৭২ ঘণ্টার মধ্যে উৎপল দাসের সন্ধান দাবিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে স্মারকলিপি

১৪ নভেম্বর,২০১৭

৭২ ঘণ্টার মধ্যে উৎপল দাসের সন্ধান দাবিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে স্মারকলিপি

নিউজ ডেস্ক
আরটিএনএন
ঢাকা: অনলাইন নিউজ পোর্টাল পূর্বপশ্চিমবিডির সিনিয়র রিপোর্টার উৎপল দাসের সন্ধান দেয়ার জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে স্মারকলিপি প্রদান করেছে নরসিংদী জেলা সাংবাদিক সমিতি ঢাকা। স্মারকলিপিতে আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তাকে খুজেঁ বের করার জন্য আইনশৃংখলা বাহিনীর সকল বিভাগকে নির্দেশনা দেয়ার অনুরোধ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে থেকে বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে মিছিল নিয়ে সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে এ স্বারকলিপি দেয়া হয়। স্মারকলিপি গ্রহণ করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর একান্ত সচিব ড. হারুন অর রশিদ।

স্মারকলিপি হস্তান্তরের সময় উপস্থিত ছিলেন সমিতির সভাপতি মনির হোসেন লিটন, বিএফইউজের মহাসচিব ওমর ফারুক, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি শাবান মাহমুদ, নরসিংদী জেলা সাংবাদিক সমিতির সহ সভাপতি মনিরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক গ্যালমান শফি, যুগ্ম সম্পাদক মিয়া হোসেন।

এর আগে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশে একাত্মতা ঘোষনা করে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে)।

সমাবেশে ডিইউজে সভাপতি শাবান মাহমুদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএফইউজে সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল। আরো বক্তব্য রাখেন ডিইউজে সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার, ডিআরইউ সাবেক সহ সভাপতি আজমল হক হেলাল প্রমুখ।

সমাবেশে শেষে বিক্ষোভ মিছিল সচিবালয়ের প্রধান ফটক পর্যন্ত গিয়ে একটি প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ে স্মারকলিপি দাখিল করেন।

উল্লেখ্য, গত ১০ অক্টোবর দুপুর ১টার দিকে কাজ শেষে অফিস থেকে বের হন উৎপল দাস। এরপর থেকেই তিনি নিখোঁজ। এগারো তারিখ থেকে তিনি অফিসে আসেন নি। এ ঘটনায় মতিঝিল থানায় অফিসের পক্ষ থেকে ও পরিবারের পক্ষ থেকে পৃথক দু‘টি সাধারণ ডায়েরী করা হয়েছে। দীর্ঘ একমাস অতিবাহিত হলেও এখনো তার কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি।

বিদুৎ চুরি করলে ৩ থেকে ৫ বছরের জেলের বিধান রেখে বিল
সংসদ রিপোর্টার: বাসা বাড়ির জন্য বিদ্যুৎ চুরি করলে ৩ বছর এবং বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে বিদ্যুৎ চুরি করলে ৫ বছরের শাস্তির বিধান রেখে বিদ্যুৎ আইন ২০১৭ বিল সংসদে উত্থাপিত হয়েছে।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিলটি উত্থাপন করেন। পরে বিলটি আরও পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়।

বিলটি উত্থাপনের আগে জাতীয় পার্টির এমপি ফখরুল ইমাম বিলটির কয়েকটি ধারা উল্লেখ করে বিলটিকে কালো আইন হিসেবে অবহিত করেন। তিনি বলেন, বিলে দেশের মালিক জনগণকে বিদ্যুৎ চুরির দায়ে কারদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

কিন্তু একই ঘটনায় বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মচারীদের জন্য শুধু অর্থদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে। এটা আইনের চোখে বৈষম্যমূলক। এছাড়া বিলে অননুমোদিত বিদ্যুৎ ব্যবহারের তল্লাশি চালাতে সহকারী প্রকৌশলীকে দরজা ভেঙে ঘরে প্রবেশ ও তল্লাশি চালানোর ক্ষমতা প্রদানকে তিনি কালাকানুন হিসেবে উল্লেখ করেন।

