পবিত্র আখেরি চাহার সোম্বা উপলক্ষে বায়তুল মুকাররমে ওয়াজ ও মিলাদ মাহফিল

১৪ নভেম্বর,২০১৭

পবিত্র আখেরি চাহার সোম্বা উপলক্ষে বায়তুল মুকাররমে ওয়াজ ও মিলাদ মাহফিল

নিউজ ডেস্ক
আরটিএনএন
ঢাকা: পবিত্র আখেরি চাহার সোম্বা উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বুধবার সন্ধ্যায়, বাদ মাগরিব, বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদে ওয়াজ ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

এতে ওয়াজ করবেন ঢাকার নারিন্দাস্থ দারুল উলুম আহছানিয়া মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল হযরত মাওলানা আবু জাফর মুহাম্মদ হেলাল উদ্দিন। সভাপতিত্ব করবেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক সামীম মোহাম্মদ আফজাল।খবর বাসস

মঙ্গলবার ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে একথা জানানো হয়।

এতে বলা হয়, ‘যথাযোগ্য মর্যাদা ও ধর্মীয় ভাবগম্ভীর পরিবেশে বুধবার সারাদেশে পবিত্র আখেরি চাহার সোম্বা উদযাপিত হবে। এ উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ১৫ নভেম্বর বুধবার সন্ধ্যা ৫.৩০ টায় (বাদ মাগরিব) বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদে ওয়াজ ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে’।

জুমার নামাজে সরকারি খুতবা চায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন
বাংলাদেশে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক শামীম মো: আফজাল মনে করেন জুমার নামাজের সময় দেশের মসজিদগুলোতে ভিন্ন-ভিন্ন খুতবা না পড়ে যদি জাতীয়ভাবে একটি খুতবা রচনা করা হয় তাহলে বিষয়টি ইতিবাচক হবে।

এ মাসের শুরুতে গুলশানে সন্ত্রাসী হত্যাকাণ্ডের প্রেক্ষাপটে রবিবার আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক মন্ত্রীসভা কমিটির এক বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, মসজিদগুলোতে ইমামরা কোনো ধরনের ধর্মীয় অনুশাসন প্রচার করছেন তার ওপর নজর রাখা হবে এবং অভিযোগ পেলে তা তদন্ত করা হবে।

আফজাল বলেন, পৃথিবীর বহু দেশে খুতবা সাধারণত রাষ্ট্র কর্তৃক রচনা করে দেয়া হয় এবং সেটা সকল মসজিদে পড়া হয়। আমাদের দেশে – বিশেষ করে পাক-ভারত উপমহাদেশে – বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তানে এ সিস্টেমটা সেভাবে চালু হয় নাই।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের হিসেব অনুযায়ী বাংলাদেশে প্রায় তিন লাখ মসজিদ আছে। সব মসজিদের খতিব এবং ইমামদের চিন্তা এবং দৃষ্টিভঙ্গি এক রকম নয়। ইসলামের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে মতপার্থক্য রয়েছে।

কর্মকর্তারা বলছেন, কোনো কোনো মসজিদে জুমার নামাজের খুতবার সময় বাংলা বক্তব্যে এমন অনেক রাজনৈতিক বিষয়ের অবতারণা করা হয় যা পরোক্ষভাবে জঙ্গি কার্যক্রমকে উস্কে দিতে পারে।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক মনে করেন, কোরআন ও হাদিসের আলোকে এবং দেশের সংস্কৃতির সাথে মিল রেখে যদি জাতীয়ভাবে খুৎবা রচনা করা যেতে পারে।

দেশের বিজ্ঞ আলেমরা এই খুতবা রচনায় সহায়তা করতে পারেন বলে আফজাল উল্লেখ করেন।

সৌদি আরবে মসজিদে প্রতি সপ্তাহে কী ধরণের খুতবা পড়া হবে সেটি সরকারের তরফ থেকে একটি নির্দেশনা দেয়া হয়। বাংলাদেশেও বিষয়টি সেভাবে ভাবা হচ্ছে কিনা?

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক মনে করেন, এ বিষয়ে তিনি এখনো কোনো মতামত দেয়া যাচ্ছেনা। কারণ বিষয়টিতে এখনো সরকারের কোন সিদ্ধান্ত আসেনি।

তিনি বলেন, এখন থেকে একশ বছর আগে যত ওলামা ছিলেন তারা কোরআন এবং সুন্নাহকে আরবিতে পড়তেন, বুঝতেন এবং জ্ঞান অর্জন করতেন। বর্তমানে মাদ্রাসাগুলো থেকে দ্বিনী শিক্ষার কিছু ব্যত্যয় ঘটেছে। এ ব্যত্যয় পুনরুদ্ধার করতে গেলে আমাদের প্রকৃত আলেম তৈরি করতে হবে।

আফজালের মনে করেন, বাংলাদেশের মাদ্রাসা শিক্ষাকে ‘স্বয়ংসম্পূর্ণ’ করতে হবে। এটি না হওয়া পর্যন্ত জাতীয়ভাবে খুতবা রচনায় দেশের বিজ্ঞ আলেমরা যদি সহায়তা করে তাহলে অনেকে ‘উপকৃত’ হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন খুতবা ইসলামের একটি মৌলিক দর্শন।

তিনি অভিযোগ করেন,অনেকে ইসলামের ‘ভিন্ন ব্যাখ্যা’ তুলে ধরছেন। সেজন্য খুতবা জাতীয়ভাবে রচনা করা হলে মুসলমান জনগোষ্ঠী এটিকে সাধুবাদ জানাবে বলে তিনি মনে করেন।

মন্তব্য

মতামত দিন

জাতীয় পাতার আরো খবর

রংপুরে হিন্দুদের ওপর হামলা কি এড়ানো যেত?

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: ফেইসবুকে ধর্মীয় কটুক্তি ছড়ানোকে কেন্দ্র করে রংপুরে গঙ্গাচড়ায় শুক্রবার হিন্দু সম্প্রদায়ের বা . . . বিস্তারিত

সেই মধুর সম্পর্ক এখন আর নেই!

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: মায়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গা নির্যাতনের বিষয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের থার . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান, গোলাম রসুল প্লাজা (তৃতীয় তলা), ৪০৪ দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০।
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com