সর্বশেষ সংবাদ: |
  • বিএনপি নেতা রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুর প্রার্থিতা বৈধ করবে বলে জানিয়েছেন আদালত, অ্যাটর্নি জেনারেলের মতামত নেওয়ার পর আদেশ
  • তিন আসনে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে দায়ের করা রিটের শুনানি চলছে
  • সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে সংবিধান, ভোটার ও রাজনৈতিক নেতাদের কাছে দায়বদ্ধ নির্বাচন কমিশন : সিইসি

চীনের কাছে বিমানবাহী রণতরীর আধিপত্য হারাচ্ছে ভারত

১৬ এপ্রিল,২০১৮

চীনের কাছে বিমানবাহী রণতরীর আধিপত্য হারাচ্ছে ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
দিল্লি: এক মাস বা তার কাছাকাছি সময়ের মধ্যে, পরিকল্পিত সময়ের চেয়ে অনেক আগে, চীন তার দ্বিতীয় বিমানবাহী রণতরীর সামুদ্রিক পরীক্ষা (সি-ট্রায়াল) শুরু করছে।

একই সঙ্গে দেশটি অতিকায় পারমাণিক-শক্তিচালিত আরেকটি বিমানবাহী রণতরী নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়ে দ্রুতবেগে এগিয়ে যাচ্ছে। এসব তৎপরতার কারণে আগামী দিনগুলোতে এশিয়ার বৃহৎ দেশটির কাছে সমুদ্রবক্ষে ভারতের এতদিনের আধিপত্য হারানোর সত্যিকারের ঝুঁকি তৈরি হয়েছে।

ভারতের হাতে এখন শুধু ৪৪,৪০০ টনের বিমানবাহী রণতরী আইএনএস বিক্রমাদিত্য রয়েছে। এটিও আবার পুরনো, রাশিয়ার কাছ থেকে ২.৩৩ বিলিয়ন ডলারে কেনা। রাশিয়ার এডমিরাল গ্রোশকভকে নতুন নাম দিয়ে ২০১৩ সালে ভারতীয় নৌবাহিনীতে যুক্ত করা হয়।

সূত্র জানায়, আরেকটি ৪০,০০০ টনের বিমানবাহী রণতরী আইএনএস বিক্রান্ত এখন কোচিন শিপইয়ার্ডে নির্মাণাধীন। পরিকল্পিত সময়ের চেয়ে বেশ বিলম্ব ঘটছে এর নির্মাণ কাজে। বর্তমান পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০২০ সালের অক্টোবর নাগাদ এর সি-ট্রায়াল শুরু করার কথা রয়েছে। এভিয়েশন কমপ্লেক্স ও দূর পাল্লার স্যাম ক্ষেপনাস্ত্রসহ পুরোপুরি অপারেশনাল হতে এর কম করে হলেও ২০২৩ সাল লেগে যাবে। ২০০৩ সালে সরকার এই রণতরী নির্মাণের জন্য প্রথম অর্থ বরাদ্দ করে। এখন এর মূল্য দাঁড়িয়েছে ১৯,৩৪১ কোটি রুপি।

বাস্তব পরিস্থিতি আরো করুণ। আইএনএস ভিসাল নামে যে ৬৫,০০০ টনি বিমানবাহী রণতরী নির্মাণের স্বপ্ন দেখা হয়েছিলো রাজনৈতিক-আমালাতান্ত্রিক জটিলতায় তা এখনো স্বপ্নই রয়ে গেছে। নৌবাহিনী ২০১৫ সালে এই প্রকল্প নিয়ে দ্রুততার সঙ্গে ডিফেন্স এক্যুইজিশন কাউন্সিলে এগিয়ে গেলেও এখন গতি মন্থর।

পারমাণবিক শক্তিশালিত আইএনএস বিক্রান্ত চেয়েছিলো ভারতীয় নৌ বাহিনী। এতে খরচ যেমন কম হতো তেমনি দীর্ঘদিন সমুদ্রে ভেসে থাকার উপযোগি হতো এটি। এখন রণতরীটিতে জঙ্গিবিমান ও ভারি নজরদারি বিমান ওঠা-নামার জন্য এখন থাকছে ক্যাটোবার (ক্যাটাপুলেট এসিসটেড টেক-অফ বা এরেসটেড রিকভারি) কনফিগারেশন। পাশাপাশি এর ডেকে আর্লি ওয়ার্নিং এন্ড ইলেক্ট্রনিক ওয়ারফেয়ার সিস্টেমও থাকছে। এখন পর্যন্ত রণতরীতে জঙ্গি বিমান ওঠা-নামার জন্য এঙ্গেলড স্কাই-জাম্পস পদ্ধতি (স্টবার অপারেশন) অনুসরণ করা হচ্ছে।

নৌবাহিনীর একজন সিনিয়র কর্মকর্তা বলেন, সরকারের অনুমোদনের পর একটি বিমানবাহী রণতরী নির্মাণ শেষ করতে ভারতের এক দশকের বেশি সময় লেগে যাচ্ছে। অথচ চীন ভয়ংকর গতিতে এসব রণতরী নির্মাণ করে চলেছে। দেশটি ছয়টি ক্যারিয়ার স্টাইক গ্রুপ তৈরি করতে চাচ্ছে। এগুলোর অন্তত দুটি হবে পারমাণবিক শক্তি-চালিত।

২০১২ সালে চীন তার প্রথম ৬৫,০০০ টনি বিমানবাহী রণতরী লিয়াওনিং নৌবাহিনীতে যুক্ত করে। শিগগিরই দেশটি নিজস্ব নির্মিত টাইপ-০০১এ রণতরীর সি-ট্রায়াল শুরু করছে। আগামী বছরেই এটি নৌবাহিনীতে সংযুক্ত করার কথা রয়েছে।

ওই ভারতীয় কর্মকর্তা বলেন, এটি শুধু স্টবার অপারেশনের উপযোগী করে তৈরি। কিন্তু তাদের ভবিষ্যৎ রণতরীগুলোতে ক্যাটোবার অপারেশন যুক্ত হতে পারে এবং সেগুলো হবে পারমাণবিক শক্তি চালিত। আকারের দিক দিয়েও যুক্তরাষ্ট্রের সমপর্যায়ের হতে পারে সেগুলো।

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর

মন্তব্য

মতামত দিন

এশিয়া পাতার আরো খবর

জাপান উপকূলে মার্কিন বিমানের সংঘর্ষ, নিখোঁজ ৫ মেরিন সেনা

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনটকিও: জাপানের দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলে আমেরিকার দুটি বিমানের সংঘর্ষে অন্তত ৫ মেরিন সেনা নিখোঁজ হয়েছ . . . বিস্তারিত

বাবরি মসজিদ ধ্বংসে তৎকালীন ভারতের প্রধানমন্ত্রী কতটা দায়ী?

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএননয়াদিল্লি: ১৯৯২ সালের ৬ই ডিসেম্বর ছিল রবিবার। রবিবার বলেই একটু দেরী করে সেদিন ঘুম থেকে উঠেছিলে . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com