এভাবে কি শহর গড়া যায়, প্রশ্ন মেয়র আনিসুল হকের

১৫ জুলাই,২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: ঢাকা শহরের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে নিজের অসহায়ত্ব প্রকাশ করলেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক। তিনি বলেন, পার্ক বানাতে গিয়ে দেখি আমার কাজ নয়, খাল উদ্ধার করতে গিয়ে দেখি আমার খাল নয়, লেক পরিষ্কার করতে গিয়ে দেখি আমার কাজ নয়। মশা মারতে গিয়ে দেখি অনেক স্থানে আমি প্রবেশ করতে পারি না। এভাবে কি শহর গড়া যায়?

শনিবার সন্ধ্যায় ঢাকা উত্তরের নগর ভবনে ফটোগ্রাফির বই 'ঢাকা মেমরিস অর লস্ট' এর মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে তিনি এই অসহায়ত্ব প্রকাশ করেন।

আনিসুল হক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আমাকে দায়িত্ব দিয়েছিলেন শহর গড়ার। কিন্তু শহর গড়ার দায়িত্বে এসে দেখি সহজ কাজ নয়, সব দখল হয়ে রয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘রাস্তা যারা দখলে রেখেছে তারা অনেকের চেয়ে প্রভাবশালী। তাদের সঙ্গে মোকাবেলা করা সহজ কাজ নয়। গাবতলী- আমিনবাজার এলাকায় ৫০ একর জমি দখলে রয়েছে। গত চার-পাচ দিন ধরে মাত্র ৩৭ একর জমি উদ্ধার করেছি। অনেকে জানিয়েছেন, সেখানে উচ্ছেদে গেলে গোলাগুলি হবে। সব স্থানেই এমন প্রতিকূলতা।’

মেয়র জানান, গুলশান এভিনিউয়ের রাস্তা প্রস্তুত করতে গিয়ে দেখি ১১ জন প্রভাবশালী তা দখলে রেখেছে। তারা অনেক শক্তিশালী। এতোসব মোকাবেলা করে শহর গড়া অনেক কঠিন কাজ।

তিনি বারবার উল্লেখ করেন, বিভিন্ন সময় পার্ক, খাল, রাস্তা, ড্রেনের কাজে যখন হাত দেই, তখন দেখি এ কাজ করার অধিকার আমার নয়। অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানের। এ কারণে ইচ্ছে থাকলেও অনেক কাজ করতে পারি না।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আবুল খায়েল।

মন্তব্য

মতামত দিন

জাতীয় পাতার আরো খবর

মির্জা ফখরুলের রংপুর সফর স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনরংপুর: হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িতে আগুন দেওয়া এলাকা পরিদর্শনের পূর্বনির্ধারিত সফর স্থগিত করা হয়েছে . . . বিস্তারিত

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত মানুষকে অনুপ্রাণিত করে: বক্তারা

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: নাগরিক সমাবেশে বক্তারা বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত মানুষকে তাঁদের . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান, গোলাম রসুল প্লাজা (তৃতীয় তলা), ৪০৪ দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০।
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com