃশ্যমান। আর কৌতূহলোদ্দীপকভাবেই তাদের মধ্যকার বিরোধকে কেন্দ্র করে সম্প্রতি মালয়েশিয়ার পুঁজি বাজারে একধরনের অস্থিরতা লক্ষ্য করা গেছে। যা শক্তিশালী ড. মাহাথিরের অতীত রাজনীতিকে মনে করিয়ে দিচ্ছে।

এদিকে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির নিশ্চয়তা দিয়ে জানিয়েছেন যে, তিনি পিকেআরের অন্য মিত্রদের পরামর্শক্রমে ক্ষমতা পরিচালনা করবেন।

রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের মধ্যেই মালয়েশিয়া তার চলার পথে অবিচল থাকার জন্য সামনে এগিয়ে যাচ্ছে। সুদীর্ঘ সময় ধরে স্থিতিশীলতা ধরে রাখার মত সক্ষমতা মালয়েশিয়ার রয়েছে।

এদিকে একাধিক বার উভয় পক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে- ড. মোহাম্মদ মাহাথির ও আনোয়ার ইব্রাহীমের মধ্যে কোনো দ্বন্দ্ব তথা স্নায়ুযুদ্ধ নেই। ড. মোহাম্মদ মাহাথির বলেছেন, তিনি তার প্রতিশ্রুতি রক্ষায় দৃঢ়প্রতিজ্ঞ, তিনি প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই আনোয়ার ইব্রাহীমের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে চান।

অন্যদিকে আনোয়ার ইব্রাহীমও সব ধরনের গুজব উড়িয়ে বলে আসছেন তার ও মাহাথির মধ্যে কোনো দ্বন্দ্ব নেই। দ্রুত ক্ষমতা হস্তান্তরের ব্যাপারে তার পক্ষ থেকে ড. মোহাম্মদ মাহাথিরের ওপর কোনো ধরনের চাপ নেই। তিনি যতদিন খুশি ততদিন দেশ পরিচালনা করবেন। এক্ষেত্রে তিনি সব ধরনের সহযোগিতা করে যাবেন।

মন্তব্য

মতামত দিন

এশিয়া পাতার আরো খবর

মুসলমানদের যত রক্ত ঝরিয়েছেন তার প্রতিশোধ নেব: নেতানিয়াহুকে আইআরজিসি’র কমান্ডার

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনতেহরান: ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী- আইআরজিসি’র কমান্ডার মেজর জেনারেল মোহাম্মাদ আল . . . বিস্তারিত

বড় যুদ্ধের জন্য সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ চীনা প্রেসিডেন্টের

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনবেইজিং: চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের মতে, বিশ্বে এমন সব পরিবর্তন হচ্ছে যা এক শতাব্দীর মধ্যে দ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com