ব্রেকিং সংবাদ: |
  • সিনহার ব্যাংক হিসাবে অস্বাভাবিক লেনদেন, নিরঞ্জন ও শাহজাহানকে দুদকে তলব
  • জিজ্ঞাসাবাদের পর ছাড়া পেলেন বিডিজবসের প্রধান নির্বাহী
  • টরেন্টোর হামলাকারী সম্পর্কে সর্বশেষ যা জানা যাচ্ছে
  • তাবিথ আউয়াল ও আব্দুল হাই বাচ্চুকে দুদকে তলব
  • হঠাৎ কেঁপে উঠলো সিলেট, ৫ দশমিক ২ মাত্রার ভূমিকম্প
  • টরোন্টোয় গাড়িচাপায় প্রাণ গেল ১০ পথচারীর, ট্রুডোর সান্ত্বনা
  • বিজেপির শীর্ষ নেতাদের বক্তব্যে ঢাকার রাজনীতিতে তোলপাড়
  • খালেদা জিয়ার সাথে দেখা করতে গেছেন স্বজনরা
  • কাবুলে ভোটার নিবন্ধনকেন্দ্রে হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬৩
  • ২৫ বছরের যুদ্ধে সোয়া কোটি মুসলিম নিহত, যা একটি বিশ্বযুদ্ধের সমান ক্ষয়ক্ষতি
  • খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সপ্তাহব্যাপী বিএনপির নতুন কর্মসূচি ঘোষণা
  • ত্রিভুবন বিমানবন্দরের গাফিলতিই দুর্ঘটনার জন্য দায়ী: ইউএস-বাংলা
  • যে শর্তে গাজীপুর সিটি নির্বাচনে বিএনপিকে ছাড় দিল জামায়াত

মানবতাবিরোধী অপরাধ: সাতক্ষীরার চারজনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল

২০ মার্চ,২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় সাতক্ষীরা জেলা জামায়াতের আমির ও সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) আব্দুল খালেক মণ্ডলসহ চারজনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে।

সোমবার দুপুরে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে প্রতিবেদন দাখিল করেন প্রসিকিউশন। অভিযোগ আমলে নেয়ার বিষয়ে আগামী ২১ এপ্রিল আদেশ দিবে ট্রাইব্যুনাল।

বিচারপতি আনোয়ার উল হকের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল সোমবার এই আদেশ দেন।

আদালতে উপস্থিত ছিলেন- প্রসিকিউটর শাহীদুর রহমান, প্রসিকিউটর রেজিয়া সুলতানা, প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম, প্রসিকিউটর জাহিদ হোসেন প্রমুখ।

অন্যদিকে আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী আব্দুস সাত্তার পালোয়ান।

মামলার চার আসামির মধ্যে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার খলিলনগর গ্রামের খালেক মণ্ডল কারাগারে আছেন। পলাতক রয়েছেন দুইজন। তারা হলেন- একই উপজেলার দক্ষিণ পলাশপোল গ্রামের খান রোকনুজ্জামান ও বৈকাবি গ্রামের জহিরুল ইসলাম ওরফে টেক্কা খান। এছাড়া গ্রেপ্তার হওয়ার পর জামিনে আছেন বুলারআটি গ্রামের এম আব্দুল্লাহ আল বাকি।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি আব্দুল খালেক মণ্ডলসহ চারজনের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত তদন্ত প্রতিবেদন করে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা। আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা, ধর্ষণ, আটক, নির্যাতনসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের সাতটি অভিযোগ আনা হয়।

তদন্ত সংস্থা জানায়, ২০১৫ সালের ৭ আগস্ট মামলার তদন্ত শুরু হয়। শেষ হয় ৫ ফেব্রুয়ারি। মামলায় সাক্ষী করা হয়েছে ৬০ জনকে।

আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগগুলো হলো-

১) ১৯৭১ সালের ১৮ আগস্ট সকাল আটটার দিকে বুধহাটা খেয়াঘাটে বেতনা নদীর পাড়ে আফতাবউদ্দিন ও সিরাজুল ইসলামকে রাজাকার কমান্ডার ইছাহাক (মৃত) ও তার সহযোগীরা গুলি করে হত্যা করে। এছাড়া খলিলুর রহমান, মো. ইমাম বারী, মো. মুজিবর রহমান ও ইমদাদুল হককে রাজাকার সদর দপ্তর ও নির্যাতন কেন্দ্র ডায়মন্ড হোটেলে নিয়ে নির্যাতন করে।

