সিরিয়ার রাসায়নিক অস্ত্রের চূড়ান্ত অবসানে জাতিসংঘে ফ্রান্সের নতুন প্রস্তাব

১৫ এপ্রিল,২০১৮

সিরিয়ার রাসায়নিক অস্ত্রের চূড়ান্ত অবসানে জাতিসংঘে ফ্রান্সের নতুন প্রস্তাব

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
নিউইয়র্ক: সিরিয়ার রাসায়নিক অস্ত্র কর্মসূচির একটি ‘স্থায়ী ও চূড়ান্ত’ পরিসমাপ্তির জন্য যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স দেশটিতে সমন্বিতভাবে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা শুরু করেছে। যদিও সিরিয়ার লক্ষ্যবস্তুতে মার্কিন নেতৃত্বাধীন এই হামলার কার্যকারিতা ও বৈধতা নিয়ে রাশিয়া ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে।

এই উত্তেজনার মধ্যেই জাতিসংঘের কূটনীতিকরা একটি নতুন প্রস্তাবনার কথা জানিয়েছেন। সিএনএনকে জাতিসংঘের কূটনীতিকরা জানান, নতুন এই প্রস্তাবনার নেতৃত্বে রয়েছে ফ্রান্স এবং যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য কর্তৃক তা সমর্থিত হয়েছে।

এতে সিরিয়ার অভ্যন্তরে সন্দেহভাজন রাসায়নিক অস্ত্র হামলার বিষয়ে একটি স্বাধীন তদন্তের আহ্বান জানানো হয়েছে। কেবল ধারণার বশবর্তী হয়ে শুক্রবার পশ্চিমা মিত্র দেশগুলো সিরিয়ায় ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায়।

জাতিসংঘে ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত ফ্রাঙ্কোয়েস ডেলাত্রে বলেন, সিরিয়ার রাসায়নিক অস্ত্রের কার্যক্রমকে একটি ‘যাচাইযোগ্য এবং চূড়ান্ত’ পদ্ধতিতে ধ্বংস করা উচিত।

জাতিসংঘের সহায়তায় কূটনৈতিক সমাধানের জন্য শনিবার মস্কোর পক্ষ থেকে নিরাপত্তা পরিষদের একটি জরুরি বৈঠকের আহ্বান জানানো হয়। যুক্তরাষ্ট্র-ব্রিটিশ-ফরাসি এই আক্রমনকে আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন বলে এর নিন্দা করেন জাতিসংঘে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া।

তিনি বলেন, সিরিয়ায় রাসায়নিক অস্ত্র কর্মসূচির সঙ্গে জড়িত সুযোগ-সুবিধায় শুক্রবারের ক্ষেপণাস্ত্র হামলা বিভক্ত মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলের ‘রাজনৈতিক নিষ্পত্তির জন্য একটি আঘাত’।

হামলায় রাশিয়ার নেতৃত্বাধীন জোটের প্রতিক্রিয়া যদিও কথার লড়াইয়ে সীমাবদ্ধ আছে। তারপরেও সম্ভাব্য একটি নতুন স্নায়ু যুদ্ধের আশঙ্কা করছেন জাতিসংঘ কূটনীতিকরা।

জাতিসংঘের মহাসচিব এন্টোনিও গুতেরেস নিরাপত্তা পরিষদের সব সদস্যকে সংযম দেখানোর জন্য আহ্বান জানিয়েছেন। জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে জানান, ভবিষ্যতে সিরিয়ার যে কোনো রাসায়নিক হামলার প্রতিক্রিয়া জানাতে ওয়াশিংটন প্রস্তুত রয়েছে।

শনিবার জাতিসংঘের বাইরে হামলার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও, যুক্তরাষ্ট্র, মেক্সিকো, গ্রীস এবং যুক্তরাজ্যের প্রধান শহরগুলো সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশেও বিক্ষোভ হয়।

সিরিয়ার বিরুদ্ধে পশ্চিমা শক্তিগুলোর সামরিক কর্মকাণ্ডের জন্য বিরোধিতা করে অনেকেই প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের সমর্থনে বিক্ষোভে অংশ নেন।

রাসায়নিক অস্ত্রের নতুন রেজল্যুশন
রাসায়নিক অস্ত্রের নিবারণ (ওপিসিডব্লিউ) বিষয়ে জাতিসংঘের তদন্তকারীরা শনিবার সিরিয়ায় পৌঁছেছেন। সিরিয়ার শহর ডুমাতে রাসায়নিক হামলার বিষয়ে তারা ইতোমধ্যে তদন্ত শুরু করেছেন।

তদন্তকারী দলটি শনিবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যে ৭টায় দামেস্কাসে সিরীয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠক করেন বলে জাতিসংঘে সিরিয়ার রাষ্ট্রদূত বাশার জাফরি জানিয়েছেন।

শনিবার সিনিয়র মার্কিন কর্মকর্তারা জানান, হামলায় ক্লোরিন এবং সারিন গ্যাস ব্যবহৃত হয়েছে এব্যাপারে তারা নিশ্চিত। যদিও সিরিয়া এবং রাশিয়ান সরকার রাসায়নিক হামলায় দামেস্কাসের জড়িত থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

নিরাপত্তা পরিষদে উপস্থাপিত ফরাসি নেতৃত্বাধীন নতুন প্রস্তাবটি ওপিসিডব্লিউ’র রির্পোট থেকে নিরাপত্তা পরিষদের তদন্তকারীরা তদন্ত করবে।

নিরাপত্তা পরিষদের একজন কূটনীতিক সিএনএনকে বলেন, খসড়া প্রস্তাবনায় ভোট আয়োজনের জন্য তাদের কোনো তাড়াহুড়ো নেই। তবে, সিরিয়াস আলোচনার জন্য একটি প্রচেষ্টা করা হবে বলে তিনি জানান।

মন্তব্য

মতামত দিন

ইউরোপ পাতার আরো খবর

ভারতের ‘দাম্ভিক’ প্রতিক্রিয়ায় আমি হতাশ: ইমরান খান

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনইসলামাবাদ:পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ে পাকিস্তানের সঙ্গে বৈঠক বাতিল করার সিদ্ধান্তে ভারতের কঠোর সম . . . বিস্তারিত

আঙ্কারায় মার্কিন ব্যবসায়িকদের সাথে এরদোগানের বৈঠক সম্পর্কে যা জানা যাচ্ছে

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনআঙ্কারা: যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন কোম্পানির প্রতিনিধিদের নিয়ে বুধবার তুরস্কে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com