সর্বশেষ সংবাদ: |
  • গাড়িবহরে হামলার বিষয়ে ড. কামালের সংবাদ সম্মেলন শুক্রবার বিকালে
  • তৃতীয় বেঞ্চে আজ শুনানি হতে পারে খালেদা জিয়ার রিট
  • নির্বাচনী সহিংসতা ‘তৃতীয় শক্তির পাঁয়তারা’ কি না খতিয়ে দেখতে গোয়েন্দা সংস্থাকে নির্দেশ সিইসির

‘থাপ্পড় কাবাডিতে’ প্রাণ গেল স্কুলছাত্র বিলালের

১৬ এপ্রিল,২০১৮

‘থাপ্পড় কাবাডিতে’ প্রাণ গেল স্কুলছাত্র বিলালের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
লাহোর: ‘থাপ্পড় খেলা’ করতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছে ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্র। পকিস্তানের পাঞ্জাবের মিয়ান চান্নু সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। টিফিন টাইমে ‘থাপ্পড় কাবাডিতে’ অংশ নেয় বিদ্যালয়টির বিলাল ও আমির নামের দুই ছাত্র।

খেলার এক পর্যায়ে আমির বিলালের ঘাড়ে উপযুপুরি আঘাত করে। খবর: এক্সপ্রেস ট্রিবিউন ও এনডিটিভি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, খেলা চলাকালীন বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা জড়ো হয়ে তা উপভোগ করছিল।

খেলাটি চলতি মাসের শুরুর দিকে হলেও গত শনিবার (১৪ এপ্রিল) তার ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে।

এতে দেখা গেছে, খেলার শুরুতে বিলাল এবং আমির পরস্পরকে চড় মারতে থাকে, যে যতটা পারছে। কিন্তু, পরিস্থিতি হঠাৎ করেই জটিল আকার নেয়। আমিরের থাপ্পড়ে জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে বিলাল।

কিন্তু, সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় বিলালকে কেউ প্রাথমিক চিকিৎসা কিংবা নিকটবর্তী হাসপাতালে নিয়ে যায়নি। প্রায় দেড় ঘণ্টা পর তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়, ততক্ষণে সব শেষ।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ঘটনার পর তাৎক্ষণিকভাবে বিলালকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিতে ব্যর্থ হয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। একই সঙ্গে স্থানীয় পুলিশ স্কুলছাত্রের লাশের কোনো ময়নাতদন্তই করেনি।

এজন্য অবশ্য স্কুলের প্রধান শিক্ষক আবিদ হোসাইন এবং বিলালের মা-বাবাকেও দোষারোপ করা হচ্ছে। কারণ, তারা ঘটনাটি পুলিশকে জানাননি।

থাপ্পড় কাবাডিকে চান্তা কাবাডিও বলা হয়। পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের অনেক শহরে এটি খুবই জনপ্রিয় খেলা।

আরো পড়ুন...
লাহোরে পুলিশ ঘাঁটিতে আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত ৯
লাহোর: পাকিস্তানের লাহোরে একটি পুলিশ ঘাঁটির সামনে আত্মঘাতী বোমা হামলায় চার পুলিশ সদস্যসহ কমপক্ষে নয়জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরো অন্তত ২৭ জন।

স্থানীয় সময় বুধবার এশার নামাজের পর এ হামলার ঘটনা ঘটে বলে পাকিস্তানের শীর্ষ গণমাধ্যম ডনের এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

পাঞ্জাব প্রদেশের রাজধানী লাহোরের হামলাকে প্রাথমিকভাবে পূর্বপরিকল্পিত মনে করা হলেও পরে জানা গেছে যে পুলিশকে লক্ষ্য করে মোটরসাইকেলে এগিয়ে গিয়ে শক্তিশালী বোমাটির বিস্ফোরণ ঘটায় আত্মঘাতী হামলাকারী। পুলিশ ঘাঁটিসহ সেখানে একটি ধর্মীয় সংগঠনের দপ্তর হওয়ায় তাদের লক্ষ্য করেও হামলা চালানো হতে পারে বলে ধারণা করছে পুলিশ।

স্থানীয় সময় বুধবার এশার নামাজের পর ওই সংগঠনের বেশিরভাগ সদস্য রাস্তায় অবস্থান করছিলেন। ঠিক তখনই বিস্ফোরিত হয় বোমাটি।

হামলার পরই এর দায় স্বীকার করে বিবৃতি দেয় পাকিস্তান তালেবানের অঙ্গসংগঠন তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তান।

মন্তব্য

মতামত দিন

এশিয়া পাতার আরো খবর

জাপান উপকূলে মার্কিন বিমানের সংঘর্ষ, নিখোঁজ ৫ মেরিন সেনা

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনটকিও: জাপানের দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলে আমেরিকার দুটি বিমানের সংঘর্ষে অন্তত ৫ মেরিন সেনা নিখোঁজ হয়েছ . . . বিস্তারিত

বাবরি মসজিদ ধ্বংসে তৎকালীন ভারতের প্রধানমন্ত্রী কতটা দায়ী?

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএননয়াদিল্লি: ১৯৯২ সালের ৬ই ডিসেম্বর ছিল রবিবার। রবিবার বলেই একটু দেরী করে সেদিন ঘুম থেকে উঠেছিলে . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com