উ.কোরিয়ার পারমাণবিক বোমা নিয়ে আতঙ্কে দ.কোরিয়া

১১ জানুয়ারি,২০১৭

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

আরটিএনএন

শিউল: উত্তর কোরিয়ার হাতে বর্তমানে ১০টি পারমাণবিক বোমা তৈরির মতো পর্যাপ্ত প্লুটোনিয়াম রয়েছে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে দক্ষিণ কোরিয়া।


পিয়ংইয়ং আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র তৈরির কাছাকাছি আছে- উ. কোরীয় নেতা কিম জং-উনের এমন বক্তব্যের এক সপ্তাহ পর বুধবার দক্ষিণ কোরিয়া এ তথ্য জানাল।


উ. কোরিয়া ২০১৭ সালে পারমাণবিক কর্মসূচি জোরদার করতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। দেশটি যুক্তরাষ্ট্রের ভূখণ্ডে আঘাত হানতে সক্ষম অস্ত্র তৈরি করতে চায়। পিয়ংইয়ং ইতোমধ্যে পাঁচবার পারমাণবিক পরীক্ষা ও অসংখ্যবার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে।


সিউলের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, ২০১৬ সালের শেষ নাগাদ উ. কোরিয়ার হাতে প্রায় ৫০ কিলোগ্রাম অস্ত্র নির্মাণ পর্যায়ের প্লুটোনিয়াম ছিল যা দিয়ে ১০টি পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি করা সম্ভব। আট বছর আগে দেশটির প্লুটোনিয়ামের পরিমাণ ছিল ৪০ কিলোগ্রাম।


এছাড়া উত্তর কোরিয়ার উচ্চসমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম অস্ত্র তৈরির সক্ষমতা আছে। তবে তাদের কাছে কি পরিমাণ ইউরেনিয়াম মজুদ আছে তা জানানো হয়নি।


যুক্তরাষ্ট্রের থিংকট্যাংক ইনস্টিটিউট ফর সাইন্স অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল সিকিউরিটি গত জুনে জানায়, উ. কোরিয়ার হাতে ২১টির বেশি পারমাণবিক অস্ত্র আছে। ২০১৪ সালে দেশটির হাতে ১০-১৬টি পারমাণবিক অস্ত্র ছিল।


সিউলের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, ইয়ংবিয়নে পারমাণবিক চুল্লি পুনরায় সচল করার পর উ. কোরিয়ার প্লুটোনিয়াম সরবরাহ বেড়েছে।


সূত্র: ইয়ানহ্যাপ

মন্তব্য

মতামত দিন

এশিয়া পাতার আরো খবর

৮ মুজাহিদীনের মৃত্যুতে কাশ্মীর ফের অশান্ত, দিনভর নিরাপত্তাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষ

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনশ্রীনগর: নিরাপত্তাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে বুরহান ওয়ানির মৃত্যুর পর থেকে উত্তপ্ত হয়ে ওঠা কাশ্মীরে . . . বিস্তারিত

দিনে পিএইচডির পড়াশোনা রাতে স্বামীর সঙ্গে দোকানদারি

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএননয়া দিল্লি: মনের ভিতরে এক অদম্য জেদ। যে করেই হোক শেষ করতে হবে পিএইচডি-র পড়াশোনা। আর তাই সকালে . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান, গোলাম রসুল প্লাজা (তৃতীয় তলা), ৪০৪ দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০।
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com