মোবাইল ব্যাংকিংয়ে দৈনিক ৬৯০ কোটি টাকা লেনদেন হয়: অর্থমন্ত্রী

১১ মার্চ,২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, মোবাইল ব্যাংকিংয়ে দৈনিক ৬৯০ কোটি টাকা লেনদেন হয়। এই পরিমাণ লেনদেন মোবাইল ব্যাংকিং সেবার জনপ্রিয়তা প্রমাণ করে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

শনিবার জাতীয় সংসদে টেবিলে উত্থাপিত সরকারি দলের এম আবদুল লতিফের (চট্টগ্রাম-১১) প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ব্যাংকে গিয়ে সময় ব্যয়ের বিপরীতে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে তুলনামূলক কম খরচে গ্রাহককে ব্যাংকিং সেবা দেয়া সম্ভব। সরকারের এই প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে। বাংলাদেশ ব্যাংক এই সেবার সার্ভিস চার্জ কমানোর জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যাংক ও মোবাইল অপারেটরের সঙ্গে একাধিকবার সভা করেছে। ভবিষ্যতে আরো কম খরচে এই সেবা দেয়া যাবে।

মমতাজ বেগমের (মানিকগঞ্জ-২) এক প্রশ্নের জবাবে আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, গত ১০ বছরে বিনিয়োগ বেড়ে জিডিপির ২৫ দশমিক ৮ শতাংশ থেকে ২৮ দশমিক ৯ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। চলতি অর্থবছরে বিনিয়োগ ৫ লাখ ৮ হাজার কোটি টাকার ওপরে হবে, যা জিডিপির ২৯ দশমিক ৪ শতাংশ হবে।

মন্ত্রী আরো বলেন, ২০২০ সালের মধ্যে জাতীয় আয়ে শিল্প খাতের অবদান ৩৩ শতাংশে উন্নীত করার লক্ষ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

এ কে এম রেজাউল করিম তানসেনের (বগুড়া-৪) প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ব্যাংক খাতের অর্থ জালিয়াতি রোধে এটিএম বুথে বাধ্যতামূলকভাবে অ্যান্টি স্কিমিং ও পিন শিল্ড ডিভাইস বসানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সংরক্ষিত আসনের এমপি পিনু খানের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ইসলামী ব্যাংক ২০১৬ সালে সর্বোচ্চ ২ হাজার ২০ কোটি ৫০ লাখ টাকা পরিচালন মুনাফা অর্জন করেছে।

ওয়াসিকা আয়শা খানের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, চলতি অর্থবছরে দেশে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ২ লাখ ৩ হাজার ১৫২ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রথম ছয় মাসে আদায় হয়েছে ৭৮ হাজার ৮৪৬ কোটি টাকা।

কর দিলে হয়রানি হয় না

দেশে টিআইএন-এর পরিমাণ ২৭ লাখে পৌঁছেছে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, কর দিলেই হয়রানি বাড়ে না, করদাতারা এখন এটি বিশ্বাস করতে শুরু করেছেন। এতে স্বতঃপ্রবৃত্ত হয়ে কর প্রদান রেওয়াজ প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। আগামী ১ জুলাই থেকে নতুন ভ্যাট আইন চালু হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

জাতীয় সংসদে শনিবার টেবিলে উত্থাপিত দিদারুল আলমের (চট্টগ্রাম-৪) এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী এসব তথ্য জানান।
চলতি অর্থবছরে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণে এনবিআরকে আরো গতিশীল করার নানা পদক্ষেপের চিত্র তুলে ধরে অর্থমন্ত্রী জানান, অনলাইনে ই-টিআইএন গ্রহণ, আয়কর ও রিটার্ন দাখিলের ব্যবস্থা গ্রহণ করে কর ব্যবস্থাপনা পদ্ধতিকে বিশ্বমানে উন্নীত করা হয়েছে। উৎসে কর কর্তন মনিটরিং করতে দুটি পৃথক কর অঞ্চল সৃষ্টির প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। আয়কর আহরণ বৃদ্ধির লক্ষ্যে কর আইন যুগোপযোগী করা হচ্ছে।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কার্যক্রমকে অধিকতর স্বচ্ছ ও জবাবদিহীতা নিশ্চিতকল্পে বিভিন্ন আইনি পরিবর্তন আনায়ন করা হয়েছে। কর্মকর্তাদের স্বেচ্ছাধীন ক্ষমতা হ্রাস করা হয়েছে। এছাড়া কর অব্যাহতির তালিকা সংকুচিত করে করনেটকে আরো বিস্তৃত করা হয়েছে। বাজেটে গৃহীত পদক্ষেপগুলো বাস্তবায়ন করার মাধ্যমে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড চলতি অর্থবছরের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে পূর্ণ আশাবাদী।

মন্তব্য

মতামত দিন

অর্থনীতি পাতার আরো খবর

আমাদের দেশে কেন আইনস্টাইন হবে না, প্রশ্ন জ্বালানি উপদেষ্টার

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: দেশের নতুন প্রজন্মের মাঝে মেধার বিকাশ ঘটতে গবেষণার কোনো বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেছেন প্রধ . . . বিস্তারিত

শেখ হাসিনা গীতিকার আর প্রধান নির্বাচন কমিশনার কন্ঠশিল্পী: রিজভী

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন নিয়ে সিইসি যে বক্তব্য দিয়েছে সেটাকে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান, গোলাম রসুল প্লাজা (তৃতীয় তলা), ৪০৪ দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০।
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com