শত প্রতিকূলতা সত্বেও অবরুদ্ধ গাজার সাঁতারুদের চোখে অলিম্পিক জয়ের স্বপ্ন

২৪ অক্টোবর,২০১৮

শত প্রতিকূলতা সত্বেও অবরুদ্ধ গাজার সাঁতারুদের চোখে অলিম্পিক জয়ের স্বপ্ন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
পশ্চিম তীর: গাজা উপত্যকার সমুদ্রতট বিশ্বের সবচেয়ে দূষণযুক্ত সমুদ্রতটগুলোর একটি। আর এই দূষণ-যুক্ত সমুদ্রেই অলিম্পিক গেমসে অংশ নেয়ার জন্য অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকার ৩০ জন সাঁতারু নিয়মিত সাঁতার প্রশিক্ষণ নিয়ে চলছেন।

অলিম্পিক জয়ের স্বপ্ন দেখা এসব তরুণদের বয়স ১১ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে। তাদের উদ্যোগে ফিলিস্তিনের একমাত্র সাঁতার প্রশিক্ষণ কেন্দ্রটি চালু হয়েছে যেখানে একই সাথে ছেলে এবং মেয়েরা সাঁতার প্রশিক্ষণ নিতে পারে।

সাঁতারুদের প্রশিক্ষক আমজাদ তানটিস বলেন, সাঁতার প্রশিক্ষণের জন্য এখানকার পরিস্থিতি একেবারেই প্রতিকূলে, সমুদ্রের ঢেউগুলো এক্ষেত্রে প্রধান প্রতিবন্ধক এবং তাদের কাছে প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের অভাব রয়েছে।

তবে তিনি ব্যাখ্যা করে বলেন, গাজা উপত্যকায় বিনামূল্যের কোনো সুইমিং পুল নেই, সুতরাং তাদের সামনে সমুদ্র জয় করা ছাড়া আর কোনো পথ খোলা নেই।

তিনি বলেন, ‘আমাদের কাছে এমনকি সাধারণ সাঁতারের সরঞ্জাম যেমন, সাঁতারের চশমা এবং সাঁতারের পোশাকেরও অভাব রয়েছে।’

‘আমাদেরকে পৃষ্ঠপোষকতা করবে এমন মানুষেরও অভাব রয়েছে।’

গাজা উপত্যকার চারদিকে অন্তত ৪০ কিলোমিটার জুড়ে ভূমধ্যসাগর পরিবেষ্টিত রয়েছে, কিন্তু কেউই এর পানিতে নামতে সাহস দেখায় না। জাতিসংঘের হিসেব মতে, পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার অভাবে প্রতিদিন অন্তত ১০০ মিলিয়ন লিটার নোংরা পানি গাজা উপত্যকা পরিবেষ্টিত ভূমধ্যসাগরের পানিতে মিশে যায়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসেব মতে, গাজা উপত্যকার নিত্য ব্যবহার্য পানির অন্তত ৯৫ শতাংশই দূষিত এবং সেখানকার শিশু মৃত্যুর অন্যতম কারণ হচ্ছে দূষিত পানি।

গাজা উপত্যকার পানি দূষণের অন্যতম কারণ হিসেবে ইসরাইল কর্তৃক অবৈধভাবে আরোপ করা অবরোধকে চিহ্নিত করেছে জাতিসংঘ। তবে ইসরাইলের পক্ষ থেকে জানানো হয়, হামাসকে নিরস্ত্র করতে এই অবরোধের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।

ইসরাইল কর্তৃপক্ষ ইতোমধ্যেই কয়েক ডজন সাঁতারু পোশাক জব্দ করেছে এবং জানিয়েছে যে, হামাস সামরিক উদ্দেশ্যে এসব সাঁতারের পোশাক ব্যবহার করতে পারে।

তবে আশার কথা হচ্ছে, বিশেষজ্ঞদের মতে গাজার যেসব সাঁতারু প্রশিক্ষণ নিতে চান তাদের জন্য মোটামুটি নিরাপদ হচ্ছে বেইত লাহিয়া শহরকে পরিবেষ্টন করে রাখা ভূমধ্যসাগরের পানি। কারণ এগুলো এখনো কম দূষণের শিকার হয়েছে।

