ভুল বোঝাবুঝির কারণে বিশ্বে মহাপ্রলয় ঘটে যেতে পারে: জাতিসংঘ

২১ এপ্রিল,২০১৭

নিউজ ডেস্ক
আরটিএনএন
ঢাকা: বিশ্বে ভুল বোঝাবুঝির কারণে পরমাণু যুদ্ধের আশংকা বাড়ছে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে জাতিসংঘের নিরস্ত্রীকরণ গবেষণা সংক্রান্ত ইন্সটিটিউট বা ইউএনডিআর।

স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থার ওপর অতি নির্ভরতার কারণে পরমাণু দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশংকা ব্যক্ত করেছে ইউএনডিআর। এতে বলা হয়েছে, ড্রোন, কৃত্রিম উপগ্রহ, নেটওয়ার্ক এবং সেন্সর নিয়ে গড়ে উঠেছে বর্তমানের সামরিক যোগাযোগ ব্যবস্থা। এতে পারস্পারিক গোপন আদান-প্রদান ব্যবস্থা সক্রিয় আছে। ফলে ভুল বোঝাবুঝি কারণে মহাপ্রলয় ঘটে যেতে পারে।

১৯৮৩ সালে এ রকম একটি ঘটনা ঘটেছিল। সোভিয়েত পরমাণু সতর্কীকরণ ব্যবস্থা মার্কিন আগাম হামলার হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে। এতে বলা হয়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে ছোঁড়া পাঁচটি ক্ষেপণাস্ত্র মস্কোর দিকে ছুটে আসছে। এ ব্যবস্থার দায়িত্ব নিয়োজিত ছিলেন লে কর্নেল স্তেইনস্লেভ প্রেত্রভ। তিনি সহজ যুক্তিতে বুঝতে পারেন যে হামলা হলে নিশ্চিত ভাবেই তার জবাব দেয়া হবে তাই মার্কিন হামলার আশংকা সত্য নয়। যান্ত্রিক গোলযোগের কারণে এমন আগাম হামলার হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে বলে ধরে নেন তিনি। পরে তার এ ধারণ সত্য বলে প্রমাণিত হয়।

জাতিসংঘ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বর্তমানে পরমাণু অস্ত্রভাণ্ডারের সঙ্গে জটিল যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে এতে ভুলে পরমাণু যুদ্ধ শুরুর আশংকা আরো বেড়েছে।

আমেরিকার যখন নিজ পরমাণু অস্ত্র কর্মসূচির ভবিষ্যৎ যাচাই করার কাজ শুরু করেছে তখন এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা হলো।

সূত্র: পার্সটুডে

মন্তব্য

মতামত দিন

আফ্রিকা পাতার আরো খবর

আমার ইসলাম গ্রহণ নিয়ে মানুষ অনেক কথাই বলছে, কিন্তু আমি এতে বিরক্ত নই

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনআবুজা: নাইজেরিয়ার জনপ্রিয় অভিনেত্রী লিজ অঞ্জরিন তার ইসলাম গ্রহণ নিয়ে মুখ খুলেছেন। তিনি কোন মান . . . বিস্তারিত

মায়ানমারে ‘জাতিগত নির্মূল’ এবং ‘মন্থর গণহত্যা’ চলছে: ডেসমন্ড টুটু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক আরটিএনএনকেপটাউন: মায়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর সামরিক অভিযানের নামে নিপীড়ন বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান, গোলাম রসুল প্লাজা (তৃতীয় তলা), ৪০৪ দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০।
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com