বিশ্ব ইজতেমায় বিদেশি মুসল্লির মৃত্যু

১৩ জানুয়ারি,২০১৮

বিশ্ব ইজতেমায় বিদেশি মুসল্লির মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিনিধি
আরটিএনএন
গাজীপুর: বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দেওয়া এক বিদেশি মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে। তার নাম নূরহান বিন আব্দুর রহমান (৫৫)। তিনি মালয়েশিয়ান নাগরিক বলে জানা গেছে।

শুক্রবার রাত প্রায় সাড়ে ৯টার দিকে তিনি মারা যান। টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সূত্রে জানা যায়, বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিতে এসেছিলেন মালয়েশিয়ার নাগরিক নূরহান বিন আব্দুর রহমান। শুক্রবার রাতে নামাজের জন্য ওজু করেন। পরে নামাজের প্রস্তুতি নিতে গিয়ে হঠাৎ করে তিনি মাটিতে পড়ে যান। পরে ইজতেমার লোকজন তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রেজাউল হক জানান, হাসপাতালে আনার আগেই তিনি মারা গেছেন। ধারণা করা হচ্ছে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি মারা গেছেন। ময়না তদন্তে বিস্তারিত জানা যাবে।

বিতর্কের মুখে নিজের অবস্থান স্পষ্ট করলেন মাওলানা সা’দ
তাবলিগ জামাতের একাংশ, হেফাজতে ইসলাম ও কওমিপন্থী আলেমদের বিরোধিতার মুখে এবার টঙ্গীতে বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নিতে পারছেন না দিল্লির নেজামুদ্দিনের মুরব্বি মাওলানা সা’দ কান্ধলভি।

শুক্রবার বাংলাদেশে তাবলিগ জামাতের মারকাজ কাকরাইল মসজিদে জুমার নামাজের আগে বয়ান ও নামাজ শেষে দোয়া পরিচালনা করেন তিনি। এ সময় মাওলানা সা’দ উর্দুতে তার বয়ান পেশ করেন। এতে তিনি তার পূর্বে দেওয়া তার বক্তব্য থেকে সরে এসেছেন বলে জানান।

নিজের অবস্থান পরিষ্কার করে বয়ানে মাওলানা সা’দ বলেন, ‘কোনও সময় যদি আামাদের ওলামায় কেরাম কোনও কারণে ভুল ধরেন, আমরা মনে করবো, ওনারা আমাদের ওপর এহসান করেছেন, ওনারা আমাদের মোহসেন। ওলামায় কেরাম যে কথা বলবেন, তাতে আমাদের সংশোধন হবে ইনশাল্লাহ। এজন্য ওলামাদের কাছ থেকে আমরা লাভবান হবো। ওনারা কোনও ভুল ধরলে আমরা সংশোধন হবো। ’

তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের কাজ হলো বয়ান করা। বয়ানে অনেক সময় ভুল হয়ে যায়। আমি সবার সামনে রুজু (বর্তমান অবস্থান থেকে সরে আসা) করেছি। কোনও কথায় যদি দোষ হয়, এটা থেকে আমি রুজু করতেছি, আগেও করেছি, এখনও করছি।’

সকাল থেকেই কাকরাইল মসজিদে আসতে থাকেন মাওলানা সা’দের অনুসারীরা। তাদের মধ্যে রয়েছেন বিদেশি মুসল্লিও।

বির্তকিত বক্তব্য দিয়েছেন এমন অভিযোগ তুলে মাওলানা সা’দ যেন বাংলাদেশে না আসতে পারেন, সে দাবি তোলে তাবলিগ জামাতের একাংশ, হেফাজতে ইসলাম ও কওমিপন্থী আলেমরা।

প্রসঙ্গত, ভারতের তাবলিগ জামাতের মুরব্বি মাওলানা মোহাম্মদ সাদের বাংলাদেশে আসা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়েছে। সরকারের সিদ্ধান্ত অমান্য করে মাওলানা মোহাম্মদ সাদ ইজতেমায় অংশ নিতে ঢাকায় এসেছেন—এমন বক্তব্য দিয়ে গত বুধবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর গোলচত্বরের পূর্ব পাশে বিক্ষোভ-সমাবেশ করে বিক্ষুব্ধরা। তারা মাওলানা সাদ ও তার সফরসঙ্গীদের বিমানবন্দর থেকে দিল্লিতে ফেরত পাঠানোর দাবি জানায়। পরে তারা খবর পায় মাওলানা সাদ বিমানবন্দর থেকে তাবলিগ জামাতের কেন্দ্রস্থল কাকরাইল মসজিদে চলে গেছেন। এরপর আন্দোলনকারীরা মাওলানা সাদকে ভারতে ফেরত না পাঠানো পর্যন্ত কাকরাইল মসজিদ ও টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমায় অবস্থান কর্মসূচি ঘোষণা করে।

মন্তব্য

মতামত দিন

জাতীয় পাতার আরো খবর

‘ঢাকার চাপে দাসত্ব করছে নয়া দিল্লি’

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার ব্রিটিশ আইনজীবী লর্ড কার্লাইলকে দিল্লি বিমানবন্দর থেকেই ফিরিয়ে . . . বিস্তারিত

পাগল সাজিয়ে সম্পত্তি হাতিয়ে নিলে শাস্তি: মন্ত্রিসভায় প্রস্তাব অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা:  কাউকে মানসিক রোগী বা পাগল সাজিয়ে মিথ্যা সনদ দিলে এবং সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করলে চিকিৎ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com