বেলুচিস্তানের বিদ্রোহীদের ব্যবহার করতে বেপরোয়া হচ্ছে ভারত!

১৯ মে,২০১৭

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
ঢাকা: পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বেলুচিস্তানের বিদ্রোহীদের ব্যবহারের ব্যাপারে ক্রমেই বেপরোয়া হওয়ার ইঙ্গিত দেয়া হচ্ছে ভারতের বিভিন্ন গণমাধ্যমে। এ ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার আগে গণমাধ্যমে যে প্রচারণা চালানোর কৌশল ভারতে সাধারণভাবে দেখা যায় তার পুনরাবৃত্তি এখন প্রত্যক্ষ করা যাচ্ছে।

প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত একটি ওয়েব পোর্টালে ভারতে প্রবাসি বেলুচ সরকার গঠনের জন্য সরাসরি দিল্লির প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে। অরুনাচলের ধর্মশালায় তিব্বতের প্রবাসি সরকার গঠনের কথাও উল্লেখ করা হয়েছে।

গত সোমবার বেইজিংয়ে সফলভাবে সমাপ্ত ওয়ান বেল্ট, ওয়ান রোড (ওবিওআর) শীর্ষ সম্মেলনের পর এই প্রচারণা বেশ খানিকটা বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

ভারতীয় ডিফেন্স নিউজে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বেইজিংয়ে ওবিওআর শীর্ষ সম্মেলনে থেকে ২৯টি দেশের সরকারপ্রধান ও কূটনীতিকরা দেশে ফেরার পর দু’টি প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। প্রথমত, শীর্ষ সম্মেলন বয়কটকারী ভারতের পরবর্তী পদক্ষেপ কী হবে? দ্বিতীয়ত, চীন থেকে শুরু হয়ে ইউরেশিয়ান অঞ্চলজুড়ে বিস্তৃত এলাকায় ভূ-রাজনৈতিক গতিশীলতা ওবিওআর কিভাবে বদলে দেবে?

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, ওবিওআর শীর্ষ সম্মেলন বয়কট করে ভারত ঠিক কাজটিই করেছে। এর প্রধান উপাদান চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোর (সিপিইসি) পুরোপুরি অবৈধ। চীনের উত্তরপশ্চিম এলাকা জিনজিয়াং যাওয়ার পথে এটি পাকিস্তান-নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর অতিক্রম করেছে। এলাকাটি কেবল পাকিস্তান দখলেই রাখেনি, সেই সাথে সেখানকার জনগণ কার্যত স্বৈরশাসনে বাস করছে।

বেলুচিস্তানের সিপিইসি অবকাঠামো ক্রমবর্ধমান সন্ত্রাসী হামলার প্রতি ইঙ্গিত দিয়ে বলা হয়েছে, পাকিস্তানে ‘আইএস’ এর উপস্থিতি এখন সুপ্রতিষ্ঠিত। গত ১২ মে বেলুচিস্তানে তারা ২৫ জনকে হত্যা করেছে। পাকিস্তান সিনেটের শীর্ষ নেতারা অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছেন। তাদের গাড়ি বহরে আত্মঘাতি হামলা হয়েছিল। ইরাক ও সিরিয়া থেকে বিতাড়িত হয়ে আইএস যোদ্ধারা পাকিস্তানের দিকে যাচ্ছে। তাদের অনেকে বেলুচিস্তানে হামলা জোরদার করবে। আর বেলুচিস্তানের গোয়াদর বন্দর থেকেই সিপিইসির যাত্রা শুরু।

লেখাটিতে এই হামলার ব্যাপারে যেভাবে উচ্ছসিত বর্ণনা দেয়া হয়েছে তাতে এসব অন্তর্ঘাতি হামলা চালানোর জন্য ‘আইএস’ এর নামে একটি চক্রকে পাকিস্তানে ঢুকিয়ে দেয়া হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ভারতীয় নৌ বাহিনীর কমান্ডার ও ‘র’-এর গুপ্তচর কূলভূষণ যাদবকে এ ধরনের কর্মকাণ্ডের সাথে যুক্ত থাকার দায়ে পাকিস্তানের সামরিক আদালত মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে।

প্রতিবেদনটিতে সেই কুলভূষণ যাদব এর প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলা হয়েছে, তাকে ইরান-বেলুচিস্তান সীমান্ত থেকে অপহরণ করা হয়েছিল। হেগের আন্তর্জাতিক আদালতের (আইসিজে) বিচারাধীন তার মামলাটি বেলুচিস্তানে নৃশংসতার প্রতি আন্তর্জাতিক মনোযোগ আকর্ষণ করবে।

ডিফেন্স নিউজের প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, ভারতের জন্য বেলুচিস্তান একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ধর্মশালাভিত্তিক তিব্বতি প্রবাসী সরকার (যা সেন্ট্রাল তিবেটিয়ান অ্যাডমিনিস্ট্রেশন নামে পরিচিত) যেভাবে ভারতে গঠিত হয়েছে, সেভাবেই নয়া দিল্লি ভারতে প্রবাসী বেলুচিস্তান সরকার প্রতিষ্ঠার অনুমতি দিচ্ছে।

গত শনিবার বেইজিংয়ে ওবিওআর শীর্ষ সম্মেলন শুরুর এক দিন আগে সিপিইসি লিঙ্ক রোডে কর্মরত ১০ পাকিস্তানি শ্রমিককে গুলি করে হত্যা করা হয়। বেলুচিস্তানের গোয়াদর বন্দর থেকে মাত্র ২০ কিলোমিটার দূরে এই ঘটনাটি ঘটে। বেলুচ লিবারেশন আর্মি এই হামলার দায়দায়িত্ব স্বীকার করেছে।

