দুই দিনেও মেলেনি ১০ জনের সন্ধান

০৯ আগস্ট,২০১৮

দুই দিনেও মেলেনি ১০ জনের সন্ধান

আরটিএনএন
নিজস্ব প্রতিবেদক
শরীয়তপুর: শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার সাধুর বাজার লঞ্চঘাট এলাকায় মঙ্গলবার দুপুরে আকস্মিক ভাবে ৭টি দোকান ঘরসহ পদ্মানদীর গর্ভে বিলীন হওয়ার সময় নিখোঁজ ২৭ জনের মধ্যে ১০ জনের সন্ধান মিলেনি দুই দিনেও। ফায়ার সার্ভিসের ডুবরীদল প্রচণ্ড স্রোতের কারণে উদ্ধার অভিযান চালাতে ব্যর্থ হয়েছে। তারা নৌকা ও ট্রলার যোগে অনুসন্ধান কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক নিয়াজ আহমেদ বলেন, লঞ্চঘাট এলাকা নদীতে বিলীন হয়ে যাওয়ার পর খবর পেয়ে আমরা উদ্ধার অভিযান চালিয়েছি। ডুবুরি দল নদীতে নামানোর পর প্রবল স্রোতের কারনে উদ্ধার কাজে ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসি। নৌকা ও ট্রলারযোগে নিখোঁজদের অনুসন্ধান কাজ চলছে। আমাদের কাছে তালিকা অনুযায়ী এখনো ১০ জন নিখোঁজ রয়েছে।

নড়িয়া থানার ওসি মো. আসলাম উদ্দিন বলেন, নিখোঁজের তালিকা দীর্ঘ হয়েছে। স্বজনদের দাবি অনুযায়ী এখন পর্যন্ত ১০জন নিখোঁজ রয়েছেন। এদিকে নিখোঁজদের স্বজনেরা পদ্মাপাড়ে নিখোঁজদের সন্ধান পাওয়ার আশায় অপেক্ষায় ভিড় করছে। কেদারপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যার ঈমাম হোসেন দেওয়ান জানান, গত দুই দিন ধরে পদ্মা নদীর ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করে। হঠাৎ করে মঙ্গলবার দুপুর ২ টার দিকে নড়িয়া উপজেলার কেদারপুর ইউনিয়নের সাধুর বাজার লঞ্চঘাট এলাকার বিশাল অংশ নিয়ে ৭টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ২ টি ট্রলি, একটি মাহেন্দ্র, ৩টি মটরসাইকেলসহ অন্তত ২৭ জন ব্যক্তি নিয়ে মুহুর্তেই নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। নিখোঁজরা দর্শনার্থী ও আবার কেউ কেউ দোকানপাটের মালামাল সরিয়ে নেয়ার কাজে নিয়োজিত ছিল। ডুবে যাওয়া দের মধ্যে ১৭ জন সাঁতরে তীরে উঠতে সক্ষম হয়। এখনও ১০ জন নিখোঁজ রয়েছেন বলে স্বজন ও স্থানীয়দের দাবি।

নিখোঁজরা হলেন, পাচুখার কান্দি গ্রামের মোশারফ চোকদার, বাড়ৈ পাড়া গ্রামের জামাল ছৈয়াল, কেদারপুর গ্রামের মজিবর ওরফে মজু ছৈয়াল, শাহজাহান বেপারী, মোক্তার চর এলাকার রশিদ হাওলাদার, চাকধ গ্রামের নাছির হাওলাদার, নাছির করাতি, পিরোজপুরের আইটেল মোবাইল কোম্পানির এরিয়া সেলস এক্সিকিউটিভ শেখ আলামিন হাসান, অন্ত মকদম উত্তর কেদারপুর গ্রামের গুপি দাস।

এদিকে সাঁতার কেটে কুলে উঠায় আহতদের মধ্য ১২ জনকে নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং ৫ জনকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার পর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শরীয়তপুরের ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিদল নদীতে নেমে প্রবল স্রোতের জন্য উদ্ধার কাজ চালাতে ব্যর্থ হয়ে তীরে ফিরে আসে। পরে তারা নৌকা ও ট্রলার যোগে নদীর এ প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে খুঁজছে।

এ সংবাদ এর পর তাদের আরন এখন পর্যন্ত কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। নিখোঁজ শাহজাহান বেপারীর মেয়ে শাহনাজ বেগম বলেন, মঙ্গলবার দুপুরে হঠাৎ করেই পদ্মার ভাঙ্গন বেড়ে যায়। এ সময় সাধুরবাজার লঞ্চঘাট বিলীন হয়ে যায়। আমার বাবা একজন রিক্সা চালক সে দোকানপাট সরানোর কাজে সহায়তা করতে এসে নিখোঁজ হয়। তার কোন সন্ধান পাইনি। আমার একটি বোন ও একটি ভাই প্রতিবন্ধী। আমরা কি করে ওদের নিয়ে বাঁচবো।

পিরোজপুরের রুহুল আমিন বলেন, আমার ভাই শেখ আল আমিন হাসান আইটিএল মোবাইল কোম্পানির লেস এক্সিকিউটিভ। সে এ এলাকায় মার্কেট ভিজিটে এসে ভাঙন দেখতে যায়। এ সময় হঠাৎ মাটি দেবে গেলে পানির স্রোতে হারিয়ে যায়। তার কোন সন্ধান পাইনি।

মন্তব্য

মতামত দিন

দেশজুড়ে পাতার আরো খবর

লঞ্চের ধাক্কায় গরু ভর্তি ট্রলার ডুবি

নিজস্ব প্রতিনিধিআরটিএনএননারায়ণগঞ্জ: বরিশালগামী একটি যাত্রীবাহী লঞ্চের ধাক্কায় নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় ৩১টি গরু ভর্তি ট্রলা . . . বিস্তারিত

খাগড়াছড়িতে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ৬

নিজস্ব প্রতিনিধিআরটিএনএনখাগড়াছড়ি: খাগড়াছড়িতে পাহাড়ীদের সংগঠন ইউপিডিএফ সদস্যদের লক্ষ্য করে বন্দুকধারীদের হামলায় ছয় জ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com