প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে টিআইবির ৯ সুপারিশ

০১ এপ্রিল,২০১৮

প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে টিআইবির ৯ সুপারিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) ৯টি সুপারিশ করেছে। রবিবার বেলা ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) এক মানববন্ধনে এসব সুপারিশ তুলে ধরা হয়।

টিআইবির রিসার্চ পরিচালক রফিকুল হাসান বলেন, আইনগতভাবে অনেক শাস্তিমূলক ব্যবস্থার উল্লেখ থাকলেও যে মাত্রায় প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে, সে মাত্রায় শাস্তিমূলক ব্যবস্থার দৃষ্টান্ত নেই।

তিনি বলেন, অধিকাংশ সময়ে ফাঁস হওয়া প্রশ্ন বিতরণের অভিযোগে শিক্ষক বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সহকারী পর্যায়ে শাস্তির উদ্যোগ নিতে দেখা যায়। বাস্তবে ফাঁস প্রক্রিয়ায় সংশ্লিষ্টরা জবাবদিহিতার ঊর্ধ্বে থেকে যান। ফলে প্রশ্নফাঁস রোধে তা কার্যকর কোনো ভূমিকা রাখতে পারছে না।

টিআইবির সুপারিশ

১. ‘পাবলিক পরীক্ষাসমূহ (অপরাধ) (সংশোধন) আইন, ১৯৯২’-এর ৪ ধারা পুনরায় সংশোধন করে শাস্তির মাত্রা পূর্বের মতো সর্বোচ্চ ১০ বছরের কারাদণ্ডের বিধান প্রণয়ন এবং নির্দিষ্ট ধারা অনুযায়ী দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করা।

২. কোচিং সেন্টার নিষিদ্ধকরণে সরকারের ‘শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের কোচিংবাণিজ্য বন্ধ নীতিমালা-২০১২’-এর অস্পষ্টতা দূর করা এবং কোচিংবাণিজ্যে বন্ধে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সংশ্লিষ্টদের প্রণোদনাসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা বন্ধ করা।

৩. প্রশ্নফাঁস রোধ ও সৃজনশীল পদ্ধতির উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে গাইডবইয়ের আদলে প্রকাশিত সহায়ক গ্রন্থাবলি বন্ধে প্রচলিত আইনের প্রয়োগ নিশ্চিত করা।

৪. তথ্যপ্রযুক্তির অপব্যবহার রোধে তদারকি বাড়ানো ও প্রচলিত আইনের অধীনে শাস্তি নিশ্চিত করা।

৫. ধাপ কমিয়ে প্রশ্ন প্রণয়ন, ছাপানো ও বিতরণের কাজটি পরীক্ষামূলকভাবে ডিজিটাল পদ্ধতিতে সম্পন্ন করা এবং পরবর্তী সময় সে অনুযায়ী প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা, প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ গ্রহণ করা।

৬. প্রশ্নফাঁস নিয়ে গঠিত যে কোনো তদন্ত প্রতিবেদন জনসম্মুখে প্রকাশ এবং সে অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা।

৭. শিক্ষা ও পরীক্ষা পদ্ধতি এবং ব্যবস্থাপনাগত যে কোনো পরিবর্তনের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সবাইকে পর্যাপ্ত সময় দেয়া এবং যথাযথ প্রশিক্ষণ প্রদান করা।

৮. প্রশ্নফাঁস রোধে বহুনির্বাচনী প্রশ্নব্যবস্থা ক্রমান্বয়ে তুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা।

৯. পাবলিক পরীক্ষায় প্রতিটি বিষয়ে প্রশ্নপত্রের একাধিক সেট রাখা।

অ্যাপোলোর জন্য পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা অর্থহীন: টিআইবি
এর আগে ঢাকার অ্যাপোলো হাসপাতালে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে মেয়াদোত্তীর্ণ রি-এজেন্ট ও অননুমোদিত বিদেশি ওষুধ উদ্ধারের ঘটনায় মাত্র পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা অ্যাপোলোর জন্য অর্থহীন বলে উল্লেখ করেছেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।

সংগঠনটি হাসপাতালটির এ ঘটনাকে জনস্বাস্থ্যের সুরক্ষার জন্য গভীর উদ্বেগের বলেও মন্তব্য করেছেন।

মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর নজরদারি জোরদারের মাধ্যমে নিয়ম ভঙ্গকারী অতি মুনাফালোভী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যকর জবাবদিহি নিশ্চিত করারও আহ্বান জানানো হয়।

