৭০ আইএসকে গ্রেপ্তার করেছে তুরস্ক পুলিশ

১৫ এপ্রিল,২০১৮

৭০ আইএসকে গ্রেপ্তার করেছে তুরস্ক পুলিশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
আঙ্কারা: পৃথক অভিযানে ৭০ জন আইএস জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করেছে তুরস্ক পুলিশ। তুরস্কের মধ্য অ্যানাটোলিয়ায় এস্কিসেহর প্রদেশের ৯টি জায়গায় আইএস’র ঘাঁটিগুলিতে অভিযান চালায় তুরস্ক পুলিশ। এ সময় আইএস’র শীর্ষ নেতাসহ ১০ জন বিদেশি জঙ্গি গ্রেপ্তার হয়।

জঙ্গিরা সবাই ইরাকের বলে জানিয়েছে পুলিশ। ইস্তানবুলে পৃথক অভিযানে আরও ৫১ জন আইএস জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পশ্চিমে ইজমির প্রদেশ থেকেও তল্লাশি চালিয়ে ৮ জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করা হয়। পূর্বাংশে মালাত্যায় প্রদেশে এক আইএসপন্থী নেতাকে আটক করে পুলিশ।

সেই জঙ্গিরা সবাই বিদেশি বলেই জানানো হয়েছে তুরস্ক পুলিশেরর তরফ থেকে। ইস্তানবুলের আরও ৬টি জায়গায় তল্লাশি চালিয়ে প্রচুর অস্ত্রশস্ত্র, গোলাবারুদ, নথিপত্র, ল্যাপটপ, কম্পিউটার, হার্ড ডিস্কও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

জঙ্গিদের জেরা করে আরও তথ্য জানার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে তুরস্ক পুলিশের শীর্ষ কর্মকর্তারা। পুলিশ জানিয়েছে, গ্রেপ্তারকৃতরা সবাই তুরস্কে বড়সড় হামলা চালানোর ছক কষছিল।

‘শিরশ্ছেদ ভুল ছিল: ২ আইএসের স্বীকারোক্তি’

ইসলামিক স্টেট জঙ্গি গ্রুপের অন্যতম কুখ্যাত সেল - যার নাম ছিল ‘বিটলস’ এবং যারা বিশেষ করে ক্যামেরার সামনে বিদেশী জিম্মিদের শিরশ্ছেদ করতো - তার দু’জন কথিত সদস্য ধরা পড়ার পর স্বীকার করেছে যে ‘বিদেশী জিম্মিদের হত্যা করাটা ভুল হয়েছিল।’

আলেক্সান্ডা কোতি এবং এল-শফি এলশেখ এবছর জানুয়ারি মাসে সিরিয়ায় ধরা পড়ে, এবং তারা এখন সিরিয়ায় কুর্দিদের একটি কারাগারে আছে। খবর-বিবিসি

তারা দু’জনেই পশ্চিম লন্ডনের বাসিন্দা ছিল। তাদের ব্রিটিশ টানের ইংরেজির জন্য ইসলামিক স্টেটের মধ্যে তাদের নাম দেয়া হয়েছিল বিটলস - ১৯৬০এর দশকের বিশ্ববিখ্যাত পপ গ্রুপের নামে।

এলশেখ এবং কোতি সম্প্রতি উত্তর সিরিয়া থেকে এসোসিয়েটেড প্রেসকে এক সাক্ষাৎকার দেয়। এতে সে বলেছে, যুক্তরাজ্য সরকার ‘অবৈধভাবে’ তার ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিল করেছে এবং তার ফলে তাকে আমেরিকার হাতে তুলে দিয়ে অন্য দেশের কারাগারে নিয়ে নির্যাতন করা হতে পারে - এমন ঝুঁকি তৈরি হয়েছে।

‘আমাদেরকে বিদেশে নিয়ে যাওয়া হতে পারে, সেখানে যা খুশি তাই করা হতে পারে, কেউ আপনাকে রক্ষা করার নেই, কোন নাগরিকত্বও নেই। আমরা যদি একদিন হঠাৎ অদৃশ্য হয়ে যাই - তাহলে আমার মা কাকে গিয়ে বলবে যে ‘আমার ছেলে কোথায়?’

মন্তব্য

মতামত দিন

ইউরোপ পাতার আরো খবর

মেক্সিকোর সড়কে নিহত ১৩

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনমেক্সিকো: মেক্সিকো সিটির বাইরে ব্যস্ত মহাসড়কে একটি গণপরিবহন ভ্যানের সাথে ট্রাকের সংঘর্ষে ১৩ জন . . . বিস্তারিত

যুক্তরাজ্যে গত বছর রেকর্ড সংখ্যক মুসলিম বিদ্বেষী হামলার ঘটনা ঘটেছে

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনলন্ডন: যুক্তরাজ্যে গত বছর রেকর্ড সংখ্যক মুসলিম বিরোধী হামলা এবং নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। বেশিরভাগ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com