বিলের উদ্দেশ্যে ও কারণ সম্বলিত বিবৃতিতে বলা হয়, দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন অব্যাহত রাখার স্বার্থে বিদ্যুতের ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে বিদ্যুৎ উৎপাদন, সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়ন ও সংস্কার সাধন এবং মানসম্মত বিদ্যুৎ সেবা নিশ্চিত করার জন্য দ্য ইলেক্ট্রিসিটি অ্যাক্ট ১৯১০ রহিত করে, তা সংশোধন ও পরিমার্জনক্রমে নতুন আইন আকারেও বাংলা ভাষায় বিদ্যুৎ আইন ২০১৭ শীর্ষক বিলটি প্রণীত হয়েছে।

বিলের অপরাধ ও দণ্ডের অধ্যায়ে বলা হয়েছে, কোনো বাসা বাড়িতে বা অন্য কোন স্থানে ব্যবহারের জন্য বিদ্যুৎ চুরি করলে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড বা ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দণ্ডিত হবেন। এছাড়া কোনো শিল্প ও বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে বিদ্যুৎ চুরি করলে ৫ বছরের কারাদণ্ড বা ৫ লাখ টাকা অর্থদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

দেশে মোবাইল গ্রাহক ১৩ কোটি ৬০ লাখ: সংসদে তারানা হালিম
সংসদ রিপোর্টার: বর্তমানে দেশে মোবাইল গ্রাহক সংখ্যা ১৩ কোটি ৫৯ লাখ ৮২ হাজার, যা দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর মোবাইল ফোন সেটের বাজারের পরিমান প্রায় ৮ হাজার কোটি টাকার।

কিন্তু দেশের বাজার মোবাইল হ্যান্ডসেট ব্যবসার অনুকূল থাকায় প্রতি বছর ৩ কোটি হ্যান্ডসেট আমদানি করতে হচ্ছে। এতে ৮ হাজার কোটি টাকা বিদেশে চলে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

মঙ্গলবার বিকালে দশম জাতীয় সংসদের ১৮তম অধিবেশনের তৃতীয় কার্যদিবসে আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য বজলুল হক হারুনের টেবিলে উত্থাপিত প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী একথা জানান।

এর আগে বিকেল সোয়া ৪টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে দিনের কার্যসূচি শুরু হয়।

তারানা হালিম বলেন, বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয়, দেশে সুদক্ষ কারিগরি জ্ঞানসম্পন্ন জনবল সৃষ্টি, এখাতে কাঙ্খিত বৈদেশিক বিনিয়োগ আকর্ষণ, দেশে নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি, অবৈধ আমদানি বন্ধ এবং দেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য সময়োপযোগী বিনিয়োগের নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টিতে স্থানীয়ভাবে মোবাইল ফোনসেট সংযোজন ও উৎপাদনের জন্য যন্ত্রপাতি আমদানির ক্ষেত্রে ১ শতাংশ আমদানি শুল্ক নির্ধারণ করে গত ১ জুন প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী এসকেডি পদ্ধতিতে স্থানীয়ভাবে মোবাইল ফোন হ্যান্ডসেট সংযোজন ও উৎপাদনের জন্য যন্ত্রপাতি আমদানির ক্ষেত্রে ১০ শতাংশ এবং সিকেডি পদ্ধতিতে মোবাইল ফোন আমদানির ক্ষেত্রে ১ শতাংশ আমদানি শুল্ক প্রযোজ্য হবে। ফলে শিগগিরই আমদানির পরিবর্তে মোবাইল ফোন হ্যান্ডসেট বিদেশে রপ্তানি করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করার সুযোগ সৃষ্টি হবে বলেও সংসদে জানান প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, এরইমধ্যে ওয়ালটন স্থানীয়ভাবে মোবাইল হ্যান্ডসেট সংযোজন, উৎপাদন, বাজারজাতকরণের অনুমতির জন্য আবেদন করেছে। আবেদনে তারা জানিয়েছে, বছরে ৫০ লাখ মোবাইল হ্যান্ডসেট স্থানীয়ভাবে সংযোজন ও উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। এছাড়া ‘সিম্ফনি’ ও ‘ওকাপিয়া’ ব্র্যান্ডের হ্যান্ডসেট আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানগুলোও স্থানীয়ভাবে মোবাইল হ্যান্ডসেট উৎপাদন সংযোজন ও বাজারজাত করণে উৎসাহ দেখিয়েছে।

