আশুগঞ্জে পাথরসহ ভারতীয় জাহাজ, সড়কপথে যাবে আগরতলায়

১৩ আগস্ট,২০১৮

আশুগঞ্জে পাথরসহ ভারতীয় জাহাজ, সড়কপথে যাবে আগরতলায়

নিজস্ব প্রতিনিধি
আরটিএনএন
ব্রাহ্মণবাড়িয়া: ভারতীয় একটি জাহাজ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ নৌবন্দরে নোঙর করেছে। এতে এক হাজার ১১৭ মেট্রিক টন পাথর আছে। এখান থেকে সড়কপথে পাথর নেওয়া হবে ত্রিপুরার আগরতলায়।

রবিবার রাতে এমভি গড়াই ডব্লিউভি ১৩৬৭ নামে জাহাজটি আশুগঞ্জ নৌবন্দরের জেটিতে নোঙর করে। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) আশুগঞ্জ বন্দর পরিদর্শক মো. শাহ আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মো. শাহ আলম জানান, সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে মঙ্গলবার অথবা বুধবার সকাল থেকে জাহাজটি থেকে পণ্য খালাসের কাজ শুরু হতে পারে।

জাহাজটির মাস্টার মানস গাইন জানান, কলকাতার হলদিয়া বন্দরের পাশের জিআর-২ জেটি থেকে জাহাজটিতে ভারতীয় পাথর বোঝাই করা হয়। পরে ২৮ জুলাই দুপুরে এক হাজার ১১৭ মেট্রিক টন পাথর নিয়ে রওনা হয় জাহাজটি। প্রায় ১৫ দিন পর জাহাজটি গতকাল রাত ৯টায় আশুগঞ্জ নৌবন্দর জেটিতে নোঙর করে। আশুগঞ্জ নৌবন্দর থেকে ট্রাকে পাথর লোড হয়ে আখাউড়া স্থলবন্দর হয়ে পাথরগুলো যাবে ভারতের ত্রিপুরার আগরতলায়।

বিআইডব্লিউটিএর আশুগঞ্জ বন্দরের পরিদর্শক মো. শাহ আলম জানান, কাস্টমসসহ সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে বাংলাদেশি ট্রাক ব্যবহার করে পাথরগুলো আখাউড়া স্থলবন্দর হয়ে আগরতলা যাবে।

পরিদর্শক আরো জানান, ভারত থেকে আসা পাথর থেকে প্রতি টনে চার্জ ৫০ টাকা, এলএসসি (ল্যান্ডিং অ্যান্ড শিপিং চার্জ) ৩৪ টাকা ৫০ পয়সা, বন্দরে অবস্থানকালে প্রতিদিন বার্থিং চার্জ ৪০০ টাকা এবং প্রতি টনে ১৯২ টাকা ২২ পয়সা শুল্ক পাবে বাংলাদেশ।

মন্তব্য

মতামত দিন

অর্থনীতি পাতার আরো খবর

ছয় গ্রেডে যৎসামান্য মজুরি বেড়েছে, শ্রমিকরা কী মানবেন?

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: বাংলাদেশ মজুরি কাঠামো নিয়ে সংকট নিরসনে সরকারের একটি পর্যালোচনা কমিটি সব পক্ষের সাথে জরুরি বৈঠকে . . . বিস্তারিত

পোশাক শ্রমিকদের আন্দোলন দমাতে ছয় গ্রেডে মজুরি বাড়ানোর ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: সরকার গঠনের শুরুতেই বেতন-ভাতা বাড়ানোসহ বিভিন্ন দাবিতে পোশাক শ্রমিকদের টানা আন্দোলনের মুখে . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com