জেরুজালেম মুসলিমদের জন্য একটি ‘রেড লাইন’: এরদোগান

০৬ ডিসেম্বর,২০১৭

জেরুজালেম মুসলিমদের জন্য একটি ‘রেড লাইন’: এরদোগান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
আঙ্কারা: জেরুজালেমকে ইরাইলের রাজধানী ঘোষণা করার জন্য ডোনাল্ড ট্রাম্পের পরিকল্পনার বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান। ট্রাম্পের এই ধরণের পদক্ষেপ মুসলিমদের জন্য একটি ‘রেড লাইন’ বলে তিনি সর্তক করে দেন।

ট্রাম্পের এই পদক্ষেপের প্রতিক্রিয়ায় মঙ্গলবার পার্লামেন্টে দেয়া বক্তৃতায় এরদোগান বলেন, এমনটা করলে এ বিষয় নিয়ে আমরা ইসরাইলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক পর্যন্ত ছিন্ন করতে পারি।

তিনি ট্রাম্পকে সতর্ক করে বলেন, জেরুজালেমকে স্বীকৃতি দিতে ট্রাম্পের যে কোনো পদক্ষেপের বিরোধিতা করার জন্য আমি ইসলামি সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) দেশগুলোর একটি শীর্ষ সম্মেলন আহ্বান করব।

মার্কিন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ট্রাম্প জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিতে যাচ্ছেন।

এদিকে জেরুজালেমকে ইহুদি রাষ্ট্র ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প একতরফাভাবে ঘোষণা দিতে পারেন—এমন সম্ভাবনায় ‘উদ্বেগ’ প্রকাশ করেছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাখোঁ। মাখোঁ বলেন, তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্টকে তাঁর এ উদ্বেগের কথা জানিয়েছেন।

গত রবিবার ওয়াশিংটনের ব্রুকিংস ইনস্টিটিউট আয়োজিত এক ফোরামে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জামাতা ও মধ্যপ্রাচ্যের শান্তিপ্রক্রিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের দূত জ্যারেড কুশনার বলেন, ট্রাম্প জেরুজালেমের মর্যাদা প্রশ্নে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে আসতে পারেননি।

জেরুজালেমকে রাজধানী দাবি করে আসছে ইসরাইল। তবে পূর্ব জেরুজালেমকে ভবিষ্যত ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রের রাজধানী হিসেবে দেখতে চায় দেশটির জনগণ।

ইহুদি-খ্রিস্টান ও মুসলিম; তিন সম্প্রদায়ের মানুষের জন্য পবিত্র ধর্মীয় স্থান জেরুজালেম। তেল আবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণে ৪ ডিসেম্বর সময়সীমা পার হয়ে গেছে।

সোমবার দূতাবাস সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা না দেওয়ায় দেশটির আইন অনুযায়ী আরও ছয় মাসের মধ্যে দূতাবাস সরছে না। দূতাবাস সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত আপাতত স্থগিত করলেও আশঙ্কা রয়েছে জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা করতে পারেন ট্রাম্প।

চলমান উত্তেজনার মধ্যেই ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসকে ফোন করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ও জর্ডানের বাদশা আব্দুল্লাহ’র সঙ্গেও কথা বলেছেন অথবা বলবেন ট্রাম্প।

এদিকে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গেও কথা হয়েছে আব্বাসের। ইসরাইল ও ফিলিস্তিনের মধ্যেকার শান্তি আলোচনা পুনরায় শুরুর ব্যাপারে মস্কোর সমর্থন রয়েছে বলে জানান আব্বাস।

এছাড়া তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেব এরদোয়ান, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রো, জর্ডানের রাজা আবদুল্লাহ, মরক্কোর রাজা ষষ্ঠ মোহাম্মদসহ বিভিন্ন দেশের নেতাদের সঙ্গে কথা বলেছেন ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট।

খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের সর্বোচ্চ ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিসের সঙ্গেও তিনি এ ইস্যুতে কথা বলেছেন। এসব আলোচনায় তিনি জেরুজালেম ইস্যুতে পাশে থাকার এবং কূটনৈতিকভাবে ফিলিস্তিনকে সমর্থন দেওয়ার জন্য দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানান।

সূত্র: আলজাজিরা

মন্তব্য

মতামত দিন

ইউরোপ পাতার আরো খবর

বিশ্বের নিপীড়িত মুসলিমদের নেতা এরদোগান

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনআঙ্কারা: জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের স্বীকৃতিতে ত . . . বিস্তারিত

সু চি’র ‘ফ্রিডম অব ডাবলিন সিটি’ খেতাব প্রত্যাহার

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনডাবলিন: রাখাইনের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর মায়ানমারের সেনাবাহিনী ও বৌদ্ধ জঙ্গিদের নির্মম . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com