ধর্মান্তর যাত্রায় মার্কিন তরুণীর এক বিশেষ গল্প

২৩ ডিসেম্বর,২০১৮

ধর্মান্তর যাত্রায় মার্কিন তরুণীর এক বিশেষ গল্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
ওয়াশিংটন: আমাকে সব সময়ই এই একটি প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করা হয়েছে এবং আমি কখনো এটির উত্তর দেইনি। কিন্তু আমি মনে করি আজ আমার এটির উত্তর দেয়ার সময় এসেছে।

প্রশ্নটি কি ছিল?

প্রশ্নটি হচ্ছে: আপনি কিভাবে মুসলিম হয়েছেন এবং কেন?

প্রথমত, আমি বলতে চাই, আপনাদেরকে বলার জন্য আমার একটি বিশেষ গল্প ছিল। আমার ইচ্ছা ছিল আমি আপনাদের আশ্চর্যজনক কিছু দিতে পারব কিন্তু সত্য হচ্ছে আমার গল্পটা খুবই সাদামাটা।

আমি মানুষের মাধ্যমে ইসলাম সম্পর্কে শিখেছি। আমি তাদের নাম বলতে চাচ্ছি না এবং তাদের গল্প বা তাদের সম্পর্কে খুব বেশি বলতেও চাচ্ছি না কারণ প্রত্যেকেরই ব্যক্তিগত জীবনের অধিকার আছে।

এবং একারণে আমি শুধু বলতে যাচ্ছি যে আমি আমার কাছাকাছি কিছু প্রাপ্তবয়স্কদের থেকে ইসলাম সম্পর্কে শিখেছি; যারা মানুষের সঙ্গে যোগাযোগের মধ্যে ইসলাম সম্পর্কে শিখেছিল।

কেন আমি মুসলিম হয়েছি?
আমি মনে করি যে এটা আসলে বলার মতো কিছু না। আপনি জানেন, আমার মোটেই কোনো ধর্ম ছিল না। আমি কারো সাহায্য ছাড়াই বড় হয়েছি এবং আমার কাছে মনে হয়েছে আমি ঘুমন্ত ছিলাম।

ইসলামসহ কিছু বিষয় নিয়ে আমি চিন্তা করতে শুরু করলাম। আপনি জানেন, এই বয়সে মানুষ সাধারণত এসব সম্পর্কে চিন্তা করেন না। তারা এমটিভি এবং লেডি গাগাকে নিয়ে বেশি উদ্বিগ্ন থাকে। তারা পপ সংস্কৃতি এবং তাদের সহকর্মীদের নিয়ে উদ্বিগ্ন।

কিন্তু এটা আমার চোখ খুলে দিয়েছে এবং আমি জেগে উঠতে শুরু করি। আমি ইসলামকে দেখতে শুরু করি এবং আমি এর মাধ্যমে দেখেছি যে মানুষ ভাল হতে পারে।

আমার জীবনে এপর্যন্ত আমি কেবল আমার পরিবার ও বন্ধুদের সম্পর্কে জেনেছি এবং যারা আমার ও বিশ্ব সম্পর্কে কোনো খবর রাখেন না, তারা খারাপ হতে পারেন।

আপনি জানেন, মানুষের গুণাবলীর বিষয়ে তারা উদাসীন। তারা মনে করেন শালীনতা গুরুত্বপূর্ণ নয়। একজন ভাল মানুষ হওয়ার বিষয়টিকে তারা গুরুত্বপূর্ণ মনে করেন না।

ইসলাম আমাকে শেখায় যে মানুষ ভাল হতে পারে এবং ইসলাম আমাকে দেখিয়েছে যে আমিও ভাল হতে পারি।

এবং আপনার জীবনে ভাল জিনিসকে আঁকড়ে ধরে বেঁচে থাকা এবং খারাপ পছন্দ বা সুযোগকে না বলা অত্যন্ত মূল্যবান।

এটা মেনে চলা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।এ কারণেই আমি মুসলিম হতে পছন্দ করেছি? আর এজন্যই আমি ইসলামকে বেছে নিয়েছি।

আমার শাহাদাহ (কালেমা) খুব সহজ জিনিস ছিল। এটি পাঠের সময় কক্ষের ভিতর হাতে গোনা কয়েকজন লোক সঙ্গে ছিল। সেখানে কোনো উদযাপন ছিল না, কোনো উপহার ছিল না এবং আলহামদুলিল্লাহ, আমি এর জন্য কৃতজ্ঞ। কারণ আমি ইসলামকে একটি পরিচ্ছন্ন আন্তরিকতার সঙ্গে পেয়েছি যেখানে পরিপূর্ণভাবে সবার মনোযোগ ছিল না।

এবং এটাই আমার গল্প।

অ্যাবাউট ইসলাম অবলম্বনে মার্কিন তরুণী ইলিজার গল্প

মন্তব্য

মতামত দিন

মূল প্রতিবেদন পাতার আরো খবর

ফ্যাশন শিল্পে হিজাবের প্রাধান্য বেড়েই চলছে, আকার ৪৮৮ বিলিয়ন ডলার

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনকায়রো: বাংলাদেশি নাজমা খান যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান ১১ বছর বয়সে। তিনি ২০১৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রে যা . . . বিস্তারিত

ব্যবহারে মুগ্ধ হয়ে তুর্কি যুবককে বিয়ে, অতঃপর জাপানি নারীর ইসলাম গ্রহণ

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনটোকিও: জাপানের মুসলমান জনগোষ্ঠী এখনো অপেক্ষাকৃত ক্ষুদ্র এবং অধিকাংশ জাপানিই কেবল ইসলামের মৌলিক . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com