খালেদার রায়কে কেন্দ্র করে ঢাবিতে ক্লাস বন্ধ, আটক ১

০৮ ফেব্রুয়ারি,২০১৮

খালেদার রায় : ঢাবিতে ক্লাস বন্ধ, আটক ১

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপাসন খালেদা জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ বিভাগে ক্লাস বন্ধ রয়েছে। বন্ধ রয়েছে ক্যাম্পাসের পরিবহনগুলোও।

খালেদা জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে আগ থেকেই ক্লাস বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে অধিকাংশ বিভাগ। ক্যাম্পাসে আসা-যাওয়ায় করতে গিয়ে শিক্ষার্থীরা অপ্রীতিকর ঘটনার মুখোমুখি হতে পারেন এমন আশঙ্কা থেকেই ক্লাস বন্ধ রেখেছে অধিকাংশ বিভাগ।

এছাড়া কিছু কিছু বিভাগে ক্লাস শুরু হলেও সব ক্লাস হয়নি। দুপুরের পর থেকে সব বিভাগের ক্লাস বন্ধ রয়েছে।

এদিকে সকাল ৯টার দিকে ছাত্রদল কর্মী সন্দেহে টিএসসি থেকে এক যুবককে আটক করে থানায় দিয়েছে জহুরুল হক হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আফিস তালুকদার।

আটককৃত ওই যুবকের নাম তোহিদুর রহমান। বর্তমানে তিনি পুলিশের হেফাজতে আছেন।

এর আগে সকাল থেকেই ক্যাম্পাসের বিভিন্ন মোড়ে অবস্থান নেয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। বিএনপি ও তাদের ছাত্র সংগঠন ছাত্রদল ক্যাম্পাসে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে পারে এমন আশঙ্কা থেকেই এ অবস্থান তাদের বলে জানান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্স।

এমন পরিস্থিতে ক্যাম্পাসে উত্তেজনা বিরাজ করছে। ক্যাম্পাসের বিভিন্ন মোড়ে সর্তক অবস্থান নিয়েছে। পলাশী, শহীদ মিনার, নীলক্ষেত, শাহবাগ, টিএসসি, দোয়েল চত্বরসহ বিভিন্ন জায়গায় তারা কাউকে সন্দেহ হলেই তল্লাশি করছেন।

দুর্নীতির মামলার রায় শুনতে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা ৪০ মিনিটে গুলশানের বাসা থেকে রওনা হন খালেদা জিয়া। রাজধানীর বকশীবাজারে আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী বিশেষ আদালতে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায় ঘোষণা করা হবে। তার সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ৩০টির বেশি গাড়ি আছে।

ইউনিফর্মধারী সদস্যরা ছাড়াও সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা আছেন। গাড়িবহর সাতরাস্তা পর্যন্ত আসার পর ছাত্রদল, বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা মিছিল করে এসে বহরের সঙ্গে যুক্ত হয়। এ সময় তাদের কোনও ধরনের বাধা দেয়নি পুলিশ।

খালেদা জিয়ার মামলার রায়কে সামনে রেখে ঢাকাসহ সারাদেশে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। বকশীবাজারে বিশেষ আদালত ও এর আশপাশের এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল সদস্য মোতায়েন রয়েছে।

কুয়েত থেকে এতিমদের জন্য পাঠানো ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলা করা হয়। ২০০৮ সালের ৩ জুলাই সেনা নিয়ন্ত্রিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে রাজধানীর রমনা থানায় মামলাটি করে দুদক। ওই বছরই ৪ জুলাই মামলাটি গ্রহণ করেন আদালত। তদন্ত শেষে দুদকের সহকারী পরিচালক হারুন অর রশিদ ২০০৯ সালের ৫ আগস্ট বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, তার বড় ছেলে তারেক রহমানসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে এ মামলায় অভিযোগপত্র দেন।

মন্তব্য

মতামত দিন

প্রধান খবর পাতার আরো খবর

দাওরায়ে হাদিসের সনদকে মাস্টার্স ডিগ্রি সমমানের স্বীকৃতি মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: ‘কওমি মাদ্রাসার দাওরায়ে হাদিসের সনদকে মাস্টার্স ডিগ্রি সমমানের স্বীকৃতি দিয়ে আইনের অ . . . বিস্তারিত

বেসরকারি ২৭১ কলেজকে জাতীয়করণ করা হলো

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: নতুন করে দেশের ২৭১টি কলেজকে সরকারি করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি অনুযায় . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com