ইন্ডিয়ান ডিফেন্স নিউজে আরো বলা হয়েছে, সহিংসতা-জর্জরিত পাকিস্তানে বেলুচ বিদ্রোহ পরিস্থিতি আরো উত্তপ্ত করে তুলেছে। অনেক বছর ধরে বেলুচিস্তানকে সন্ত্রস্ত করে রাখা হয়েছে। এখন প্রতিরোধ দ্রুতগতিতে বাড়ছে। ‘বেলুচ মুক্তিযোদ্ধারা’ ক্রমবর্ধমান হারে পাকিস্তানি সৈন্যদের ওপর হামলা চালাচ্ছে। পাকিস্তানের বৃহত্তম প্রদেশ হলো বেলুচিস্তান। দেশটির ৪৪ ভাগ অংশ এই প্রদেশটি। তবে জনসংখ্যা মাত্র ৬ ভাগ। পাকিস্তানের বাকি অংশ ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা।

চীনের ওবিওআর প্রকল্পের ব্যাপারে বিষোদগার করে ডিফেন্স নিউজ বলেছে, চীন ৫০০ বিলিয়ন ডলারের বৈশ্বিক প্রকল্প হিসেবে ওবিওআর বিক্রি করছে। এই প্রকল্প এশিয়া, ইউরোপ ও আফ্রিকার মতো দেশগুলোকে বদলে দেবে। ভারতের প্রতিবেশী দেশগুলোতে চীন বিপুল অবকাঠামো বিনিয়োগ করার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে। পাকিস্তান-নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে ভারতীয় সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘনের বিষয়টি পুরোপুরি জেনেই ওবিওআর প্রকল্পে যোগ দিতে ভারতকে চাপ দিচ্ছে চীন।

পাকিস্তানের জন্য ৫৭ বিলিয়ন ডলারের সিপিইসি প্রকল্পটি লাইফলাইন বিবেচিত হচ্ছে। বেইজিংয়ের ওবিওআর শীর্ষ সম্মেলন থেকে ইসলামাবাদ ফিরে শরিফ আশা করছেন, ওবিওআর ও সিপিইসি পাকিস্তানের অর্থনৈতিক জটিলতা থেকে মুক্তি দেবে।

ডিফেন্স নিউজে বলা হয়েছে, ভারতের কোনোভাবেই আর সংযত থাকা উচিত নয়। ‘জিহাদি সন্ত্রাসীরা’ কাশ্মীর উপত্যকায় হামলা বাড়াচ্ছে। এখন অবশ্যই পাকিস্তানের ওপর চাপ বাড়াতে হবে। আর তা শুরু করতে হবে বেলুচিস্তান দিয়ে।

বেলুচিস্তান ও তিব্বত নিয়ে এই প্রচারাভিযানের পাশাপাশি ভারতীয় গণমাধ্যমে এক ধরনের যুদ্ধ উত্তেজনা তৈরির চেষ্টাও লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সম্প্রতি ভারতীয় বিমানবাহিনীকে চীনের সাথে ১৫ দিন আর পাকিস্তানের সাথে ১০ দিন যুদ্ধ করার প্রস্তুতি নেয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে খবর প্রচার করা হয়েছে। ইসরাইলসহ বিভিন্ন দেশের সাথে প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম তৈরি ও আমদানির চুক্তিগুলো বার বার ফলাও করে প্রচার করা হচ্ছে। ফ্রান্স থেকে যে জঙ্গি বিমান ২০১৯ সাল থেকে হাতে পাওয়ার কথা সেটি এখনই কোথায় কোথায় মোতায়েন করা হবে তার বিবরণ প্রকাশ করা হচ্ছে।

এসব প্রত্যক্ষ করে চীনের প্রভাবশালী সরকারি পত্রিকা গ্লোবাল টাইমসের সম্পাদকীয়তে মন্তব্য করা হয়েছে, ‘ভারতের কিছু লোক আছেন যারা জনমতকে প্রভাবিত করার ক্ষমতা নিয়ে রাষ্ট্রীয় স্বার্থের অগভীর বিশ্লেষণ করেন এবং ভূরাজনৈতিক বিষয়ে মান্ধাতা আমলের ধারণা পোষণ করে রাখেন। চীনের ব্যাপারে তাদের আবদ্ধ ধরনের দৃষ্টিভঙ্গি সমগ্র ভারতীয় সমাজে ছড়িয়ে পড়ছে, যেটি বড় ধরনের ধ্বংসাত্মক শক্তি হয়ে উঠতে পারে। ভারত ও চীনের এই বিষয়ে সচেতন হওয়া উচিত।’

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর

মন্তব্য

মতামত দিন

এশিয়া পাতার আরো খবর

বহু বিতর্কের নায়ক রাহুল গান্ধী ধরছেন কংগ্রেসের হাল

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএননয়া দিল্লি: ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে রাহুল গান্ধী যে আগামী . . . বিস্তারিত

প্রাক্তন মন্ত্রী ও কংগ্রেস নেতা প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সি প্রয়াত

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএননয়া দিল্লি: ভারতের প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এবং বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সি . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান, গোলাম রসুল প্লাজা (তৃতীয় তলা), ৪০৪ দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০।
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com