রুয়ান্ডায় বজ্রপাতে ১৬ জন নিহত

১২ মার্চ,২০১৮

রুয়ান্ডায় বজ্রপাতে ১৬ জন নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
কিগালি: পূর্ব-মধ্য আফ্রিকার দেশ রুয়ান্ডার একটি গির্জায় এক বজ্রপাতে ১৬ জন মারা গেছেন, আর আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন অন্তত ১৪০জন মানুষ।

ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার রুয়ান্ডার দক্ষিণে পাহাড়ি শহর নিয়ারুগুরুর সেভেন্থ-ডে অ্যাডভেন্টিস্ট চার্চে।

স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো বলছে, ওই গির্জায় বজ্রপাত প্রতিরোধ করার মতো প্রয়োজনীয় যন্ত্র বা ডিভাইস, যেমন বজ্রপাত নিরোধক দণ্ড নেই।

এ কারণেই ভয়াবহ এই প্রাণহানির ঘটেছে। স্থানীয় প্রায় সব গির্জা একই পরিস্থিতিতে রয়েছে।

দুই সপ্তাহের কম সময়ের মধ্যে রুয়ান্ডায় ভবন নির্মাণ নীতিমালা এবং শব্দ দূষণ প্রতিরোধে ব্যর্থ হবার দায়ে ৭০০র বেশি গির্জা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

কর্তৃপক্ষ বলছে, বিষয়টি নিয়ে সচেতনতাও অনেক কম রয়েছে।

এছাড়া রুয়ান্ডার দক্ষিণাঞ্চলীয় পাহাড়ি শহর নিয়ারুগুরু জায়গাটি বজ্রপাতসহ নানা ধরণের দুযোর্গ প্রবণ এলাকা।

স্থানীয় মেয়র হাবিটেগেকো জানিয়েছেন, নিহতদের মধ্যে অধিকাংশই ঘটনাস্থলে মারা গেছে। দুইজন মারা গেছেন পরে হাসপাতালে।
এর আগে শুক্রবারেও বজ্রপাতে সেখানে একজন ছাত্র মারা গিয়েছিলেন। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন আহতদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

তিনি আরও বলেন, শুক্রবারে ১৮ জন শিক্ষার্থী একসঙ্গে থাকার সময় যে বজ্রপাতের ঘটে, তাতে তিনজনকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট হিসেবে রামাফোসাকেই বেছে নিয়েছে দ. আফ্রিকার পার্লামেন্ট
কেপটাউন: জ্যাকব জুমার পদত্যাগের পর দক্ষিণ আফ্রিকার নতুন প্রেসিডেন্ট হয়েছেন এএনসির ভাইস প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা। কেপটাউনের স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার বিকেলে জাতীয় পরিষদ দেশটির নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে রামাফোসাকে নির্বাচিত করে।

পার্লামেন্টে সদস্যদের ভোটে প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর রামাফোসাকে করতালি ও জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে স্বাগত জানানো হয়।

বিবিসির খবরে বলা হয়, ৪০০ সদস্যের পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হিসেবে আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেস (এএনসি) দেশটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন। জ্যাকব জুমার পদত্যাগের পর রামাফোসা প্রেসিডেন্ট হিসেবে তার বাকি মেয়াদে দায়িত্ব পালন করবেন।

এর আগে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্ষমতাসীন দল আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেসের চাপের মুখে ৭৫ বছর বয়সী জ্যাকব জুমা প্রেসিডেন্টের পদ থেকে পদত্যাগ করেন। টেলিভিশনে দেওয়া এক ভাষণে জুমা বলেন, উদ্ভূত পরিস্থিতিতে তিনি পদত্যাগ করছেন। তবে দলের সিদ্ধান্তের সঙ্গে তিনি একমত নন।

জুমার পদত্যাগ প্রশ্নে গত সোমবার এএনসির দলীয় বৈঠক হয়। বৈঠকে জুমাকে পদত্যাগের জন্য ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম দেওয়া হয়। পদত্যাগ না করলে তাকে বৃহস্পতিবার পার্লামেন্টে অনাস্থা ভোটের মুখে পড়তে হবে বলেও হুঁশিয়ারি দেয় দলটি।

