আমিরাতের বিরুদ্ধে কাতারের আকাশসীমা লঙ্ঘনের অভিযোগ জাতিসংঘে

১২ জানুয়ারি,২০১৮

আমিরাতের বিরুদ্ধে কাতারের আকাশসীমা লঙ্ঘনের অভিযোগ জাতিসংঘে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
দোহা: সংযুক্ত আরব আমিরাতের একটি সামরিক বিমান আকাশসীমা লঙ্ঘন করেছে বলে জাতিসংঘে অভিযোগ এনেছে কাতার।

দেশটির অভিযোগ, গত ২১ ডিসেম্বর স্থানীয় সময় সকাল পৌনে দশটায় আমিরাতের একটি সামরিক বিমান কাতারের আকাশ সীমায় প্রবেশ করে। প্রায় এক মিনিট ধরে কাতারের আকাশে ছিল আমিরাতি বিমানটি।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদন বলা হয়, জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্থনিও গুয়েতেরেস ও নিরাপত্তা পরিষদের প্রেসিডেন্টের কাছে এই অভিযোগ পেশ করেন সেখানে নিযুক্ত কাতারের রাষ্ট্রদূত।

গত বছর সন্ত্রাসবাদে সমর্থনের অভিযোগ এনে কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে সৌদি আরব, বাহরাইন, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও মিসরসহ কয়েকটি দেশ। তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে কাতার।

কাতারি রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘শেখ আলিয়া (আহমেদ বিন সাইফ আল থানি) নিশ্চিত করেছেন যে আমিরাতি বিমান কাতারের আকাশে কোনও পূর্ব অনুমতি ছাড়া ঢুকে পড়ে। এটা অবশ্যই আকাশসীমা লঙ্ঘন এবং কাতারের সার্বভৌমত্বের জন্য হুমকি।

তবে এ বিষয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতের কর্মকর্তারা কোনও মন্তব্য করেননি।

গত ৫ জুন সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন চারটি আরব দেশ সন্ত্রাসবাদের সমর্থনের অভিযোগ তুলে কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে। পরে জল, স্থল ও আকাশপথে কাতারের ওপর অবরোধ আরোপ করে সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিশর ও বাহরাইন। এরপরই কাতারের পক্ষে অবস্থান নেয় তুরস্ক ও ইরানসহ মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশ। এছাড়া, কাতারের সহায়তায় তুরস্কো ও ইরান খাদ্য সহায়তা নিয়ে এগিয়ে আসে। ফলে সৌদ-আমিরাত জোটের অবরোধ ব্যর্থ হয়।

কাতারে সামরিক অভ্যুত্থান প্রতিহত করার খবর নাকচ
সম্প্রতি তুরস্কের সহযোগিতায় কাতারের আমিরের বিরুদ্ধে সামরিক অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা প্রতিহত করা হয়েছে বলে যে খবর বেরিয়েছে তা নাকচ করে দিয়েছে দোহা। আঙ্কারায় অবস্থিত কাতারের দূতাবাস একটি তুর্কি পত্রিকার এ সংক্রান্ত খবর অস্বীকার করেছে।

তুর্কি ম্যাগাজিন ‘গারচেক হায়াত’ সোমবার দাবি করেছিল, গত জুন মাসে কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আলে সানি’র বিরুদ্ধে এক অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা প্রতিহত করতে দেশটিতে সেনা পাঠিয়েছিল তুরস্ক।

ম্যাগাজিনটি দাবি করে, গত ৫ জুন তুরস্কের বিশেষ বাহিনীর ২০০ সেনা কাতারের আমিরের প্রাসাদ রক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত হয়। কাতারের সেনাবাহিনী সেদেশের আমিরকে ক্ষমতা থেকে উৎখাত করতে পারে এমন গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ওই ব্যবস্থা নেয়া হয়।

তুরস্কে কাতারের দূতাবাস বুধবার এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘তুর্কি পত্রিকার ওই খবর বাস্তবতা বিবর্জিত। তবে দোহার বিরুদ্ধে পারস্য উপসাগরীয় দেশগুলোর সামরিক উত্তেজনা সৃষ্টির প্রচেষ্টা প্রতিহত করতে তুরস্ক ও কুয়েতের মতো বন্ধু রাষ্ট্রগুলো উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছে।’

মন্তব্য

মতামত দিন

মধ্যপ্রাচ্য পাতার আরো খবর

ভুলবশত মিত্রদের ওপর ব্মিান হামলা চালালো মার্কিন জোট

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনদামেস্ক: সিরিয়ায় উগ্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দায়েশের বিরুদ্ধে কথিত যুদ্ধরত মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক . . . বিস্তারিত

‘গাজায় সম্ভাব্য হামলা মোকাবেলায় প্রস্তুত ফিলিস্তিন’

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনজেরুজালেম: ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ সংগঠনগুলো গাজায় ইসরাইলের সম্ভাব্য হামলা মোকাবেলার প্রস্তুতি নিয় . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com