‘হত্যা ও পুড়িয়ে মারা হচ্ছে মুসলিম সম্প্রদায়ের অগণিত মানুষকে’

১১ জানুয়ারি,২০১৮

‘হত্যা ও পুড়িয়ে মারা হচ্ছে মুসলিম সম্প্রদায়ের অগনিত মানুষকে’

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: হত্যা ও পুড়িয়ে মারা হচ্ছে নারী-শিশুসহ মুসলিম সম্প্রদায়ের অগনিত মানুষকে। সম্প্রতি রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর নির্যাতন, বাড়ি-ঘর থেকে উচ্ছেদ এক বিভৎসরূপ লাভ করেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

বৃহস্পতিবার বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক বাণীতে তিনি এ মন্তব্য করেন।

খালেদা জিয়া বলেন,সারাবিশ্বে অন্যান্য জাতি-গোষ্ঠী ধর্মসম্প্রদায় এবং বিশেষভাবে মুসলমানদের ওপর অবর্ণনীয় জুলুম-নির্যাতন চলছে। মুসলিম রোহিঙ্গাদের জানমালের নিরাপত্তা ও তারা যেন নিজ দেশে ফিরে গিয়ে শান্তিতে বসবাস করতে পারে সেজন্য আমি মহান রাব্বুল আলামীনের দরবারে মোনাজাত করছি।

টঙ্গীতে বিশ্ব ইজতেমা বিশ্ব মুসলমানের দ্বিতীয় বৃহত্তম জমায়েত উল্লেখ করে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, বিশ্ব ইজতেমায় অংশগ্রহণকারী দেশ-বিদেশের অগণিত ধর্মভিরু মানুষ যাতে সাবলিল ও নির্বিঘ্নে ইজতেমা সম্পাদন করতে পারেন তারজন্য আল্লাহ’র নিকট অনুগ্রহ কামনা করছি। ইহলৌকিক ও পারলৌকিক মুক্তির জন্য বিশ্ব ইজতেমায় বাংলাদেশসহ সারাবিশ্ব থেকে লাখো মানুষের সমাগম ঘটে ঢাকার অদুরে তুরাগ নদীর তীরে টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে। মহান আল্লাহ’র নামে মুখরিত হয়ে ওঠে ইজতেমা ময়দান। মোমিন-মুসলমানদের এই ঐতিহাসিক জমায়েত উপলক্ষে আমি আল্লাহ’র দরবারে দোয়া করছি- বিশ্বের সকল মানুষ যেন সংঘাত ও হানাহানি থেকে মুক্ত হয়ে সুখী ও আনন্দময় জীবন-যাপন করতে পারেন।

খালেদা জিয়া আরো বলেন, বিশ্ব ইজতেমা উপলক্ষে আমি দেশবাসীসহ মুসলিম বিশ্বের শান্তি ও কল্যাণ কামনা করছি। মুসলমানদের অন্যতম এই বৃহৎ জমায়েত বিশ্বে মানবসম্প্রদায়ের জন্য পারস্পরিক শুভেচ্ছা, সংহতি ও সহমর্মিতায় উদ্বুদ্ধ হতে শ্রষ্টার নিকট আত্মনিবেদনের এক উজ্জল দৃষ্টান্ত হোক। তাদের জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ।

এর আগে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়ের করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার পরবর্তী যুক্তিতর্কের জন্য আগামী ১৬, ১৭ ও ১৮ জানুয়ারি পরবর্তী দিন ধার্য করা হয় আদালত থেকে।

আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. আখতারুজ্জামান এই দিন ঠিক করেন।

এর আগে বেলা ১১টা ৫ মিনিটের দিকে আদালতে পৌঁছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। এরপর আদালতের কার্যক্রম শুরু হয়। গতকাল বুধবারের ধারাবাহিকতায় আজ আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে যুক্তিতর্ক করেন তাঁর আইনজীবী সাবেক স্পিকার ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া, তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় অপর একটি মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মামলায় খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান ছাড়া বাকি আসামিরা হলেন মাগুরার সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

এর আগে গত ৬ জানুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার আদালত পরিবর্তনের আবেদন আবারো খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্টের আপিল বিভাগ।

সোমবার ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞার আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা এই মামলা বর্তমানে বিশেষ জজ আদালত-৫–এ বিচারাধীন আছে। ইতিমধ্যে এই মামলায় খালেদা জিয়া আত্মপক্ষ সমর্থন করে মোট চার দিন বক্তব্য দিয়েছেন। আগামী বৃহস্পতিবার আত্মপক্ষ সমর্থনের পরবর্তী তারিখ ধার্য রয়েছে।

মন্তব্য

মতামত দিন

জাতীয় পাতার আরো খবর

মাহমুদুর রহমানের উদ্বেগ

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: গ্রেপ্তারকৃত পেশাজীবী নেতা প্রকৌশলী কে এম আসাদুজ্জামান চুন্নুর অবিলম্বে মুক্তি দাবি জানিয়েছে অ্য . . . বিস্তারিত

এমপির স্ত্রীরাও ‘আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স’ পাবেন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল জানিয়েছেন, সংসদ সদস্যের স্ত্রীরাও আগ্নেয়াস্ত্রের . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com