সর্বশেষ সংবাদ: |
  • ভৈরবে আওয়ামী লীগ-বিএনপি সংঘর্ষে তিন পুলিশসহ আহত ১২, দোকানপাট ভাঙচুর
  • তারেক রহমানের ভিডিও কনফারেন্স বিএনপির অভ্যন্তরীণ বিষয়
  • বিএনপির মনোনয়ন বোর্ডে তারেক রহমানের অংশগ্রহণের বিষয়ে নির্বাচন কমিশনে লিখিত অভিযোগ আওয়ামী লীগের, তারেক রহমানের অংশগ্রহণ নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন : কর্নেল (অব.) ফারুক খান
  • জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার আপিল
  • জাতীয় নির্বাচনের কারণে এবার থার্টিফার্স্ট নাইট উদযাপন করা যাবে না, আতশবাজিও নিষিদ্ধ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
  • ২০০২ টি মামলার বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে ইসিকে বিএনপির চিঠি
  • ঐক্যফ্রন্টের চমকপদ ইশতেহার আসছে, ফোকাস পয়েন্ট থাকবে সুশাসন কায়েম
  • জরিপের ওপর ভিত্তি করে দল ও জোটের মনোনয়ন দেয়া হবে: ব্রিফিংয়ে কাদের

প্রস্তাবিত বাজেটে প্রবাসীদের আয়ে কর আরোপ করা হয়নি: এনবিআর

১৩ জুন,২০১৮

প্রস্তাবিত বাজেটে প্রবাসীদের আয়ে কর আরোপ করা হয়নি: এনবিআর

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: প্রস্তাবিত ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরের বাজেটে প্রবাসীদের আয়ের ওপর ভ্যাট বা কোনো কর আরোপ করা হয়নি বলে এনবিআর এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

সংস্থাটি বলেছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রেমিটেন্স ভ্যাট আরোপের যে কথা প্রচারিত হচ্ছে, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও গুজব। দেশের বৈধ রেমিটেন্স প্রবাহ বন্ধ করে হুন্ডির মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা প্রেরণের অপপ্রয়াস হিসাবে এই প্রচারণা চালানো হতে পারে বলে মনে করে এনবিআর।

বুধবার বিকালে এনবিআর থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ সব কথা বলেছে এনবিআর। সংস্থাটি প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে আরও বলেছে, মূসক বা ভ্যাট আরোপ হয়, পণ্য বা সেবা সরবরাহের ওপর। বাংলাদেশের সম্মানিত প্রবাসীরা দেশের বাইরে নিজস্ব কঠোর শ্রমের বিনিময়ে যে সেবা দিয়ে থাকেন, তার বিনিময়ে বৈদেশিক মুদ্রা আহরিত হয়। এ সম্পূর্ণ কার্যক্রম মূল্য সংযোজন কর আইন, ১৯৯১ এর ধারা ৩ এর উপ-ধারা ২(ক) মোতাবেক সেবা রপ্তানি হিসাবে বিবেচিত। সুতরাং এ রপ্তানি কার্যক্রম ভ্যাটের আওতা বহির্ভূত বা ভ্যাটমুক্ত। অর্থাৎ- রেমিটেন্স সীমা নির্বিশেষে এ খাতের ওপর কোন ভ্যাট প্রযোজ্য নয় বা ভ্যাট নেই। তাই প্রবাসীরা বৈধ ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে যে কোন পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা বা রেমিটেন্স প্রেরণ করতে পারেন।

এনবিআর বলেছে, অবৈধ চ্যানেল বা হুন্ডির মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা বা রেমিটেন্স প্রেরণ করা হলে তা জাতীয় অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখতে পারে না। তাই হুন্ডির মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা বা রেমিটেন্স প্রেরণ থেকে বিরত থাকার জন্য সবাইকে অনুরোধ করা হচ্ছে। এনবিআর হুন্ডি বা মানি লন্ডারিং প্রতিরোধের বিষয়ে সবসময় সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

আরো পড়ুন...

