স্বজনদের নিয়ে ইউএস-বাংলা’র বিশেষ বিমান নেপালে

১৩ মার্চ,২০১৮

স্বজনদের নিয়ে ইউএস-বাংলা’র বিশেষ বিমান নেপালে পৌঁছেছে

নিউজ ডেস্ক
আরটিএনএন
কাঠমান্ডু: নেপালের কাঠমান্ডুতে সোমবার বিধ্বস্ত উড়োজাহাজের হতাহত বাংলাদেশি যাত্রীদের স্বজনদের নিয়ে ইউএস-বাংলার একটি বিশেষ উড়োজাহাজ নেপালে পৌঁছেছে।

মঙ্গলবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে বাংলাদেশ থেকে এটি কাঠমান্ডু পৌঁছায়।

বিশেষ এই উড়োজাহাজে যাত্রীদের ৪৬ জন আত্মীয় রয়েছেন। ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) কামরুল ইসলাম এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেন।

কামরুল ইসলাম বলেন, আজ সকাল নয়টার দিকে ইউএস-বাংলার একটি বিশেষ উড়োজাহাজ কাঠমান্ডু গেছে। হতাহত যাত্রীদের ৪৬ জন স্বজন ও ইউএস-বাংলার সাতজন কর্মকর্তাসহ মোট ৫৩ জন ছিলেন এতে।

কামরুল ইসলাম বলেন, নেপালে উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হওয়ার পর থেকে স্বজনেরা আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে থাকেন। এরপর কারও পরিবারের একজন, কারও পরিবারের দুজনসহ মোট ৪৬ জনের একটি দলকে উড়োজাহাজে নেপালে পাঠানো হয়েছে।

সোমবার দুপুরে কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বেসরকারি বিমান সংস্থা ইউএস-বাংলার উড়োজাহাজটি বিধ্বস্ত হয়। এতে চারজন ক্রুসহ ৭১ যাত্রী ছিলেন। তাদের মধ্যে ৫০ জন নিহত হয়েছেন। যাত্রীদের মধ্যে ৪৩ জন বাংলাদেশি।

এদিকে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে নিহত ৫০ জনের মধ্যে ২৬ জন বাংলাদেশি। সর্বশেষ প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী আহত ২২ আরোহীকে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। আহতদের মধ্যে ১১ জন বাংলাদেশি। মঙ্গলবার বেলা ১১টায় মৃতদের তালিকায় যুক্ত হয়েছেন বিমানটির আহত পাইলট আবিদ সুলতান।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম তার ফেইসবুক পেইজে বাংলাদেশি যাত্রীদের তালিকা দিয়ে লিখেছেন, ‘সবুজ কালিতে নাম লিখা ব্যক্তিরা আহত, আমাদের এ্যাম্বাসী কর্মকর্তারা দেখা করেছেন। বাকীরা জীবিত নেই। পাইলট নরভিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। একজন ক্রু সম্ভবত জীবিত আছেন, তবে তাকে এখনও পৌছানো যায়নি।’

আহতদের মধ্যে আট জনই ভর্তি আছেন কাঠমান্ডু মেডিক্যাল কলেজে (কেএমসি)। তারা হলেন- শাহরিন আহমেদ, আলমুন নাহার এ্যানি, শাহীন ব্যাপারী, মেহেদি হাসান, এমরানা কবীর, কবীর হোসেন, শেখ রাশেদ রোবায়েত ও সৈয়দা কামরুন্নার স্বর্ণা। আর রেজওয়ানুল হক ভর্তি আছেন ওম হাসপাতালে।

এর বাইরে দু’জন ত্রু আহত থাকার কথা জানা গেলেও তাদের ব্যাপারে বিস্তারিত জানা যায়নি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, ৭৮ জন ধারণ সক্ষম বিমানটিতে ক্রু ছিলেন চার জন। তারা সবাই বাংলাদেশি। যাত্রীদের মধ্যে ৩২ জন বাংলাদেশি, ৩৩ জন নেপালি এবং মালদ্বীপ ও চীনের একজন করে নাগরিক ছিলেন।

বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের জনসংযোগ কর্মকর্তা রেজাউল করিম গণমাধ্যমকে জানান, ৭১ জন আরোহীর মধ্যে ৬৭ জন যাত্রী ছিলেন।

মন্তব্য

মতামত দিন

জাতীয় পাতার আরো খবর

ইয়াবা পরিবহনে পাঠাও চালক!

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: অনলাইন ভিত্তিক রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠান পাঠাও‌’র চালকরা জড়িয়ে পড়েছে ইয়াবা পরিবহন . . . বিস্তারিত

অক্টোবরে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল: ইসি সচিব

নিজস্ব প্রতিনিধিআরটিএনএনটাঙ্গাইল: অক্টোবরের শেষের দিকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন নির . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com