পোস্ট অফিসে ইএমটিএস সেবা চালু
বর্তমানে দুই হাজার ৭৫০টি পোস্ট অফিসে ইএমটিএস (মোবাইলের মাধ্যমে টাকা পাঠানো) সেবা চালু আছে। পর্যায়ক্রমে সব ডাকঘরে এ সেবা সম্প্রসারণ করা হবে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

এছাড়া এজেন্টের মাধ্যমে ২৬ হাজার আউটলেট ইএমটিএস সার্ভিস চালু করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য হাবিবর রহমানের টেবিলে উত্থাপিত প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী একথা জানান।

মমতাজ বেগমের অপর এক প্রশ্নের জবাবে তারানা হালিম জানান, নিরাপদে দেশের ভেতরে একস্থান থেকে অন্যস্থানে টাকা পরিবহনের লক্ষ্যে ‘পোস্টাল ক্যাশ কার্ড’ নামে একটি সার্ভিস প্রবর্তন করা হয়েছে। সারাদেশে এ পর্যন্ত ১ হাজার ৩৭৪টি পোস্টাল ক্যাশকার্ড সার্ভিস পিওএস মেশিনের মাধ্যমে চালু আছে।

এপ্রিল পর্যন্ত রেমিটেন্সের পরিমাণ ৪ হাজার ৫৫০ মিলিয়ন ডলার: সংসদে অর্থমন্ত্রী
সংসদ রিপোর্টার: চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রেরিত রেমিটেন্সের পরিমান ৪ হাজার ৫৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৬ দশমিক ৯ শতাংশ বেশী।

মঙ্গলবার সংসদ অধিবেশনে নোয়াখালী-৩ আসনের এমপি মামুনুর রশীদ কিরনের এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এ তথ্য জানান।

ফেনী -২ আসনের এমপি নিজাম উদ্দিন হাজারীর এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী জানান, অর্থনৈতিক কর্মকা-ে গতিশীলতা সৃষ্টি এবং অভ্যন্তরীণ চাহিদা বৃদ্ধির কারণে বিগত বছরগুলোতে বেসরকারী খাতে ঋণের প্রবাহ বৃদ্ধি পেয়েছে।

তিনি জানান, ২০১৫-২০১৬ এবং ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে বেসরকারীখাতে ঋণ প্রবাহ বৃদ্ধি পেয়েছে যথাক্রমে ১৬ দশমিক ৮ এবং ১৫ দশমিক ৭ শতাংশ। এবং ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরের সেপ্টেম্বর শেষে বেসরকারী খাতে ঋণের প্রবাহ গত অর্থবছরের একই তুলনায় ১৭ দশমিক ৮০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ৮ লাখ ১ হাজার ২২৬ কোটি টাকা দাড়িয়েছে। এর ফলে উৎপাদনমুখী উদ্যাগসমূহ বাস্তবায়ন এবং কাঙ্খিত জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনে সহায়ক ভূমিকা রাখবে বলে অর্থমন্ত্রী জানান।

চট্টগ্রাম -১১ আসনের এমপি এম আবদুল লতিফের এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী জানান, দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠিকে ব্যাংকিং সেবার আওতায় আনার জন্য নূন্যতম ১০ টাকা জমায় ব্যাংক হিসেবের সংখ্যা ১৭০ লাখের বেশী। এ একাউন্টে সঞ্চয়ের পরিমান ১৩ শ কোটি টাকা।

চট্টগ্রাম -১৬ আসনের মোস্তাফিজুর রহমানের এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী জানান, চলতি বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশে কার্যরত কেসরকারী ব্যাংকের সংখ্যা ৪৯ টি। এবং চলতি ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশের সরকোরী বেসরকারী ব্যাংকগুলো কৃষকদের মধ্যে ২ হাজার ৭৬০ কোটি ৪৯ লাখ টাকা কৃষি ও পল্লী ঋণ বিতরণ করেছে।