এনবিআরের নতুন চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া
ঢাকা: শিল্প মন্ত্রণালয়ের সাবেক সিনিয়র সচিব মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়াকে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে সরকার। তিনি মো. নজিবুর রহমানের স্থলাভিষিক্ত হলেন।

বুধবার দুই বছরের চুক্তিতে এনবিআর চেয়ারম্যান ও অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব পদে নিয়োগ দিয়ে আদেশ জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে অর্থনীতিতে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করনে মোশাররফ। তার বাড়ি নরসিংদী।

মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া চাকরির মেয়াদ শেষে অবসরে যাওয়ার পর আবার নিয়োগ পেলেন। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান ও অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব নজিবুর গত ৩১ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিবে হিসেবে নিয়োগ পান।

সিনিয়র সহকারী সচিব মুহাম্মদ আবদুল লতিফের সই করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের সঙ্গে কর্ম-সম্পর্ক পরিত্যাগের শর্তে মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়াকে অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব ও এনবিআরের চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হলো। তার দায়িত্ব পালনের মেয়াদ দুই বছর।

২০১৬ সালের ৩০ জুন অবসরোত্তর ছুটিতে (পিআরএল) যাওয়ার কথা ছিল মোশাররফ হোসেনের। এর একদিন আগে ২৯ জুন তার পিআরএল বাতিল করে এক বছরের চুক্তিতে শিল্প মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব নিয়োগ দেয় সরকার।

১৯৮১ সালের বিসিএস ব্যাচের কর্মকর্তা মোশাররফ হোসেন ২০১০ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি সেতু বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব হিসেবে নিয়োগ পান। একই বছরের ২৯ জুলাই পদোন্নতি পেয়ে সচিব হন তিনি।

২০১৪ সালের ২৬ অক্টোবর শিল্প সচিব নিয়োগ পেয়ে ২০১৬ সালের ১১ এপ্রিল জ্যেষ্ঠ সচিব হিসেবে পদোন্নতি পান মোশাররফ।

এর আগে তিনি বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) নির্বাহী চেয়ারম্যান এবং প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের সদস্যের দায়িত্বে ছিলেন।

২০১৪ সালে পদ্মা সেতু নির্মাণে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি সই করে সরকার। গত মার্চে নির্মাণকাজ শুরু করে প্রতিষ্ঠানটি। পদ্মা সেতুর নদীর শাসনের দায়িত্ব রয়েছে সিনো হাইড্রো করপোরেশন। চায়না মেজর ব্রিজ কোম্পানি মূল সেতুর নির্মাণকাজ করছে।

সম্ভাব্য দুর্নীতির অভিযোগ এনে ২০১১ সালে পদ্মা সেতুর অর্থায়ন থেকে সরে যায় বিশ্বব্যাংক। বাংলাদেশ সরকারও বিশ্বব্যাংককে না বলে দেয়। পরে নিজস্ব অর্থায়নে দেশের সর্ববৃহৎ প্রকল্পটি বাস্তবায়নের পরিকল্পনা নেয় সরকার।

বিশ্বব্যাংকের মতে, পদ্মা সেতু নিয়ে দুর্নীতি ষড়যন্ত্রে যাদের নাম এসেছিল তাদের মধ্যে মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া ছিলেন। পদ্মা সেতুতে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়ন নিয়ে টানাপড়েনের মধ্যে দুদকের মামলায় গ্রেপ্তারের পর ওএসডিও হতে হয়েছিল এই কর্মকর্তাকে। পরে দুদক জানায়, দুর্নীতির কোনো প্রমাণ মেলেনি। এছাড়া কানাডার একটি আদালত দুর্নীতি কোনো প্রমাণ না পেয়ে সংশ্লিষ্টদের খালাস দেন।

মন্তব্য

মতামত দিন

অর্থনীতি পাতার আরো খবর

আদমজীতে পোশাক শ্রমিক ও পুলিশের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, আহত অর্ধশত

নিজস্ব প্রতিনিধিআরটিএনএননারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের আদমজী ইপিজেডের রফতানিমুখী একটি পোশাক কারখানার শ্রমিকরা বক . . . বিস্তারিত

দশ বছরের মধ্যে দরিদ্রমুক্ত হবে দেশ: অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেছেন, আগামী দশ বছরের মধ্যে দেশ দরিদ্রমুক্ত হবে। সেলক্ষ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com