‘ইসলামী ব্যাংকে কোনো তারল্য সঙ্কট নেই’

১২ মে,২০১৮

‘ইসলামী ব্যাংকে কোনো তারল্য সঙ্কট নেই’

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড এর মালিকানা পরিবর্তনের ফলে ব্যাংকটিতে আর্থিক সঙ্কটের সৃষ্টি হয়েছে এ ধরনের তথ্য ভিত্তিহীন এবং বিভ্রান্তিকর।

শনিবার বিকেলে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডি রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের পক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক হতে প্রাপ্ত তথ্যমতে ব্যাংকটির মালিকানা পরিবর্তনের পর হতে ব্যাংকের আমানত ও ঋণ উভয়ের পরিমাণই বেড়েছে এবং ব্যাংকের কোন ধরনের তারল্য সঙ্কট নেই।

আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, বর্তমান সরকার আর্থিক খাতসহ দেশ পরিচালনার সর্বক্ষেত্রেই স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতায় বিশ্বাসী। সে কারণে রাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গগুলো তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব অনুসারে স্বাধীনভাবে কাজ করছে। এরই ধারাবহিকতায় ব্যাংকিং খাতে সংগঠিত বিভিন্ন অনিয়ম কেন্দ্রীয় ব্যাংক কর্তৃক স্বাধীনভাবে চিহ্নিত করাসহ যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থাদি গ্রহণ নিশ্চিত করা হয়েছে এবং এক্ষেত্রে সরকার কর্তৃক কখনোই কোন ধরনের হস্তক্ষেপ করা হয়নি। এ ধরনের স্বচ্ছতা নিশ্চিত করার ফলেই বিষয়গুলো সবাই অবহিত হতে পেরেছেন যা পূর্বে প্রকাশিত হয়নি।

তিনি বলেন, ২০১৩ সালে ব্যাংকিং সেবাকে জনগণের দোড়গোড়ায় পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে এবং দেশের বিকাশমান অর্থনীতির প্রয়োজনে অন্যান্য ৮টি ব্যাংকের সঙ্গে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণপূর্বক বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক ফারমার্স ব্যাংক লিমিটেডকে ২০১৩ সালে লাইসেন্স প্রদান করা হয়। পরবর্তীতে ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনাকালে নানাবিধ অনিয়মের বিষয়টি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজরে আসলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক কর্তৃক যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে ব্যাংকটির কার্যক্রম নিয়মিত পর্যবেক্ষণের আওতায় নিয়ে আসা হয়।

এছাড়াও একজন বিদ্যমান সংসদ সদস্যসহ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের প্রভাবশালী সদস্যদের পদত্যাগে বাধ্য করা হয়। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ ও জড়িত পরিচালকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিষয়টি দুদকের তদন্তাধীন। একইসঙ্গে ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালককে কেন্দ্রীয় ব্যাংক অপসারণ করেছে ।

উল্লেখ্য, ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট ৪ জন কর্মকর্তা এবং অডিট কমিটির প্রাক্তন চেয়ারম্যান ও ব্যাংকের পরিচালক দুদকের মামলায় বর্তমানে কারাগারে অন্তরীণ রয়েছে। ফারমার্স ব্যাংক আমানতকারীদের চাহিদা অনুযায়ী আমানতের অর্থ ফেরত দিতে না পারায় আমানতকারীদের মধ্যে কিছুটা ভীতি সঞ্চার হলেও সরকার এবং বাংলাদেশ ব্যাংক আইনানুগ বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে আমানতকারীদের স্বার্থ রক্ষায় সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা গ্রহণ করেছে, যার ধারাবাহিকতায় ব্যাংকটির সব ব্যক্তি উদ্যোক্তা পরিচালকদের বাদ দেয়া হয়েছে।

বর্তমানে বিদ্যমান ৪জন প্রাতিষ্ঠানিক পরিচালকসহ ৪টি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক ও একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান এর মাধ্যমে ৭১৫ কোটি টাকা মূলধন হিসেবে ব্যাংকটিতে সরবরাহ করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এর বিপরীতে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যাংকটির বৃহৎ অংশের শেয়ার মালিকানা অর্জন করবে ও পরিচালনা পর্ষদে অংশগ্রহণ করে আমানতকারীদের স্বার্থ রক্ষা করবে ও এর ফলে সবার আস্থা ফিরে আসবে বলে আমরা মনে করি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, মো. আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আফজাল হোসেন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, বন ও পরিবেশ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, উপ-দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, নির্বাহী সদস্য মারুফা আক্তার পপি প্রমুখ।

মন্তব্য

মতামত দিন

অর্থনীতি পাতার আরো খবর

নির্বাচনের আগে গ্যাসের দাম বাড়ছে না

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: আপাতত বাড়ছে না গ্যাসের দাম। দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত থেকে সরে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশে এনার্জি রেগ . . . বিস্তারিত

মুন সিনেমা হলকে ১০০ কোটি টাকা দেবে অর্থ মন্ত্রনালয়: অ্যাটর্নি জেনারেল

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: পুরান ঢাকার মুন সিনেমা হলের মালিকানা নিয়ে সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনী বাতিলের রায় এসেছিল। তবে . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com