ঢাকা-১ আসনের এমপি সালমা বেগমের এক প্রশ্নের জবাবে আবুল মাল আবদুল মুহিত জানান, রাষ্ট্র মালিকানাধীন ব্যাংকসমূহের অপচয় ও অনিয়ম মোকবেলা করে আর্থিক শৃঙ্খলা, জবাবদিহিতা ও স্বচ্ছতা প্রতিষ্ঠঅর লক্ষে ইতমধ্যে বেশ কিছু ব্যবস্তা গ্রহন করা হয়েছে। এর লক্ষ্যে ২০১৩ সালের ব্যাংক কোম্পানী আইন ১৯৯১ এ অধিকতর সংশোধনী আনা হয়েছে। ব্যাংকগুলোর ওপারেশনাল এফিসিয়েন্সি বৃদ্ধি করা জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক নিয়মিত তদারকী করছে, বার্ষিক পারফরমেন্স চুক্তি করা হয়েছে, ঝুকি ব্যবস্থাপণা গাইডলাইনস যথাযথভাবে পরিপালন করা হচ্ছে, ব্যাংকগুলোর ইন্টারকন্ট্রোল এ- কমপ্লায়েন্স বিভাগ শক্তিশালী করার নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে, এছাড়া ব্যাংশগুলোকে নিয়মিত পরিদর্শন ও পরীবিক্ষণ করা হচ্ছে বলে জানান অর্থমন্ত্রী।

আবদুল লতিফ( চট্টগ্রাম-১১) এর এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী জানান, ভোক্তাবান্ধন ও রাজস্ব বান্ধব ডিজিটাল এনবি আর গড়ে তোলার লক্ষ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কতৃক বিভিন্ন উদ্ভাবনীমূলক ও কর বান্ধব পদক্ষেপসমূহ গ্রহণ করা হয়েছে। আমদানী রপ্তানী সংক্রান্ত কার্যক্রম নির্ঝঞ্জাট উপায়ে অন লাইনের করার জন্য ইতিমধ্যে দেশের সকল কাস্টম হাউস এবং গুরুত্বপূর্ণ ল্যা- কাস্টমস স্টেশনে ‘এস্যকুডা ( এএসওয়াইসিইউডিএ) ওয়াল্ড সিস্টেম’ স্থাপন করা হয়েছে। এরফলে বিভিন্ন দপ্তরের সঙ্গে সফটওয়ার সংযোগ স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া ডিজিটাল এনবিআর গড়ে তোলার লক্ষ্যে রাজস্ব বোর্ড প্রত্যক্ষ কর আদায়ে ই পেমেন্ট সিস্টেম, কিউ ক্যাশ ডেবিট কার্ড, ই-টিন রেজিট্রেশন সিস্টেম চালু ও হিসেব সরলীকরণ করার লক্ষ্যে ই ক্যালকুলেটর ব্যবস্থা সংযুক্ত করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

এছাড়া রাজস্ব আহরনের সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তাদের গুনগতমান বৃদ্ধির জন্য বিসিএস (কর) একাডেমির সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য একাডেমি ভবন নির্মান করা হচ্ছে। প্রশিক্ষণের ব্যবস্থার লক্ষে ২০ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। ঢাকার অদুরে ৫০-৬০ একর জমি নিয়ে একটি অত্যাধুনিক ও আন্তর্জাতিক মানের এক একাডেমি তৈরি করা হবে।

মন্তব্য

মতামত দিন

জাতীয় পাতার আরো খবর

মির্জা ফখরুলের রংপুর সফর স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনরংপুর: হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িতে আগুন দেওয়া এলাকা পরিদর্শনের পূর্বনির্ধারিত সফর স্থগিত করা হয়েছে . . . বিস্তারিত

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত মানুষকে অনুপ্রাণিত করে: বক্তারা

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: নাগরিক সমাবেশে বক্তারা বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত মানুষকে তাঁদের . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান, গোলাম রসুল প্লাজা (তৃতীয় তলা), ৪০৪ দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০।
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com