ব্রিটেনের প্রতি সমর্থন জানিয়ে দুই রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করল অস্ট্রেলিয়া

২৭ মার্চ,২০১৮

ব্রিটেনের প্রতি সমর্থন জানিয়ে দুই রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করল অস্ট্রেলিয়া

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
সিডনি: তিন সপ্তাহ আগে ব্রিটেনে একজন সাবেক রুশ ডাবল এজেন্ট সেরগেই স্ক্রিপাল এবং তার মেয়ের ওপর নার্ভ এজেন্ট দিয়ে আক্রমণের ঘটনায় এবার অস্ট্রেলিয়া থেকে দুই রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ ২২ দেশ থেকে ১৩৯ জন রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কারের পর অস্ট্রেলিয়া এই পদক্ষেপ নিল। খবর দ্য গার্ডিয়ানের।

ব্রিটেনের প্রতি সমর্থন জানিয়ে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী মঙ্গলবার এক যৌথ বিবৃতিতে এ কথা জানিয়েছেন।

এর আগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ঘোষণা করে যে, তারা ওয়াশিংটন ও নিউইয়র্ক থেকে ৬০ জন রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করছে। এছাড়া, ইউরোপীয় ইউনিয়নের ১৪টি দেশ রুশ কূটনীতিককে বের করে দেওয়ার কথা জানিয়েছে। জার্মানি, ফ্রান্স এবং পোল্যান্ড চারজন করে রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করেছে।

ইউক্রেন জানিয়েছে ব্রিটেনের প্রতি সমর্থন জানাতে তারা ১৩ জন রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করেছে। এ পর্যন্ত যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলো এবং ইউক্রেনসহ সবমিলে ১৩৯ জন রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করেছে। শুধু ইউরোপের ১৪টি দেশ থেকেই সোমবার রাশিয়ার ৪৩ জন কূটনীতিককে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিভিন্ন সংবাদ সংস্থা।

এর তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে রাশিয়া। রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাকারোভা ইউরোপীয় ইউনিয়নের তীব্র নিন্দা করে বলেছেন- ‘ঘটনার বিকৃত ব্যাখ্যার ওপর ভর করে তারা ব্রিটেনকে এভাবে সমর্থন করছে।’

সর্বশেষ দ্য গার্ডিয়ানের খবরে বলা হয়, এর প্রতিক্রিয়া মস্কো কয়েক ডজন পশ্চিমা কূটনীতিক বহিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছে। এছাড়াও পশ্চিমাদের সমুচিত জবাব দেয়ারও প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছে রাশিয়ার পররাষ্ট্র দপ্তর।

তিন সপ্তাহ আগে ব্রিটেনে একজন সাবেক রুশ ডাবল এজেন্ট সেরগেই স্ক্রিপাল এবং তার মেয়ের ওপর নার্ভ এজেন্ট দিয়ে যে আক্রমণ হয়- তার প্রতিক্রিয়াতেই পশ্চিমা দেশগুলোর পক্ষ থেকে সমন্বিতভাবে এসব ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

যে ৬৪ জন রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করা হচ্ছে, তাদের ৪৮ জন রুশ দূতাবাসে কাজ করেন। বাকিরা নিউইয়র্কে জাতিসংঘে রুশ দূতাবাসে কাজ করেন।

রাশিয়া সবসময় ব্রিটেনে ঐ হত্যা চেষ্টার কথা অস্বীকার করেছে।

কিন্তু আমেরিকাসহ পশ্চিমা মিত্ররা ব্রিটেনের অভিযোগকেই সত্য হিসাবে গ্রহণ করেছে বলে মনে হচ্ছে।

মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের ঘোষণায় বলা হয়েছে, ‘৪ মার্চ স্যালসবেরিতে রাশিয়া মিলিটারি গ্রেড নার্ভ এজেন্ট দিয়ে একজন ব্রিটিশ নাগরিক এবং তার কন্যাকে হত্যার চেষ্টা করে।’

‘আমাদের একটি মিত্র দেশ ব্রিটেনে এই হামলা সেখানকার বহু নিরপরাধ মানুষের জীবন হুমকিতে ফেলে দেয়...’

