রসিক নির্বাচনে সেনা প্রয়োজন নেই: সিইসি

০৭ ডিসেম্বর,২০১৭

রসিক নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের প্রয়োজন নেই: সিইসি

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: রংপুর সিটি নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের প্রয়োজন নেই বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশন (সিইসি) এ কে এম নূরুল হুদা। তিনি বলেছেন, একটি অবাধ সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন উপহার দিতে নির্বাচন কমিশন প্রস্তুত।

বৃহস্পতিবার সকালে বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, স্থানীয় প্রশাসন ও নির্বাচন কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সিইসি এ কথা বলেন। বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে এই মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন রংপুর বিভাগীয় কমিশনার মো. হাসান আহমেদ। নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মো. হেলালুদ্দীন আহমেদ, রিটার্নিং কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র সরকার রংপুর অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মিনু শীল, ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক, রংপুর জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান, পুলিশ সুপার মিজানুর রহমানসহ র‌্যাব, বিজিবি, আনসার বাহিনীর ঊর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। মতবিনিময়ে উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের দিন থেকেই বিএনপি মনোনীত প্রার্থী কাওসার জামান বাবলা, সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না অভিযোগ করে নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের দাবি জানান।

নূরুল হুদা বলেন, এখন ২২ ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হচ্ছে। কাল থেকে ৩৩ জনের নেতৃত্বে প্রতিটি ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে ভ্রাম্যমাণ আদালত থাকবে। এখন থেকে আচরণবিধি লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। টাকা ছড়ানোর বিষয়টি নজরে এলেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করতে যা প্রয়োজন সেটাই করা হবে। নির্বাচনে বিজিবি, পুলিশ, র‍্যাব ও আনসার সদস্যদের নিয়ে চার স্তরের নিরাপত্তাব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, একটি ভোটকেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করা হবে। এটা নির্ভর করছে স্থানীয় জনগণের চাহিদার ওপর। ভোটাররা চাইলে ইভিএম ব্যবহার হবে, নইলে নয়।

বেলা সাড়ে তিনটায় সিটি নির্বাচনের মেয়র, সাধারণ কাউন্সিলর ও নারী কাউন্সিলর প্রার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার।

আগাম নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত নির্বাচন কমিশন: সিইসি
ঢাকা: ‘সরকার চাইলে আগাম নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত নির্বাচন কমিশন’ বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার নুরুল হুদা।

বুধবার নির্বাচন ভবনে ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধিদের সাথে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি এসব কথা বলেন।

আগাম নির্বাচনের জন্য কতটুকু প্রস্তুত জানতে চাইলে সিইসি বলেন, দলীয় নেতা-কর্মীদের আগাম নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়ার জন্য বলেছেন, এটাতো সরকারের ওপর নির্ভর করে আগাম নির্বাচনের বিষয়টা, তারা যদি আগাম নির্বাচনের জন্য বলে, তখন আমরা পারবো। ৯০ দিনের সময় আছে, আমাদের ব্যালট বক্স যা কিছু আছে দরকার। শুধু পেপার ওয়ার্কগুলো লাগবে।

উল্লেখ্য আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের দলীয় নেতা-কর্মীদের আগাম নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়ার জন্য বলেছেন।

প্রবাসীদের ভোটাধিকারের বিষয়ে সিইসি বলেন, পোস্টাল ব্যালটে খুব একটা সাড়া পাওয়া যায় না, তাই আমি বলেছি যে, তিনশত আসনের নির্বাচনের জন্য আমাদের লোকজনের বিদেশে বাক্স নিয়ে যাওয়া সম্ভব না, তবে নিয়মটি এখনো বলবৎ আছে, যদি ইভিএম চালু হয়, তখন হয়তো এটা করা হবে।

তিনি আরো বলেন, এই জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে কি না ইইউ প্রতিনিধি দল আমাদের কাছে জানতে চেয়েছিল আমি বলেছি যে, এটা সম্ভব না, আমরা প্রস্তুত না, কিছু রাজনৈতিক দল এটির বিরোধীতা করেছে, সেজন্য আমরা এ নিয়ে কোনো বিতর্কে যাবো না, আমরা সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ এবং সুষ্ঠু নির্বাচনের বিষয়ে আমাদের কোনো আপোষ নেই।

