ডাস্টবিনে ফেলে দেয়া নবজাতকের লাশ টেনে বের করল কুকুর

১৫ এপ্রিল,২০১৮

ডাস্টবিনে ফেলে দেয়া নবজাতকের লাশ টেনে বের করল কুকুর

নিজস্ব প্রতিনিধি
আরটিএনএন
কিশোরগঞ্জ: কিশোরগঞ্জের মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের (মাতৃসদন) সামনের ডাস্টবিনের ময়লা আবর্জনার স্তূপ থেকে এক নবজাতকের লাশ টেনে বের করল কুকুর।

শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে কিশোরগঞ্জের মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, ডাস্টবিনের ময়লা-আবর্জনার স্তূপ থেকে একদল কুকুর একটি ব্যাগ টেনে সদর রাস্তার ওপর নিয়ে ভেতর থেকে নবজাতকের লাশ বের করার সময় কজন পথচারীর নজরে পড়ে।তারা কুকুর দলকে তাড়া করে পুলিশে খবর দেয়। এ ঘটনা জানাজানি হলে এলাকায় কৌতূহলী জনতা ভিড় জমান।

খবর পেয়ে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি আবু সামা মোহাম্মদ ইকবাল হায়াত জানান, পুলিশ এসে নবজাতক শিশুকন্যার লাশটি উদ্ধার করে নিয়ে গেছে।

তিনি জানান, ঘটনাস্থলের কাছে মা ও শিশু কল্যাণকেন্দ্র এবং ডায়াবেটিক সমিতির প্রসূতিসেবা কেন্দ্র রয়েছে।

ধারণা করা হচ্ছে, শনিবার সন্ধ্যার পর এ দুটি প্রতিষ্ঠানের একটি থেকে জীবিত অথবা মৃতাবস্থায় ওই নবজাতকটিকে ব্যাগে ভরে ডাস্টবিনের ময়লা-আবর্জনার স্তূপে ফেলে রাখা হয়।

আরও পড়ুন....
ম্যাজিস্ট্রেট বউয়ের কথায় গর্ভধারিনী মাকে রেলস্টেশনে ফেলে গেলেন বিসিএস কর্মকর্তা!
ম্যাজিস্ট্রেট বউয়ের কথায় নিজের গর্ভধারিনী মাকে রেলস্টেশনে ফেলে রেখে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে এক বিসিএস কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। গত ২৯ মার্চ বৃহস্পতিবার এমন অভিযোগ জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করেন ব্যারিস্টার এস এম ইকবাল চৌধুরী।

তার পোস্টটি তুলে ধরা হলো-

'কয়েকদিন পর্যন্ত শারীরিক অবস্থা ভালো যাচ্ছে না। ব্লাডপ্রেসার ডিস্টার্ব করছে। আর বন্ধুরা বলে, আমার মাথার মাদারবোর্ড নাকি কাজ করছে না- হা হা হা। তারপরও রেলস্টেশন গিয়ে দু'জন হাঁটাহাঁটি করছি। কারণ আমাদের একজন সিনিয়র কলিগকে রিসিভ করতে অর্থাৎ ট্রেনের অপেক্ষায়। কিছুক্ষণ পর একটি জায়গায় বসে আছেন এক বৃদ্ধা, যার বয়স সত্তর।’

তিনি একজন মা। মায়ের মুখ থেকে উচ্চারিত হচ্ছে- ‘খোকা কোথায় গেলি বাবা’। মায়ের কাছে জানতে চেয়েছি, খোকা কে?

তিনি বললেন,আমার একমাত্র ধন (ছেলে)। তার সঙ্গে একটা ছোট ব্যাগ আছে। আমরা তার অনুমতি নিয়ে ব্যাগের বাহ্যিক পকেটে হাত প্রবেশ করালাম যাতে কোনো ফোন নম্বর পাওয়া যায় কিনা। একটি চিঠি পেয়েছি তাতে কী লেখা ছিল নিম্নে সন্নিবেশিত।

ততক্ষণে ট্রেন উপস্থিত আর অতিথিসহ সিদ্ধান্ত নিলাম মাকে কোনো বৃদ্ধাশ্রমে ভর্তি করিয়ে দেয়ার। স্টেশন মাস্টারের রুমে প্রবেশ করে নিজেদের পরিচয় দিলে তিনি যথার্থ সম্মান দেন। পরে আমরা মায়ের দুর্ঘটনার কথা বলাতে তিনি মাকে নিজ চেয়ারে বসালেন।

মায়ের সন্তান একজন বিসিএস কর্মকর্তা। লোকের বাড়িতে কাজ করে আর রাতে কাপড় সেলাই করে বিসিএস ক্যাডারকে পড়িয়েছেন। আমি চেয়েছিলাম, সেই বদমাশ ছেলের নামসহ বিস্তারিত তুলে ধরতে। কিন্তু মায়ের অনুরোধ যাতে তা না করি। মায়ের মতে, সন্তান ও বৌমা ম্যাজিস্ট্রেট আর তাদের সামাজিক মর্যাদা আছে। হায়রে মা...সন্তানের সম্মান মায়ের কাছে কতো মূল্য আর কুলাঙ্গারের কাছে মা কতো 'বিপদ'!

মায়ের বর্তমান ঠিকানা বৃদ্ধাশ্রম। তাকে বৃদ্ধাশ্রমে ভর্তি করার সময় অভিভাবকের কলামে আমার নাম লিখাতে পেরে গর্বিত।

একদিন বৃদ্ধাশ্রম থেকে ফোন আসলে রিসিভ করি। অপর প্রান্তে মায়ের কণ্ঠে- ‘খোকা, আমার মন ভালো নেই, যদি পারো একটু দেখতে এসো।’

ছুটে গেলাম জননীর কাছে। খোকা হয়ে তখন দেখি মাকে ডাক্তার অবজারভেশনে রেখেছেন। মায়ের কপালে হাত রাখতেই তিনি চোখ খুলে মুচকি হেসে পানি চাইলেন এবং আমি তাকে পানি খাওয়াই।

তিনি বলেন, খোকা বেঁচে থাকবি সিংহ হয়ে। একদিন মা পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে জান্নাতগামী হলেন।

গতমাসে ঘটনাটি ঘটলেও আজ (২৯ মার্চ) এ বিষয়ে লিখছি কারণ চোখের ঝর্ণাপ্রবাহ লেখার ক্ষমতাকে প্লাবিত করে যার ফলে বারবার বাধা পাচ্ছিলাম। কোনো মায়ের পরিণতি যেন এমন না হয়।

মন্তব্য

মতামত দিন

জীবন পাতার আরো খবর

ভিডিও গেমে আসক্তি বাংলাদেশের চিত্র কী?

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: ঢাকার ধানমন্ডির বাসিন্দা আকলিমা মতিনের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় তার দুই সন্তান ছুটির দিনের অবসরে . . . বিস্তারিত

ধর্মান্তরিত মার্কিন মুসলিমের প্রথম রমজানের অভিজ্ঞতা

 ছবি: জেরেমি রান্ডাল (বামে), জেরেমিয়া (মাঝে)ও আরিয়াম মোহামেদ (ডানে)আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনওয়াশিংটন: জেরেমি রান্ডা . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com