বিবৃতিতে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলেন, গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ থেকে জানা গেছে যে সম্প্রতি র‌্যাব, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও ঔষধ প্রশাসন কর্তৃক যৌথভাবে পরিচালিত একটি অভিযানে অ্যাপোলো হাসপাতাল থেকে মেয়াদোত্তীর্ণ রি-এজেন্ট ও অননুমোদিত ওষুধ উদ্ধার করা হয়েছে। যা এ ধরনের বেসরকারি মালিকানাধীন স্বাস্থ্যসেবার নামে পরিচালিত প্রতিষ্ঠানের সেবার মান যে জনস্বাস্থ্যের সুরক্ষার প্রতি কতটা উদ্বেগজনক, তার একটিমাত্র দৃষ্টান্ত। দেশের অন্যতম ব্যয়বহুল হাসপাতাল হিসেবে পরিচিত অ্যাপোলো হাসপাতালে যদি মেয়াদোত্তীর্ণ রি-এজেন্ট ব্যবহার করা হয়, তাহলে দেশব্যাপী বিভিন্ন স্তর ও মানের হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে কী পরিমাণ অনিয়ম ও স্বাস্থ্যঝুঁকি রয়েছে, তা সহজেই অনুমান করা যায়।

অন্যদিকে অ্যাপোলো হাসপাতালের মতো প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা এ ধরনের অপরাধ দমনে কোনো ভূমিকাই রাখবে না বলে উল্লেখ করে এ ক্ষেত্রে কঠোরতর আইনের প্রয়োগের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার আহ্বান জানায় টিআইবি।

৭ ফেব্রুয়ারি টিআইবি কর্তৃক প্রকাশিত বেসরকারি স্বাস্থ্য খাতে গ্রাহক হয়রানির যে উদ্বেগজনক চিত্র তুলে ধরা হয়েছে, তার উল্লেখ করে ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘জীবন-মরণের সঙ্গে সম্পর্কিত বিধায় স্বাস্থ্যসেবায় প্রত্যাশিত মান বজায় রাখার কোনো বিকল্প নেই। কিন্তু প্রয়োজনীয় নীতিগত সহায়তার অভাব, পরিদর্শন ও তদারকির ক্ষেত্রে ব্যাপক ঘাটতি এবং লাগামহীন প্রকট বাণিজ্যিকীকরণের সম্মিলিত প্রভাবে বেসরকারি চিকিৎসাসেবা খাত কার্যত সেবাগ্রহীতাদের দুর্দশা প্রান্তসীমায় উপনীত করেছে।’ বিজ্ঞপ্তি

‘ঘুষ-দুর্নীতি’ ইস্যুতে শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি টিআইবির

সম্প্রতি শিক্ষামন্ত্রণালয়ের এক অনুষ্ঠানে ‘সহনশীল’ মাত্রায় ঘুষ গ্রহণের পরামর্শ প্রদান ও ঘুষ গ্রহণে বাধা দেয়ার সাহস নেই বলে শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।

মাননীয় মন্ত্রী কর্তৃক নিজেকে দুর্নীতিগ্রস্ত হিসেবে ঘোষণা দেয়া সাহসিকতার পরিচায়ক হতে পারে; তবে একই সাথে এই সৎ সাহসের যথার্থতার স্বার্থেই নৈতিক অবস্থান থেকে তিনি পদত্যাগ করে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করবেন- এই প্রত্যাশা করছে টিআইবি।

বিভিন্ন জাতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত ও প্রচারিত সংবাদসূত্রে জানা যায়, ২৪ ডিসেম্বর এক অনুষ্ঠানে বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ইতিপূর্বে মন্ত্রণালয়ের এক অধিদপ্তরের দুর্নীতির ব্যাপকতা রোধে কর্মকর্তাদের ‘সহনশীল’ মাত্রায় ঘুষ গ্রহণের পরামর্শ দিয়েছিলেন বলে উল্লেখ করেন।

শিক্ষামন্ত্রণালয়ের পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পেইজে সরাসরি সম্প্রচারিত অনুষ্ঠানে প্রদত্ত বক্তব্যের এক পর্যায়ে তিনি সরকারি কর্মকর্তাদের পাশাপাশি নিজেসহ মন্ত্রীপরিষদের সকল সহকর্মীদের দুর্নীতিগ্রস্ত বলে মন্তব্য করেন।

মন্তব্য

মতামত দিন

শিক্ষা পাতার আরো খবর

সরকারিকরণ হল আরো ১৪টি কলেজ

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: নতুন করে সরকারিকরণ হল দেশের আরো ১৪টি বেসরকারি কলেজ। এ বিষয়ে বুধবার প্রজ্ঞাপন জারি করেছে শি . . . বিস্তারিত

২০১৯ থেকে নতুন পদ্ধতিতে এসএসসি পরীক্ষা, আন্তমন্ত্রণালয়ে সিদ্ধান্ত

নিজস্ব প্রতিনিধিআরটিএনএনঢাকা: ২০১৯ থেকে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষা নতুন প্রশ্নপত্র ও নতুন পদ্ধতিতে নেওয় . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com