সাভারে পোষাক শ্রমিকদের আন্দোলন: গুলিবিদ্ধ শ্রমিকের মৃত্যু

০৮ জানুয়ারি,২০১৯

সাভারে পোষাক শ্রমিক আন্দোলন: গুলিবিদ্ধ শ্রমিকের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিনিধি
আরটিএনএন
সাভার: বকেয়া বেতন পরিশোধ, বেতন বৃদ্ধিসহ আরো কিছু দাবিতে সাভার ও আশুলিয়ার বিভিন্ন পোশাক কারখানার শ্রমিকরা আন্দোলনে নামলে পুলিশের সাথে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, লাঠিচার্জ, গুলি ও টিয়ারশেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে।

এতে সুমন নামের এক শ্রমিক গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া গুলিবিদ্ধ হয়েছেন মুকুল হোসেনসহ আরও কয়েকজন শ্রমিক।

মঙ্গলবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সাভার হেমায়েতপুরের বাগবাড়ি এলাকা, উলাইল ও আশুলিয়ার কাঠগড়া, খেজুরবাগান ও জিরাবো এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত সুমন মিয়া (২২) শেরপুর জেলার শ্রীবরদি থানার কলাকান্দা গ্রামের আমির আলীর ছেলে। তিনি সাভারের উলাইল কর্ণপাড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় থেকে উলাইল এলাকার আনলিমা অ্যাপারেলস পোশাক কারখানার ষষ্ঠ তলায় ফিনিশিং সেকশনে কাজ করতেন।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বেতন বৈষম্যের কারণে হেমায়েতপুরের বাগবাড়ি এলাকায় স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপের শামস স্টাইল ওয়্যারস লিমিটেডের শ্রমিকরা সকালে কারখানায় কাজে যোগ না দিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। পরে স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপ, ডার্গ গ্রুপ ও জেকে ফ্যাশন কারখানার শ্রমিকরাও তাদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে বিক্ষোভ করতে থাকে। পরে তারা হেমায়েতপুর-শ্যামপুর সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধের চেষ্টা করে থাকে।

এ সময় পুলিশ শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করতে লাঠিচার্জ ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। পরে শ্রমিকরাও পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে উভয়পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ এ সময় লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল ও শতাধিক রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে।

এতে পুলিশ ও শ্রমিকসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়। পরে আহতদের নিকটস্থ বিভিন্ন হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

অপরদিকে দুপুরে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের উলাইল এলাকায় বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা একই দাবিতে সড়কে নেমে এলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ ও গুলিবিনিময়ের ঘটনা ঘটে। এ সময় সুমন মিয়া নামে আনলিমা অ্যাপারেলস কারখানার এক শ্রমিক গুলিবিদ্ধ হয়। পরে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত সুমনের সহকর্মী রিপন জানান, দুপুরে শ্রমিক ও পুলিশ সংঘর্ষ চলাকালে সুমনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক শহিদুল ইসলাম তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তবে এ ব্যাপারে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আমজাদুল হককে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

মন্তব্য

মতামত দিন

জাতীয় পাতার আরো খবর

হজে বিমান ভাড়া কমিয়ে এক লাখ ২৮ হাজার টাকা নির্ধারণ

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: চলতি বছরে হজের বিমান ভাড়া গত বছরের চেয়ে ১০ হাজার টাকা কমিয়ে ১ লাখ ২৮ হাজার টাকা নির্ধারণ ক . . . বিস্তারিত

এমপিদের শপথ নেয়ার বৈধতা চ্যালেঞ্জের রিট উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: একাদশ জাতীয় সংসদে নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের শপথ নেওয়ার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিট উত্ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com