২) ১৯৭১ সালের ১ ভাদ্র ভিকটিম কোমরউদ্দিন ঢালীকে তৎকালীন সাতক্ষীরা মহাকুমার রাজাকার কমান্ডার এম আব্দুল্লাহ আল বাকী, খান রোকনুজ্জামান ১০/১২ জন রাজাকার তার বাড়ী থেকে ধরে দঁড়ি দিয়ে বেধে ধুলিহর বাজার থেকে সাতক্ষীরা জেলার দিকে নিয়ে যায়। পরে তাদের মৃতদেহ বেতনা নদীর পাড়ে পাওয়া যায়।

৩) ১৯৭১ সালের ১ ভাদ্র বেলা তিনটা থেকে সাড়ে তিনটার দিকে রাজাকার কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল বাকী, রোকনুজ্জামান খানসহ চার থেকে পাঁচজন মিলে সবদার আলী সরদারকে চোখ বেঁধে পিকআপে উঠিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। পরবর্তীতে তার কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি।

৪) ভিকটিম মৃত সোহেল উদ্দিন সানা বড় ছেলে আব্দুল জলিল সানাকে সাথে নিয়ে একই তারিখে বুধহাটা বাজার অতিক্রম করার সময় রাজাকার কমান্ডার মৃত ইছাহাক ও তার সঙ্গীয় রাজাকারদের হাতে আটক হয়। পরে তাকে ডায়মন্ড হোটেলে নিয়ে নির্যাতন করা হয়। পরবর্তীতে সোহেল সানার কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি।

৫) ১৯৭১ সালে আষাঢ় মাসের ৭ তারিখ বেলা সাতটার দিকে ভিকটিম আবুল হোসেন ও তার ভাই গোলাম হোসেন তাদের বাড়ির দক্ষিণ পাশে হালচাষ করছিলেন। গোলাম হোসেন নয়টার দিকে বাড়িতে নাস্তা খেতে গেলে জহিরুল ইসলামসহ ১০ থেকে ১২ জনকে সঙ্গে নিয়ে আব্দুল খালেক মণ্ডল আবুল হোসেনকে জমি থেকে তুলে নিয়ে পেছনের পাটক্ষেতে গুলি করে হত্যা করে।

৬) ১৯৭১ সালের ২ ভাদ্র সকাল নয়টার দিকে ভিকটিম মো. বছির আহমেদ ডিফেন্সে ডিউটিরত বাশদহ বাজারের ওয়াপদার মোড় হতে ধরে নিয়ে নির্যাতন করে ও তার বুড়ো আঙ্গুলের রগ কাটিয়ে দেয়।

৭) ১৯৭১ সালের জৈষ্ঠ মাসের মাঝামাঝি সময়ে বেলা ১০টার দিকে আসামি আব্দুল খালেক মন্ডল একদল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও আসামি রাজাকার কমাণ্ডার জহিরুল ইসলাম টেক্কা খান কাথণ্ডা প্রাইমারি স্কুলে স্থানীয় গ্রামবাসীদের ডেকে মিটিং করে বলেন যারা আওয়ামী লীগ করে, যারা মুক্তিযুদ্ধে গেছে তারা কাফের।

এরপর তারা কাথণ্ডা ও বৈকারী গ্রামের আওয়ামী লীগের সমর্থক মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেয়া লোকজনের বাড়িঘরের মালামাল লুট করে ও আগুন দিয়া পুড়ে দেয়। সেই সময় পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর দুই সদস্য মৃত গোলাম রহমানের স্ত্রী আমিরুনকে তার বাড়ির রান্নাঘরের পেছনে ধর্ষণ করে। এ ছাড়া বৈকারী গ্রামের ছফুরা খাতুনকে মৃত শরীয়তউল্লাহর বাড়িতে নিয়ে চার পাকিস্তানী সৈন্য ধর্ষণ করে।

মন্তব্য

মতামত দিন

জাতীয় পাতার আরো খবর

ইসরাইলি নৃশংসতার ভিডিও ভাইরাল!

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: ইসরাইলি নৃশংসতার অনেকগুলো ভিডিও ভাইরাল হবার পর অজানা এক কারণে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ তা সরিয়ে ন . . . বিস্তারিত

বিতর্কিত লেখিকা তসলিমা নাসরিনের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: বিতর্কিত লেখিকা তসলিমা নাসরিনের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় মামলা হয়েছে। ‘ধর্ষকের কাছে নারীর ক . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com