সিইসি নুরুল হুদা বলেন, ইইউ প্রতিনিধি দলকে বলেছি যে, তোমরা আমাদের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি গোষ্ঠি, ইউরোপীয় ইউনিয়নে আমাদের প্রায় ৮৫ ভাগ বাণিজ্য হয়, ৮০ থেকে ৯০ ভাগ গার্মেন্টস প্রোডাক্ট ইউরোপীয় ইউনিয়নে যায়, জাতীয় নির্বাচনের আগে আমরা বিদেশী পর্যবেক্ষকদের আমন্ত্রণ জানাবো, ইইউ প্রতিনিধিরা নির্বাচনের যে পরিবেশ রয়েছে তা নিয়ে সন্তুষ্ট, একটা ভালো নির্বাচনের জন্য আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

সিইসি আরো বলেন, ইইউ প্রতিনিধিরা নির্বাচনের ব্যাপারে তাদের কাছে যখন যে সাহায্য সহযোগিতার প্রয়োজন হবে তারা তা করবেন বলে আমাদেরকে আশ্বস্ত করেছেন।

ঢাকায় নবনিযুক্ত ইইউ রাষ্ট্রদূত রেনজে টিরিংক সাংবাদিকদের বলেন, বর্তমান রাজনৈতিক পরিবেশ নিয়ে আমরা সন্তুষ্ট। আশা করি একটা ভালো নির্বাচনের জন্য কমিশন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে, সুষ্ঠু ও সবার অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন আমরা চাই, আজকের বৈঠকে অন্য বিষয়গুলোর সাথে আমরা এটি জানিয়েছি।

এর আগে সিইসি জানিয়েছেন আগামী জাতীয় নির্বাচনে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারের জন্য নির্বাচন কমিশন প্রস্তুত নয়। বিভিন্ন স্থানীয় সরকার নির্বাচনে পরীক্ষামূলকভাবে ইভিএম ব্যবহার করা হবে। তবে সময়মতো সেনা মোতায়েনের বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) নূরুল হুদা।

বুধবার আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

আগামী জাতীয় নির্বাচনে সেনা মোতায়েন হবে কিনা জানতে চাইলে সিইসি বলেন, ‘এখনো সিদ্ধান্ত নিইনি। প্রত্যেক জাতীয় নির্বাচনেই সেনাবাহিনী মোতায়েন থাকে—এটা একটা বাস্তবতা। কিন্তু আমরা কমিশন এখন পর্যন্ত সিদ্ধান্ত নিইনি। অনেক সময় আছে। এত তাড়াতাড়ি আপনারা এই সিদ্ধান্ত চান কেন? অনেক সময় আছে। এখনো এক বছরের বেশি সময় আছে সেই অবস্থানে পৌঁছাতে। এত আগে তো সেই সিদ্ধান্ত দেওয়া যাবে না। সময়মতো সেনা মোতায়েনের বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেবে।’

প্রসঙ্গত, গত সোমবার নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার সাংবাদিকদের বলেন, আগামী নির্বাচনে সেনা মোতায়েন হবে। তবে কোন প্রক্রিয়ায় হবে, তা এখনো ঠিক হয়নি।

পরদিন মঙ্গলবার সিইসি সরকারি বার্তা সংস্থা বাসসকে বলেন, নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েনের সিদ্ধান্ত হয়নি। নির্বাচন কমিশনারদের এ ধরনের বক্তব্যে তাদের মধ্যে বিভক্তি ফুটে উঠছে কি না— সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে নূরুল হুদা বলেন, ‘বিভক্তির কারণ নেই। আপনারা (সাংবাদিক) নাছোড়বান্দা লোক। শুনতে চান, উনি (মাহবুব তালুকদার) হয়তো বলেছেন। উনি (মাহবুব) কিন্তু বলেছেন, এটা কমিশনের সিদ্ধান্ত না।’

নূরুল হুদা বলেন, মাহবুব তালুকদার মনে করেন, নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েন করার প্রয়োজন হবে, এটা তার ব্যক্তিগত মত। কমিশনের সভার বরাত দিয়ে তিনি এ কথা বলেননি।

মন্তব্য

মতামত দিন

জাতীয় পাতার আরো খবর

বিজয় দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: ‌১৬ ডিসেম্বর, মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্র . . . বিস্তারিত

বিজয় দিবসে রাজধানীতে ডিএমপির বিশেষ ট্রাফিক নির্দেশনা

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: ১৬ ডিসেম্বর, মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে রাজধানীতে বিশেষ ট্রাফিক নির্দেশনা দিয়েছে ঢাকা মেট্রোপল . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com