ব্রেকিং সংবাদ: |
  • ওসির গুলিতে বিএনপি নেতা মাহাবুব উদ্দিন খোকন গুরুতর আহত

বিদ্যা দেবী আবারও নেপালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত

১৩ মার্চ,২০১৮

বিদ্যা দেবী আবার নেপালের প্রেসিডেন্ট

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আটিএনএন
কাঠমান্ডু: দ্বিতীয় বারের মতো নেপালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন ক্ষমতাসীন দল নেপালের কমিউনিস্ট পার্টির (ইউএমএল) উপপ্রধান বিদ্যা দেবী ভান্ডারি। ভোট গণনা শেষে আইনপ্রণেতা ও সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী বিদ্যা ৩৯ হাজার ২৭৫ ভোট পেয়ে তিনি দ্বিতীয় বারের মতো প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন।

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকাল ১০টা থেকে দুপুর ৩টা পর্যন্ত ভোট অনুষ্ঠিত হয়। বিকাল ৪টা থেকে ভোট গণনা শুরু হয়। তার নিকটতমী প্রতিদ্বন্দ্বী নেপালি কংগ্রেসের কুমারি লক্ষ্মী রায় পেয়েছেন ১১ হাজার ৭৩০ ভোট।

নির্বাচনী কর্মকর্তা টিল প্রসাদ শ্রেষ্ঠা নেপালি গণমাধ্যম মাই রিপাবলিকা অনলাইনকে এই তথ্য জানিয়েছেন। হিমালয় অঞ্চলের দেশটিতে প্রেসিডেন্ট রাষ্ট্রের আলংকারিক প্রধান মাত্র। নেপালের রাজনীতিতে নারীর উপস্থিতি বিরল।

২০১৫ সালের ২৮ অক্টোবর তিনি নেপালের প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। ওই নির্বাচনে বিদ্যা ভান্ডারি ৩২৭-২১৪ ভোটে সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী কুল বাহাদুর গুরুংকে হারিয়ে রাষ্ট্রপ্রধান নির্বাচিত হয়েছিলেন।

ক্ষমতাসীন দল নেপালের কমিউনিস্ট পার্টির (ইউএমএল) উপপ্রধান বিদ্যা দেবী ভান্ডারি। তরুণ বয়সেই তার রাজনৈতিক জীবন শুরু হয়। তার স্বামী ও কমিউনিস্ট রাজনীতিক মদন ভান্ডারি ১৯৯৩ সালে এক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন। দুই সন্তানের জননী বিদ্যা তখন রাজনীতিতে সক্রিয় হন। পরবর্তীতে তিনি পার্লামেন্ট নির্বাচনে জয়ী হন।

নেপাল সফরে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী, কড়া নজর ভারতের
পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শহীদ খাকান আব্বাসী দুই দিনের এক বিরল সফরে সোমবার নেপাল গেছেন। নেপালের বড় প্রতিবেশী ভারত এই সফরের ওপর কড়া নজর রাখছে। রবিবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্র দপ্তর থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়, আঞ্চলিক দেশগুলোর সাথে সম্পর্ক বৃদ্ধির পরিকল্পনার অংশ হিসেবে এই সফর করছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো নেপালের নতুন প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা ওলি গত মাসের মাঝামাঝি ক্ষমতা গ্রহণের পর এটা কোন বিদেশী গুরুত্বপূর্ণ অতিথির প্রথম সফর।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র দপ্তরের বিবৃতিতে নেপালকে গুরুত্বপূর্ণ, আঞ্চলিক দেশ এবং ঘনিষ্ঠ বন্ধু হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়, নেপালের সাথে আমাদের সম্পর্ক আন্তরিকতা, পারস্পরিক শ্রদ্ধা এবং সম-স্বার্থের ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত। দ্বিপাক্ষিক এবং বহুপাক্ষিক স্বার্থে আলোচনার বিষয়টি দুই পক্ষের কাছেই সমান গুরুত্বপূর্ণ।

নয়াদিল্লী এই সফর নিয়ে মন্তব্য করেনি। তবে ঘটনাপ্রবাহের ব্যাপারে যারা খোঁজ-খবর রাখেন, তারা বলছেন, ভারতের সরকার এই সফরের উপর উদ্বিগ্ন হয়ে নজর রাখছে। ভারতের এই উদ্বেগের পেছনে রয়েছে তিনটি কারণ:

ওলিকে চীনপন্থী মনে করা হয়
প্রথমত, নেপালের প্রধানমন্ত্রী ওলি ভারতের সে রকম বন্ধু হিসেবে পরিচিত নন। তাকে দেখা হয় চীনপন্থী হিসেবে। সাবেক পররাষ্ট্র সচিব কানওয়াল সিবাল বলেন, ভারতের বিরুদ্ধে পাকিস্তান-চীনের তৎপরতায় নেপালের জড়িয়ে যাওয়ার ভয় রয়েছে। জয়েশ-ই-মোহাম্মদ এবং লস্করে তৈয়বার মতো সংগঠনগুলোকে পৃষ্ঠপোষকতার মাধ্যমে পাকিস্তান ভারতবিরোধী কর্মকাণ্ডে সমর্থন জুগিয়ে যাচ্ছে বলে মনে করা হয়। আর চীনকে দেখা হয় পাকিস্তানর সমর্থনদাতা হিসেবে, যেমন জয়শে মোহাম্মদের প্রধানকে জাতিসংঘের সন্ত্রাসী তালিকায় অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে চীনের বিরোধিতা।

