মহাকাশে ভারতের সেঞ্চুরি!

১২ জানুয়ারি,২০১৮

মহাকাশে ভারতের সেঞ্চুরি!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
দিল্লি: ফের একবার ইতিহাসের সাক্ষী থাকল ভারতবাসী। ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো এবার একসঙ্গে ৩১টি কৃত্রিম উপগ্রহকে মহাকাশে পাঠাল। একই সঙ্গে ১০০তম উপগ্রহ পাঠিয়ে সেঞ্চুরি হাঁকাল তারা।

শুক্রবার সকাল ৯.২৯ মিনিট নাগাদ উৎক্ষেপণ করা হয় ১০০তম কৃত্রিম উপগ্রহ।

পিএসএলভি (পোলার স্যাটেলাইট লঞ্চ ভেহিকল) সি—৪০/কার্টোস্যাট২ সিরিজের মাধ্যমেই কৃত্রিম উপগ্রহগুলি মহাকাশে পাড়ি দেয়।

২০১৭ সালের ৩১ আগস্টে এই রকেট ব্যবহার করে ব্যর্থতার সম্মুখীন হয়েছিল ইসরো। এবারে তাই প্রস্তুতি আরও জোরদার। মহাকাশে নজরদারি চালানোর জন্য ভারত পাঠাবে কার্টোস্যাট-২ সিরিজের স্যাটেলাইট। এই অভিযানের বিষয়ে চূড়ান্ত পর্যায়ের আলোচনার জন্য বৈঠকে বসেছিল অভিযান সংক্রান্ত কমিটি (এমআরআর) ও কর্তৃপক্ষ (এলএবি)। অভিযানে সম্মতি মিলতেই ইসরোজুড়ে ব্যস্ততা তুঙ্গে। এই অভিযানে পিএসএলভি ২৫ মিনিটের বদলে ১ ঘণ্টা পর্যন্ত কর্মক্ষম থাকবে। দুটি পৃথক অভিযানের কর্মক্ষমতা ব্যয় হবে একটি অভিযানেই। ইতিমধ্যেই পিএসএলভি-র সাহায্যেই প্রায় ২৫০টি কৃত্রিম উপগ্রহ মহাকাশে সাফল্যের সঙ্গে পাঠিয়েছে ইসরো।

পিএসএলভি এখন আরও বেশি উন্নত। এই নিয়ে মোট ৪২ বার মহাকাশে পাড়ি দিচ্ছে এই রকেটটি। ৪র্থ পর্যায়ের এই ইঞ্জিনটিতে রয়েছে ‘মাল্টিপল বার্ন টেকনোলজি’। অর্থাৎ ৩১টি কৃত্রিম উপগ্রহকে (স্যাটেলাইট) মহাকাশে পাঠানোর সময়ে ইঞ্জিনটি আট মিনিট ধরে কাজ করবে, আবার পরবর্তী আট মিনিট তা বন্ধ হয়ে যাবে। কৃত্রিম উপগ্রহগুলাইক কক্ষপথে স্থাপন করে ফের চালু হবে।

অভিযানের অধিকর্তা আর হিউটন বলেন, ২০১৭ সালের আগস্টের অভিযানে পিএসএলভি-র যে কর্মক্ষমতা ছিল, শুক্রবারের অভিযানেও সেই একই কর্মক্ষমতা থাকবে রকেটটির। -ভারতীয় সংবাদমাধ্যম।

এর আগে বিশ্বের সামনে ভারতের বিকৃত মানচিত্র তুলে ধরেছিল চীন। ভারত থেকে কাশ্মীর, অরুণাচল প্রদেশ বাদ দিয়ে বিশ্ব বাজারে নতুন মানচিত্র বিক্রি করেছে চীন। এমনই চীনা গ্লোব দেখা গেল টর্নেটোর একটি শপিংমলে।

কানাডায় সন্দীপ দেসওয়াল নামে এক প্রবাসী ভারতীয় জানান, বর্ষবরণের রাতে ম্যালটনের একটি শপিংমলে কিছু কেনাকাটা করতে গিয়েছিলেন তিনি। সেখান থেকে মেয়ের জন্য একটি গ্লোব কেনেন তিনি। সেই গ্লোব বাড়িতে নিয়ে এসে তিনি দেখেন, ভারতের মানচিত্র থেকে জম্মু ও কাশ্মীরকে আলাদা করে দেখানো হয়েছে সেখানে। তত্ক্ষণাত্ সেই স্টোরে গিয়ে অভিযোগও জানান সন্দীপ। যদিও এ ব্যাপারে কোনও কথা বলতে চায়নি স্টোর কর্তৃপক্ষ।

সন্দীপ বলেন, ‘মানচিত্রে এমন ভুল থাকলে ভারত সম্পর্কে মেয়ের কী ধারণা তৈরি হবে! পরবর্তী প্রজন্মও বা কী শিখবে? ভীষণ দুর্ভাগ্যজনক বিষয় এটি।’

বিদেশের মাটিতে সন্দীপের মতো অনেক প্রবাসী ভারতীয় এমন ঘটনার সাক্ষী থেকেছেন। ইউনিভার্সিটি অব টর্নেটোর প্রফেসর সাধনা জোশী দাবি করেন এমনই একটি বিকৃত গ্লোব কিনেছিলেন তিনি। সেখানেও জম্মু ও কাশ্মীরকে 'বিতর্কিত জায়গা' হিসাবে দেখানো হয়েছে।

তার কথায়, ‘আমাদের দেশকে এভাবে দু'ভাগ করে দেখানো কখনওই মেনে নেওয়া যায় না।’

এমনই আর্র একটি গ্লোবে দেখা গিয়েছে জম্মু ও কাশ্মীর-সহ অরুণাচল প্রদেশকেও বাদ দেওয়া হয়েছে। এই সব গ্লোবগুলি চীন থেকেই রপ্তানি হয় বলে দাবি করেছেন স্থানীয় দোকানদাররা।

সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, মানচিত্র বিতর্ক সামনে আসতেই গ্লোব বিক্রি বন্ধ করেছে বেশ কিছু দোকানদার। আবার অনেকে গ্লোবগুলিকে পরীক্ষা করতে সংশ্লিষ্ট দফতরে পাঠিয়েছেন বলেও জানা যাচ্ছে।

সূত্র: ইন্ডিয়া ডটকম

মন্তব্য

মতামত দিন

প্রযুক্তি পাতার আরো খবর

ফেসবুক রহমত নাকি আল্লাহ’র গজব!

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: আল্লাহ তাঁর জ্ঞান ও প্রজ্ঞামাফিক নিজ বান্দাদের জীবনযাপনে তাদের কল্পনাতীত সব উপাদান সৃষ্টি করেন। . . . বিস্তারিত

সাগরে নারী কচ্ছপের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার রহস্য কী?

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনসিডনী: ‘গ্রিন সি’ কচ্ছপের লিঙ্গ নির্ভর করে ডিম ফোটার আগে সাগর তীরের বালি ও সাগরের পানির তা . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com