পিকেকে সন্ত্রাসীদের নির্মূলে ইরাকে সামরিক অভিযান চালিয়েছে তুরস্ক: এরদোগান

১২ জুন,২০১৮

পিকেকে সন্ত্রাসীদের নির্মূলে ইরাকে সামরিক অভিযান চালিয়েছে তুরস্ক: এরদোগান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
আঙ্কারা: সোমবার ইরাকের উত্তরাঞ্চলে তুরস্ক সামরিক অভিযান চালিয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান।

তিনি দেশটির জাতীয়তাবাদী মনোভাবকে বজায় রাখার ব্যাপারে প্রতিজ্ঞা করেন।

তুর্কি কর্মকর্তারা কয়েক সপ্তাহ ধরে ইঙ্গিত দিচ্ছেলেন যে, আঙ্কারা কান্দিলে পাহাড়ি অঞ্চলে অভিযান পরিচালনা করতে পারে। এলাকাটি কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টির (পিকেকে) একটি শক্ত ঘাঁটি।

পিকেকে গত ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে তুর্কি রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে লড়াই করছে।

তুরস্ক সম্প্রতি সপ্তাহগুলোতে এ অঞ্চলে তার সেনা উপস্থিতি বৃদ্ধির পাশাপাশি বিমান হামলা শুরু করেছে।

২৪ জুনের আসন্ন সংসদ ও প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে একটি নির্বাচনী সমাবেশে এরদোগান বলেন, ‘আমরা আমাদের অপারেশন শুরু করেছি। আমাদের ২০ টি যুদ্ধ বিমানের সাহায্যে আমরা ১৪টি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট ধ্বংস করেছি।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের সৈন্যরা কান্দিলে গিয়েছিল, তারা আঘাত করেছে এবং সেখান থেকে তারা ফিরে এসেছে কিন্তু অভিযান এখনো শেষ হয়নি।’

যাইহোক, সামরিক বিশ্লেষকরা বলছেন, বৃহৎ সংখ্যক সেনা বাহিনীর কোনো চিহ্ন সেখানে নেই, যা কঠিন পর্বতমালায় একটি কার্যকর আক্রমণের জন্য প্রয়োজন হবে।

এদিকে, প্রধানমন্ত্রী বেনালি ইলদিরিম জানিয়েছেন, স্বায়ত্তশাসিত ইরাকি কুর্দিস্তানে কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকার ৩০ কিলোমিটারের মধ্যে তুর্কি বাহিনী অবস্থান নিয়েছে।

তুরস্কের সীমানা থেকে কান্দিল অঞ্চল প্রায় ৯৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। সূত্র: দ্য ফিনান্সিয়াল টাইমস

অস্ট্রিয়া বিশ্বকে ক্রস-ক্রিসেন্টের যুদ্ধের দিকে ঠেলে দিচ্ছে: এরদোগান
অস্ট্রিয়ার ৭টি মসজিদ বন্ধ এবং তুরস্কের অর্থায়নে ইমামদের বহিষ্কারের পদক্ষেপের কঠোর সমালোচনা করেছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান। এই পদক্ষেপ সম্পূর্ণ ইসলাম-বিরোধী এবং তা ধর্ম যুদ্ধের দিকে বিশ্বকে ধাবিত করতে পারে বলে এরদোগান সতর্ক করে দেন।

শনিবার ইস্তাম্বুলে একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রদানকালে এরদোগান এই সতর্ক বার্তা দেন।

এরদোগান বলেন, ‘এই পদক্ষেপগুলি গৃহীত হয়েছে স্বয়ং অস্ট্রীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক। আমার ভয় হচ্ছে- তার এই পদক্ষেপ ক্রস ও ক্রিসেন্টের মধ্যে যুদ্ধের জন্য বিশ্বকে পরিচালিত করতে পারে।’

উল্লেখ্য, ক্রিসেন্ট প্রতীকটি ইসলামের সঙ্গে সংযুক্ত। অন্যদিকে, ক্রস হচ্ছে খ্রিস্টীয় প্রতীক।

সম্প্রতি অস্ট্রিয়ার সরকার ঘোষণা দিয়েছে, ‘রাজনৈতিক ইসলাম’ এর বিরুদ্ধে অভিযানের অংশ হিসেবে দেশটির সাতটি মসজিদ বন্ধ করা হবে। একই সঙ্গে তুর্কি অর্থায়নে পরিচালিত ৬০ জন ইমাম ও তাদের পরিবারকে বহিষ্কার করা হতে পারে বলেও ঘোষণা দেয়।

মন্তব্য

মতামত দিন

ইউরোপ পাতার আরো খবর

এরদোগানের নির্বাচনী সাফল্য ব্যাপক কাভারেজ পেয়েছে ব্রিটিশ গণমাধ্যমে

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনআঙ্কারা: তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান এবং তার জাস্টিজ এন্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টির নির . . . বিস্তারিত

এরদোগানকে অমুসলিম সম্প্রদায়ের ধর্মীয় নেতাদের অভিনন্দন

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনআঙ্কারা: প্রেসিডেন্সি ও পার্লামেন্ট নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগানের সাফল্যের জন্ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com