কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা রাতুল ফের রিমান্ডে

১৩ আগস্ট,২০১৮

কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা রাতুল ফের রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের (আইসিটি) মামলায় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক সাখাওয়াত হোসেন ওরফে রনি ওরফে রাতুলের একদিনের রিমান্ড দিয়েছেন আদালত।

 সোমবার ঢাকা মহানগর হাকিম ফাহ্দ বিন আমিন চৌধুরী এ আদেশ দেন। আসামির পক্ষে নূর উদ্দিন, জায়েদুর রহমান প্রমুখ আইনজীবী রিমান্ড বাতিলপূর্বক জামিনের আবেদন করেন।

রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, আসামিকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। আসামি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কোটা সংস্কার আন্দোলনের নামে উসকানিমূলকভাবে মিথ্যা তথ্য প্রচারের মাধ্যমে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতিসহ দেশে অরাজক পরিস্থিতি ও অস্থিতিশীল অবস্থা সৃষ্টি করেছে। মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে আসামিকে পুনরায় ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন। আসামির ব্যবহৃত ফেসবুক আইডি থেকে মামলার এজাহার সমর্থিত বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ার ইনবক্সে যেসকল লোকদের সাথে চ্যাট করেছে তা বিশ্লেষণ এবং আসামির ব্যবহৃত বিভিন্ন মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টের (বিকাশ, রকেট) মাধ্যমে সংগৃহীত টাকা তথা কোটা সংস্কার আন্দোলনের অর্থ যোগানদাতাদের নাম-ঠিকানা সংগ্রহ ও অভিযান পরিচালনার মাধ্যমে অপর আসামিদের গ্রেপ্তারের লক্ষ্যে এ আসামির রিমান্ড প্রয়োজন।

ঢাকার অপরাধ, তথ্য ও প্রসিকিউশন বিভাগের উপকমিশনার আনিসুর রহমান বলেন, ‘আজ ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম বিভাগের উপপরিদর্শক (এসআই) মো. সজীবুজ্জামান আসামি রাতুলকে হাজির করে সাতদিনের রিমান্ড আবেদন করেন। সে আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আসামি রাতুলের পক্ষে জামিনের আবেদন করেন আইনজীবী জায়েদুর রহমান। শুনানি শেষে বিচারক একদিনের রিমান্ডে নেওয়ার আদেশ দেন।’

এর আগে গত ৮ আগস্ট কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময় পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগের মামলায় রাতুলের একদিনের রিমান্ড দেন। এরপর ১০ আগস্ট আইসিটি আইনের মামলায় তার দুদিনের রিমান্ড দেন সিএমএম আদালত। সে মামলায় আবারও রিমান্ড দেওয়া হলো।

নথি থেকে জানা যায়, গত ৮ এপ্রিল কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাড়ি ভাঙচুরের ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যেষ্ঠ নিরাপত্তা কর্মকর্তা এস এম কামরুল আহসান বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। আর আন্দোলনের সময় আন্দোলনকারীরা রাস্তা বন্ধ করে টায়ার ও আসবাবপত্র জ্বালানোসহ নাশকতা এবং পুলিশকে মারধর ও কর্তব্য কাজে বাধা দেয়। ওই ঘটনায় শাহবাগ থানায় আইসিটি আইনেসহ তিনটি মামলা করে পুলিশ।

মন্তব্য

মতামত দিন

শিক্ষাঙ্গন পাতার আরো খবর

বাংলাদেশে কোচিং নির্ভরতা কেন এ পর্যায়?

ডেস্ক নিউজআরটিএনএনঢাকা: যেহেতু আমরা দুজনেই কর্মজীবী, সেজন্য আমরা বাচ্চাদের বাসায় সময় দিতে পারি না। যদি সময় দিতে পারতা . . . বিস্তারিত

নবাগতদের র‌্যাগিং: বঙ্গবন্ধু প্রযুক্তি’র ৬ শিক্ষার্থী আজীবন বহিষ্কার, মামলা

নিজস্ব প্রতিনিধিআরটিএনএনগোপালগঞ্জ: নবাগত দুই  শিক্ষার্থীকে র‌্যাগিংয়ের ঘটনায় গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com