ব্রেকিং সংবাদ: |
  • কাবুলে ভোটার নিবন্ধনকেন্দ্রে আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত ৩১
  • ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার জন্য বিশেষ সেল গঠনের দাবি জানিয়েছেন
  • খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সপ্তাহব্যাপী বিএনপির নতুন কর্মসূচি ঘোষণা
  • ত্রিভুবন বিমানবন্দরের গাফিলতিই দুর্ঘটনার জন্য দায়ী: ইউএস-বাংলা
  • যে শর্তে গাজীপুর সিটি নির্বাচনে বিএনপিকে ছাড় দিল জামায়াত

দেশে ফেরার শঙ্কায় গৃহবন্দি মুসা ইব্রাহীম

১৯ জুন,২০১৭

নিউজ ডেস্ক
আরটিএনএন
ঢাকা: দেশের জন্য আরো একটি গৌরবের মুহূর্ত এনে দিলেন এভারেস্টজয়ী মুসা ইব্রাহিম। এবার ইন্দোনেশিয়ার ওশেনিয়ার সর্বোচ্চ পর্বত মাউন্ট কার্সটেঞ্জ পিরামিডে উড়ল আমাদের লাল-সবুজ পতাকা।

ফেসবুক লাইভে মুসা ইব্রাহিম দেশবাসীসহ বিশ্ববাসীকে জানিয়ে দিলেন সেই বিজয়ের কথা। সোমবার সেই আনন্দ সংবাদ দেয়ার পরপরই নিজের ফেসবুক আইডিতে আরো একটি পোস্টে দেশে ফেরা নিয়ে আশঙ্কায় প্রকাশ করেছেন তিনি।

ফেসবুক পোস্টে মুসা ইব্রাহিম লেখেছেন- আমাদের পাসপোর্ট অবৈধভাবে বাজেয়াপ্ত করে গৃহবন্দি করে রেখেছে তিমিকা`র হেলিকপ্টার কম্পানি এশিয়াওয়ান (AsiaOne)। উদ্ধার পেয়েছি বেস ক্যাম্প থেকে, কিন্তু উদ্ধার হচ্ছে না হেলি কম্পানির হাত থেকে। অ্যাডভেঞ্চার কিন্তু এখনো শেষ হয়নি।

যে হেলিকপ্টার কম্পানি এশিয়াওয়ান আমাদের বেস ক্যাম্প থেকে নিয়ে এসেছে, তারা আমাদের পাসপোর্ট অবৈধভাবে বাজেয়াপ্ত করে গৃহবন্দী করে রেখেছে। তাদের দাবি, তাদেরকে ৩ বার তিমিকা থেকে বেস ক্যাম্প পর্যন্ত ফ্লাই করার খরচ দিতে হবে। যার পরিমাণ ১১০০০ ইউএস ডলার। কিন্তু গতকাল (রোববার) তারা নিজেরাই দেরি করে সকাল ১০টায় বেস ক্যাম্পের দিকে গিয়েছিল। ততক্ষণে আবহাওয়া খারাপ হয়ে গিয়ে হেলিকপ্টার ফিরে এসেছে তিমিকায়। যা কি না পুরোটাই হেলিকপ্টার প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব। কারণ আমরা সকাল ৬টা থেকে প্রস্তুত ছিলাম।

সোমবার তারা সকালে আমাদের বেস ক্যাম্পের পাশের একটা জায়গা থেকে প্রথমবার গিয়ে ফিরে আসে। আমরা দেখতে পেয়েছিলাম হেলিকপ্টার, কিন্তু তারা প্রথমবার উদ্ধার না করেই ফিরে আসে। দ্বিতীয়বার আমরা পতাকা হাতে নিয়ে দাঁড়িয়েছিলাম যেন হেলিকপ্টার দেখা মাত্রই তা উড়িয়ে তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারি এবং তা করেছি। এখন হেলিকপ্টার কম্পানির কথা হলো, তাদেরকে পুরো তিনবারের টাকা দিতে হবে।

আমরা সত্যরুপ সিদ্ধান্ত, নন্দিতা সিএন এবং আমি ৮ হাজার ডলার পর্যন্ত দিতে রাজি হয়েছি এবং সে মোতাবেক Franky Kowaas-এর প্রতিষ্ঠান মানান্ডো অ্যাডভেঞ্চারকে টাকা দেয়ার প্রক্রিয়া সত্যরূপ শুরু করেছে। ইতোমধ্যে সাড়ে ৪ হাজার ডলার দেয়া হয়েছে। কিন্তু হেলিকপ্টার কম্পানি এশিয়াওয়ানের জ্যাকবের (ফোন নাম্বার +628122312558) দাবি তাদের পুরো টাকা অর্থাৎ ১১ হাজার ডলার দিতে হবে।

চিন্তা করছি যে, ফিরতে পারব তো দেশে?

মন্তব্য

মতামত দিন

জাতীয় পাতার আরো খবর

রানা প্লাজা ট্রাজেডি: বিচার এখনো কত দূরে?

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: দু’হাজার তেরো সালের ২৪শে এপ্রিল সকালে সাভারে আট তলা রানা প্লাজা ভেঙে পড়ে ১১শ'র বেশি পোশাক . . . বিস্তারিত

খাদ্যে ঢুকে পড়েছে প্লাস্টিক, বিপর্যয়ের মুখে বাংলাদেশ

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা:  ঢাকার স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড আহমেদ কামরুজ্জামান মজ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com