২০০৯ সাল থেকে ক্ষমতায় থাকা জুমার বিরুদ্ধে দুর্নীতির বিস্তর অভিযোগ ওঠার পর তার ওপর পদত্যাগের চাপ বাড়ছিল। নিজ দল এএনসির ভেতরেই প্রচণ্ড চাপে পড়েন তিনি। এরই মধ্যে গত বছরের ডিসেম্বরে তার স্থলে দলীয় প্রধানের দায়িত্ব পান ভাইস প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা।

জুমার মিত্র বলে পরিচিত ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্যবসায়ী ‘গুপ্ত পরিবারে’র জোহানেসবার্গের গুপ্তবাড়িতে বুধবার তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। পদত্যাগে জুমার ওপর চাপ বাড়ার প্রেক্ষাপটে গুপ্ত পরিবারের বাড়িতে তল্লাশি চালানো হলো। গুপ্ত পরিবারের বাড়িতে বুধবার সকালে তল্লাশির পর এক বিবৃতিতে পুলিশ জানায়, এ পর্যন্ত তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

জুমার বিরুদ্ধে প্রধান অভিযোগ, তিনি রাষ্ট্রীয় অর্থ লোপাট করেছেন। ব্যবসায়ীদের রাজনীতিতে নাক গলানোর সুযোগ করে দিয়েছেন। বিশেষ করে জুমার ‘আশকারাতেই’ ভারতীয় বংশোদ্ভূত ‘গুপ্ত পরিবার’ নামে একটি সুপরিচিত ব্যবসায়ী পরিবার রাজনীতিতে বেপরোয়া হস্তক্ষেপ করছে। সমালোচকেরা বলে থাকেন, রাজনীতিক নাকি করপোরেট ব্যবসায়ী, কারা এখন দক্ষিণ আফ্রিকার দেশটি চালাচ্ছেন, সে প্রশ্নই বড় হয়ে দেখা দিয়েছে।

প্রসঙ্গত, ১৯৯৩ সালে ভারতের উত্তর প্রদেশের সাহারানপুরের তিন ভাই অজয় গুপ্ত, অতুল গুপ্ত ও রাজেশ ওরফে টনি গুপ্ত দক্ষিণ আফ্রিকায় ব্যবসা শুরু করেন। দেশটির ক্ষমতাসীন রাজনীতিকদের সঙ্গে পরিবারটির ঘনিষ্ঠতা সবার সামনে আসে ২০১৩ সালে।

জুমার পদত্যাগের ঘোষণার পরই এএনসি এক বিবৃতিতে জানায়, এই পদক্ষেপের মধ্য দিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার মানুষের জীবন সংশয়মুক্ত হলো।

দলটির ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল জেসি দুয়ার্তে সাংবাদিকদের বলেন, ‘জুমা এএনসির একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হিসেবেই থাকবেন। দলের জন্য তার অবদান শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি।’

কে এই রামাফোসা
রামাফোসা ১৯৫২ সালে জোহানেসবার্গের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সোয়েটোতে জন্মগ্রহণ করেন। এরপর তিনি ইউনিভার্সিটি অব নর্থ থেকে আইন বিষয়ে লেখাপড়া করেন। সেখান থেকেই তিনি ছাত্ররাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন এবং দক্ষিণ আফ্রিকান ছাত্র পরিষদের নেতা হিসেবে রাজনৈতিক দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৮০ সাল থেকে তিনি দক্ষিণ আফ্রিকার খনি শ্রমিকদের সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নয় বছর দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৯ সালের নির্বাচনে নেলসন ম্যান্ডেলার প্রতিনিধি হিসেবে আফ্রিকার প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকলেও সেবার তিনি থাবো এমবেকির কাছে পরাজিত হন।

মন্তব্য

মতামত দিন

আফ্রিকা পাতার আরো খবর

ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রীর সমাবেশে গ্রেনেড হামলা

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনআদ্দিস আবাবা: ইথিওপিয়ার সংস্কারপন্থী প্রধানমন্ত্রী আবিই আহমেদের সমাবেশে গ্রেনেড হামলার ঘটনায় কয় . . . বিস্তারিত

ভয়াবহ বন্যায় আইভরি কোস্টে ১৮ জনের প্রাণহানি

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনআবিদজান: পশ্চিম আফ্রিকার দেশ আইভরি কোস্টের রাজধানী আবিদজানে ভয়াবহ বন্যায় অন্তত ১৮ জনের প্রাণহান . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com