সর্বশেষ সংবাদ: |
  • বিএনপি নেতা রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুর প্রার্থিতা বৈধ করবে বলে জানিয়েছেন আদালত, অ্যাটর্নি জেনারেলের মতামত নেওয়ার পর আদেশ
  • তিন আসনে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে দায়ের করা রিটের শুনানি চলছে
  • সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে সংবিধান, ভোটার ও রাজনৈতিক নেতাদের কাছে দায়বদ্ধ নির্বাচন কমিশন : সিইসি

কে এই মুন্নি?

১২ জুলাই,২০১৮

কে এই মুন্নি?

নিজস্ব প্রতিনিধি
আরটিএনএন
যশোর: যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাবিরা নাজমুল মুন্নি, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য। মিথ্যা তথ্য দেওয়া এবং অবৈধভাবে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলায় তাকে ছয় বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একইসঙ্গে তাকে ৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

পৃথক দুটি ধারায় তাকে এই দণ্ড দেওয়া হয়। বৃহস্পতিবার, ঢাকার বিশেষ জজ আদলত -৭ এর বিচারক শহিদুল ইসলাম এই রায় ঘোষণা করেন।

রায় ঘোষণাকালে বিচারক বলেন, ‘১ কোটি ৭৮ হাজার ১৩৫ টাকা রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করেছে আদালত।’

সংশ্লিষ্ট আদালতের কর্মকর্তা হাবিবুল হাছান জীবন বলেন, ‘দুর্নীতি দমন আইন-২০০৪ এর ২৬ (২) ধারায় তিন বছর ও ২৭ (১) ধারায় তিন বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদলত। দুই ধারার সাজা একসঙ্গে চলবে বলে রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে। ’ তিনি আরো বলেন, ‘রায় ঘোষণাকালে আসামি আদালতে হাজির না থাকায় (পলাতক) তার বিরুদ্ধে সাজা পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।’

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০০৯ সালের ২৪ মে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদুক) আসামি সাবিরা সুলতানা তার সম্পদ বিবরণীতে ৫৫ লাখ ৭৮ হাজার ১৩৫ টাকার হিসাব দেখিয়ে জমা দেন দুদকে। পরবর্তীতে দুর্নীতি দমন কমিশনের অনুসন্ধানে দেখা যায় ৪৫ লাখ টাকার সম্পদের বিষয়ে ভিত্তিহীন ও মিথ্যা তথ্য দেওয়াসহ ১ কোটি ৭৮ হাজার ১৩৫ টাকার সম্পত্তি অসাধুভাবে অর্জন করেছেন তিনি। যা তার জ্ঞাত আয়ের সঙ্গে অসংগতিপূর্ণ ।

ওই ঘটনায় ২০১০ সালের ২০ জুলাই দুদকের সহকারি পরিচালক সৈয়দ আহমেদ বাদি হয়ে রাজধানীর ধানমন্ডি থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে ওই বছর ২৫ জুলাই ৯ জনকে সাক্ষী করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। ২০১১ সালের ৯ নভেম্বর এই আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত।

চলতি ২৬ ফেব্রুয়ারি রাতে যশোর থেকে বিমানযোগে ঢাকা যাওয়ার পথে যশোর বিমানবন্দর থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তিনি হাইকোর্ট থেকে জামিনে মুক্ত হয়ে পলাতক রয়েছেন।

যশোর কোতয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম আজমল হুদা বলেন, এছাড়াও সাবিরা নাজমুল মুন্নির বিরুদ্ধে নাশকতার পাঁচটি মামলা রয়েছে।

প্রসঙ্গত, সাবিরা নাজমুল মুন্নি ঝিকরগাছা উপজেলা বিএনপির প্রয়াত নেতা নাজমুল হোসেনের স্ত্রী এবং উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান। বিএনপি-জামায়াতসহ ২০ দলীয় জোটের নাশকতার কাজে অর্থ দেয়ার অভিযোগে চলতি বছরের প্রথম দিকে তার বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় তিনটি মামলা করে পুলিশ।

মন্তব্য

মতামত দিন

দেশজুড়ে পাতার আরো খবর

নওগাঁর পত্নীতলা আ.লীগের সভাপতিকে ছুরিকাঘাতে হত্যা

নিজস্ব প্রতিনিধিআরটিএনএননওগাঁ: নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ইসাহাক হোসেনকে (৭০) সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে হত্যা করে . . . বিস্তারিত

ক্ষমতা হারালে কারো রেহাই নেই: আইনমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিনিধিআরটিএনএনআখাউড়া: আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, যে যেখানেই আছেন প্রত্যেকে নিজেকে একটি দুর্গ হিসেবে গড়ে তুলু . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com