বিবৃতিতে বলা হয় - ঐ হামলা ছিল রাসায়নিক অস্ত্র বিরোধী চুক্তি ভঙ্গের একটি নিদর্শন।

মিত্র দেশ ব্রিটেনের প্রতি সমর্থন জানিয়ে রুশ কূটনীতিকদের বহিষ্কারের বিষয়ে সোমবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আদেশ দেন বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

কূটনীতিকদের বহিষ্কারের পাশাপাশি সিয়াটলে অবস্থিত রুশ কনস্যুলেট বন্ধেরও নির্দেশ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বহিষ্কৃত ৬০ জন কূটনীতিকের মধ্যে ৪৮ জন রাশিয়া দূতাবাস এবং বাকি ১২জন নিউইয়র্কে জাতিসংঘে কর্মরত আছেন। তাদের সাতদিনের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ছেড়ে যেতে বলা হয়েছে।

এক বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, ৪ মার্চ রাশিয়া সামরিকবাহিনীর ব্যবহৃত বিষাক্ত গ্যাস ব্যবহার করে এক ব্রিটিশ নাগরিক ও তার মেয়েকে হত্যার চেষ্টা করেছে। আমাদের মিত্রদেশ যুক্তরাজ্যে এই হামলা অংসখ্য নিরাপরাধ মানুষের জীবনকে ঝুঁকিতে ফেলেছে এবং হামলায় এক পুলিশ কর্মকর্তাসহ তিনজন গুরুতর আহত হয়েছেন।

বিবৃতিতে এই হামলাকে রাসায়নিক অস্ত্র কনভেনশন ও আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন বলে উল্লেখ করেছে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এরই মধ্যে জার্মানি ও ফ্রান্স চারজন করে রুশ রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছে। আরও কয়েকটি ইউরোপীয় দেশও এমন পদক্ষেপ নিতে পারে। এসব ইউরোপীয় দেশের মধ্যে রয়েছে লিথুয়ানিয়া, লাটভিয়া, এস্তোনিয়া ও চেক রিপাবলিক।

ঘটনার বিবরণে আরো বলা হয়, গত ৪ মার্চ যুক্তরাজ্যের সালিসবুরির একটি পার্কের কাছ থেকে সাবেক রুশ গুপ্তচর সের্গেই স্ক্রিপাল ও তার মেয়ে ইউলিয়াকে অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। তাদের স্নায়ু অকেজো করে দেয় এমন বিষাক্ত রাসায়নিক নার্ভ এজেন্ট দিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়। এই দ্বৈত গুপ্তচর ২০১০ সাল থেকে যুক্তরাজ্য অবস্থান করছেন। তাদের উদ্ধার করতে গিয়ে রাসায়নিকের প্রভাবে এক পুলিশ কর্মকর্তাও আহত গুরুতর আহত হন।

এই ঘটনা যুক্তরাজ্য ও রাশিয়ার মধ্যকার সম্পর্ককে সংকটের মধ্যে ফেলেছে। এ ঘটনার পর ২৩ রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কারের ঘোষণা দেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। এর জবাবে তখনই পাল্টা ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণা দেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ। পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে রাশিয়াও ২৩ ব্রিটিশ কূটনীতিককে বহিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছে। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে দেশটিতে থাকা ব্রিটিশ কাউন্সিল ও সেন্ট পিটার্সবার্গের ব্রিটিশ কনস্যুলেট।

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এই ঘটনায় রুশ সরকারের জড়িত থাকার অভিযোগকে সম্পূর্ণ বানোয়াট, নোংরা ও অর্থহীন’ অ্যাখ্যা দিয়ে প্রত্যাখ্যান করেছেন। হত্যা চেষ্টার ঘটনায় যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ‘অখণ্ড সংহতি’ প্রকাশ করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। সোমবার ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের এক যৌথ বিবৃতিতে এই সংহিত প্রকাশ করা হয়।

মন্তব্য

মতামত দিন

অন্যান্য পাতার আরো খবর

‘জাতীয় লজ্জা’র জন্য ক্ষমা চাইলেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনক্যানবেরা: রাষ্ট্রের দিক থেকে গাফিলতি রয়েছে স্বীকার করে যৌন হেনস্থার শিকার শিশু এবং তাদের অভিভা . . . বিস্তারিত

প্রশান্ত মহাসাগরীয় তিন দ্বীপে সুনামি সতর্কতা জারি

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনসিডনি: প্রশান্ত মহাসাগরে ভয়াবহ ভূমিকম্পের পর তিনটি দ্বীপ নিউ ক্যালিডনিয়া, ফিজি ও ভানুয়াতুতে সুন . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com