ঢাকার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় কেন পুলিশের বিশেষ অভিযান?

০৯ আগস্ট,২০১৮

ঢাকার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় কেন পুলিশের বিশেষ অভিযান?

নিউজ ডেস্ক
আরটিএনএন
ঢাকা: নিরাপদ সড়কের দাবিতে ছাত্র বিক্ষোভের প্রেক্ষাপটে ঢাকার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকাকে ঘিরে পুলিশের তৎপরতা বেড়েছে গত কয়েকদিন ধরে। বুধবার রাতে ওই এলাকায় পুলিশ বিশেষ অভিযান চালায়।

প্রশ্ন হচ্ছে, ছাত্র বিক্ষোভের প্রেক্ষাপটে পুলিশ বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় কেন অভিযান পরিচালনা করলো? খবর বিবিসি’র

ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া বুধবার রাতে যদিও বলেছেন, এটি পুলিশের চলমান কার্যক্রমের একটি অংশ। কিন্তু ওই এলাকায় বসবাসরত শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে কিছুটা ধারণা পাওয়া যায় যে পুলিশ কেন সেখানে অভিযান চালিয়েছে।

বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার ভেতরে তিনটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান। এগুলো হচ্ছে - নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি, ইন্ডিপেনডেন্টে ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ এবং আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।

এছাড়া বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার কাছাকাছি ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এবং ইউআইটিএস নামে আরো দুটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় অবস্থান রয়েছে।

বেসরকারি এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের অনেকেই বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা এবং সংলগ্ন এলাকায় বসবাস করছেন।

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থী জানালেন, সাম্প্রতিক ছাত্র বিক্ষোভের সময় ঢাকার সায়েন্স ল্যাবরেটরি এলাকার মতো বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার সামনে ছাত্রদের বড় জমায়েত হয়েছিল। এদের বেশিরভাগই বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর শিক্ষার্থী।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, আন্দোলন দমনের জন্য সরকার যেসব কৌশল অবলম্বন করেছে, তারই অংশ হিসেবে বসুন্ধরা এলাকায় 'ব্লক রেইড' করেছে পুলিশ।

যেসব বাসায় পুলিশ তল্লাশি চালিয়েছে সেখানে কেউ ‘নাশকতার’ সাথে জড়িত ছিল কি-না, সেটি যাচাই করার চেষ্টা করেছে পুলিশ - এমনটাই জানালেন বেসরকারি ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটির এক ছাত্র। নাম প্রকাশ না শর্তে ওই ছাত্র বলেন, তল্লাশির সময় ছাত্রদের মোবাইল ফোন এবং ল্যাপটপ দেখতে চেয়েছে পুলিশ।

ওই ছাত্র আরও বলেন, ল্যাপটপ এবং মোবাইলে নিরাপদ সড়ক আন্দোলন সংক্রান্ত কোন ছবি, ভিডিও কিংবা অন্য কোন কিছু আছে কি-না, তা যাচাই করে দেখতে চেয়েছে পুলিশ। এ সময় অনেক শিক্ষার্থীকে আন্দোলন সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রশ্নও করে পুলিশ।

ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটির ছাত্র মাহমুদ-উন-নবী বসুন্ধরা এলাকায় বসবাস করেন। তিনি বলেন, বসুন্ধরা এলাকায় যেহেতু অনেক শিক্ষার্থী বসবাস করছে, সেজন্য যেকোন আন্দোলনে দ্রুততম সময়ের মধ্যে অনেক শিক্ষার্থী জড়ো হতে পারে।

সাম্প্রতিক কোটা বিরোধী আন্দোলন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভ্যাট বিরোধী আন্দোলন এবং নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের সময় ওই এলাকায় শিক্ষার্থীরা জড়ো হয়েছিল।

তবে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অভিযান চালাতে পারে, এমন আশংকা সেখানে বসবাসরত শিক্ষার্থীদের অনেকে আগে থেকেই করছিলেন।

মাহমুদ-উন-নবী বলেন, ‘বেসরকারি এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা রাস্তায় আন্দোলনের সাথে খুব একটা পরিচিত ছিল না। কিন্তু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার উপর ভ্যাট বিরোধী আন্দোলনের সময় অনেকে রাস্তায় নেমে আসে।’

ফলে এখন অনেক আন্দোলনে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সরব উপস্থিতি দেখা যায় বলে মনে করেন মাহমুদ-উন-নবী। আর এরই ফলে স্বাভাবিকভাবেই বসুন্ধরা আবাসিক এবং তার আশপাশের এলাকার উপর পুলিশের নজরদারিও বেড়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিয়ে সরকারও যে বেশ চিন্তায় রয়েছে, তা শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদের কথায়ও ফুটে উঠেছে। বুধবার বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উপাচার্যদের সাথে এক বৈঠকে শিক্ষার্থীদের ক্লাসে উপস্থিত নিশ্চিত করার জন্য তাগাদা দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

বসুন্ধরা এলাকায় পুলিশের অভিযান প্রসঙ্গে বেসরকারি নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শাহবাজ আফ্রিদি বলেন, ‘আমাদের তো কিছু করার নেই ... সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীরা যাতে হয়রানি না হয় ... স্বাভাবিকভাবে, অনেকের মধ্যে ভয় তো আছে।’

তবে পুলিশ বলছে, তাদের অভিযানের সাথে নিরাপদ সড়কের দাবিতে সাম্প্রতিক ছাত্র বিক্ষোভের কোন সম্পর্ক নেই। ডিএমপি মুখপাত্র মাসুদুর রহমান বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছেন, এটি একটি ব্লক রেইড এবং অপরাধী ধরার জন্য এ ধরণের অভিযান তারা প্রায়ই চালিয়ে থাকেন। বসুন্ধরার অভিযানটিও অপরাধী ধরার জন্যই চালানো হচ্ছে বলে জানান তিনি।

মন্তব্য

মতামত দিন

জাতীয় পাতার আরো খবর

‘অন্যায়ের মধ্য দিয়ে যারা ক্ষমতা দখল করে তারা ন্যায়বিচার করতে পারে না’

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: ‘অন্যায়ের মধ্য দিয়ে যারা ক্ষমতা দখল করে তারা কখনো ন্যায়বিচার করতে পারে না’ বলে . . . বিস্তারিত

এক পরিবারের সবাই ইয়াবা ব্যবসায়ী!

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: জহির আহমেদ ওরফে মৌলভী জহির প্রায় ১৫ বছর আগে থেকে টেকনাফে সিএনএফ এজেন্ট হিসেবে ব্যবসা করেন। . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com