পাকিস্তান ও চীনের সাথে নেপালের হাত মেলানো শুধু ভারতের স্বার্থেরই বিরোধী নয়, বরং ভারতের জন্য তা উদ্বেগেরও বটে। নেপাল এরইমধ্যে চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোড প্রকল্পে যোগ দিয়েছে। জানুয়ারিতে, চীন নেপালে ভারতের একচেটিয়া ইন্টারনেট সার্ভিসের ইতি টেনেছে। আর নেপাল সীমান্ত পর্যন্ত চীনের রেলপথ নির্মাণের পরিকল্পনার কথাও শোনা যাচ্ছে। এটা হলে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে স্থলবেষ্টিত নেপালের ভারতের উপর একমুখী নির্ভরতার অবসান ঘটবে।

আব্বাসীর সফরে ওলি দেখাতে পারবেন যে তার আঞ্চলিক বন্ধু রয়েছে
নেপালের নির্বাচনে বাম জোটের জয়ের পর যখন এটা প্রায় স্পষ্ট হয়ে গেছে যে ওলি নেপালের ক্ষমতায় আসছেন, তখন ওলিকে অনেকগুলো প্রস্তাব দিয়েছে ভারত। গত মাসে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ নেপাল সফর করেন।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বেশ কয়েকবার ওলির সাথে ফোনে কথা বলেছেন। কিন্তু সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টের সাথে সম্প্রতি এক সাক্ষাতকারে ওলি এটা স্পষ্ট করে বলেছেন যে, চীনের সাথে সম্পর্ক বাড়ানোর মধ্য দিয়ে তিনি নেপালের সুযোগের দুয়ার আরও উন্মুক্ত করতে চান, যাতে দিল্লীর সাথে দেন দরবারের ক্ষেত্রে আরও সুবিধাজনক অবস্থানে থাকতে পারে কাঠমান্ডু।

তিনি বলেন, ভারতের সাথে আমাদের ভালো যোগাযোগ এবং খোলা সীমান্ত রয়েছে। এগুলো সবই ঠিক আছে এবং আমরা যোগাযোগ আরও বাড়াবো, কিন্তু আমরা এটা ভুলে যেতে পারি না যে, আমাদের আরেকটি প্রতিবেশী রয়েছে। সিবাল মনে করেন, আব্বাসীর সফর ওলির অবস্থানকে আরও সংহত করবে এবং ভারতের দিক থেকে কোন ধরনের চাপ আসলে নেপালি প্রধানমন্ত্রী দেখাতে পারবেন যে, আর আরও আঞ্চলিক বন্ধু রয়েছে।

ওলি মনে করেন, ২০১৬ সালের আগস্টে তার সরকার পতনের পেছনে ভারতের ভূমিকা রয়েছে। ২০১৫ সালের নভেম্বরে নেপালের সংবিধান গৃহীত হওয়ার পর এটা নিয়ে নয়াদিল্লীর সাথে কাঠমান্ডুর বিরোধের শুরু হয়। নেপালের প্রায় ৫১% মানুষ – যাদের মধ্যে রয়েছে মাধেসি, থারুস এবং জাঞ্জাতিস গোষ্ঠী– এদের বিরুদ্ধে সংবিধানে বৈষম্য রয়েছে বলে অভিযোগ তোলা হয়। নয়াদিল্লীর যুক্তি হলো, তাদের সাথে পাকিস্তান ও চীনের অস্থিতিশীল সীমান্ত রয়েছে, তাই তারা চায় না যে, নেপালের রাজনৈতিক অস্থিরতার কোন প্রভাব যাতে ভারতে না পড়ে।

পাকিস্তান সার্ক সম্মেলন অনুষ্ঠানের জন্য চাপ দেবে
পাকিস্তান তাদের দিক থেকে সার্ক সম্মেলন আয়োজনের ব্যাপারে নেপালের সমর্থন আশা করছে। ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সম্পর্ক এখন তেমন একটা সুবিধাজনক নয়। ২০১৩ সাল থেকে নিয়ে ভারতের সাথে পাকিস্তানের আনুষ্ঠানিক আলোচনা তেমন নেই বললেই চলে। ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে মোদি পাকিস্তানে সফরে গেলেও এর কোন ব্যাত্যয় ঘটেনি।

এক দশকেরও বেশি সময়ের মধ্যে প্রথম কোন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তিনি পাকিস্তান সফরে যান। নেপাল ও পাকিস্তানের সম্পর্কের দিকে ইঙ্গিত করে সিবাল বলেন, তাদের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক বলতে তেমন কিছুই নেই। তাই নেপালে বর্তমান সফরে পাকিস্তানে প্রধানমন্ত্রী ইসলামাবাদে সার্ক সম্মেলন আয়োজনের ব্যাপারে নেপালের প্রধানমন্ত্রী ওলির সমর্থন আশা করতে পারেন।

মন্তব্য

মতামত দিন

এশিয়া পাতার আরো খবর

মুসলিমবিরোধী পোস্ট: ফেসবুকে সাময়িক নিষেধাজ্ঞায় ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রীর ছেলে

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনজেরুজালেম: ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর বড় ছেলে ইয়ায়ের ফেসবুক পেজ সাময়িক নিষেধা . . . বিস্তারিত

‘গণতান্ত্রিক নির্বাচনে জিতলে আসাদের সঙ্গে কাজ করবে তুরস্ক’

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনআঙ্কারা: তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসওগ্লু তার ভাষায় বলেছেন, সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশা . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com