সাঁতারুদের প্রশিক্ষক তানটিস বলেন, আমার তত্বাবধানে থাকা সাঁতারুদের স্বপ্ন হচ্ছে ২০২০ সালের টোকিও অলিম্পিক গেমসে প্রতিযোগিতা করা, যদিও তার মতে এটি একটি অনিশ্চিত বিষয়।

এমনকি টোকিওতে যাওয়ার জন্য ইসরাইল কর্তৃক ভিসার প্রয়োজন হবে আর তা সবচেয়ে কঠিন কাজ।

‘গাজার বাহিরের বিভিন্ন সাঁতার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং বিভিন্ন আরব দেশের সাঁতার প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলোতে সাঁতার চর্চা করার জন্য আমাদের সামনে অনেক সুযোগ রয়েছে। কিন্তু ইসরাইলকে টেক্কা দিয়ে গাজার বাহিরে যাওয়াটা সবচেয়ে কঠিন ব্যাপার।’ -তানটিস এমনটি জানান।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের অলিম্পিক গেমসে গাজার অলিম্পিক কর্তৃপক্ষ মাত্র ছয় জন ক্রীড়াবিদকে সেখানে প্রতিযোগিতা করার জন্য পাঠাতে পেরেছিলেন।

১৫ বছর বয়সী আবদুল রাহমান নামের একজন সাঁতারু বলেন, তিনি আশা করেন, তিনি একজন ‘হিরো’তে পরিণত হবেন এবং যে কোনো আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অর্জন করার মত সাহস এবং আত্মবিশ্বাস তার রয়েছে।

প্রশিক্ষক তানটিস বলেন, ‘বিভিন্ন সমস্যা এবং প্রতিকূলতার কারণে মেয়েরা সাঁতারে আসবে এটি গ্রহণযোগ্য কোনো বিষয় ছিল না।’

‘তবে বর্তমানে দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন হয়েছে এবং এখন নারী সাঁতারুর ৩০ শতাংশে পৌঁছিয়েছে।’

রাইনা নামের ৩২ বছর বয়স্ক একজন নারী তার স্বামীর সাথে সমুদ্রতটে হাঁটার সময় সাঁতার প্রশিক্ষণ দেখে থমকে দাঁড়ান। তিনি বলেন, ‘আমাদের মেয়েরা তাদের এই সুন্দর আকাঙ্ক্ষাকে বাস্তবায়ন করার জন্য অধার্মিক হয়ে যাবেন না এবং তারা সাঁতারে সফল হবেন।’

রুকাইয়া নামের ১৪ বছর বয়সী নারী সাঁতারু জানান তিনি সাঁতার ভালোবাসেন। তিনিততবলেন, ‘আমি তিন বছর পূর্ব থেকে সাঁতার শিখে আসছি আর এখন আমি এই দলের সাথে যোগ দিয়েছি। আমার পরিবার আমাকে সমর্থন দিচ্ছে এবং আমি আমার বন্ধুদের সাথে সমুদ্রে সাঁতার কাটি।’

তিনি একজন সাঁতার পেশাজীবী হতে চান। তিনি বলেন, ‘আমরা একটি বড় সুইমিং পুল চাই বিশেষত অলিম্পিক গেমসে অংশগ্রহণ করার জন্য প্রশিক্ষণের জন্য এটি গুরুত্বপূর্ণ।’

সূত্রঃ আরব নিউজ।

মন্তব্য

মতামত দিন

অন্যান্য পাতার আরো খবর

এশিয়ান গেমসের হকিতে থাইল্যান্ডকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে বাংলাদেশ

খেলা ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: এশিয়ান গেমসের হকিতে থাইল্যান্ডকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে বাংলাদেশ। প্রথম দুই ম্যাচে জয়ের পর তৃতীয় ম্যা . . . বিস্তারিত

প্রথম দিনে বৃষ্টির বদৌলতে ইতিহাসে স্থান করে নিলো আয়ারল্যান্ড

খেলা ডেস্কআরটিএনএনডাবলিন: আয়ানল্যান্ডের জন্য ১১ মে, ২০১৮ দিনটি ঐতিহাসিকভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ ১১তম টেস্ট খেলুড়ে দে . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com