বিদেশি বিনিয়োগকারীদের উদ্বেগে ইসলামী ব্যাংক কর্তৃপক্ষের ব্যাখ্যা

০২ ফেব্রুয়ারি,২০১৭

নিউজ ডেস্ক
আরটিএনএন
ঢাকা: ইসলামী ব্যাংকের পর্ষদ পরিবর্তন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ব্যাংকটির সবচেয়ে বড় শেয়ারহোল্ডার ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (আইডিবি)। একইসঙ্গে ব্যাংকটির পর্ষদের এ পরিবর্তনে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হয়নি বলে সম্প্রতি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছে চিঠি পাঠিয়েছে আইডিবি।

এ প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে ব্যাংকটির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে যে- পরিচালনা পর্ষদের পরিবর্তনে কোনো বিধি-বিধান লঙ্ঘন করা হয়নি। সবকিছুআইন মেনেই করা হয়েছে।

ইসলামী ব্যাংকে আইডিবির পাশাপাশি সৌদি আরব ও কুয়েতের ৫২ শতাংশ শেয়ার রয়েছে। ব্যাংকটিতে বিদেশিদের সিংহভাগ শেয়ার থাকার পরও তাদের কম গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে বলে মনে করছেন বিদেশি পরিচালকরা।

এ বিষয়ে ইসলামী ব্যাংক বলছে, ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভার সকল নোটিশ দেশের প্রচলিত আইন, নিয়ন্ত্রক সংস্থার বিধি-বিধান ও ব্যাংকের সংঘবিধি অনুযায়ী দেশি-বিদেশি নির্বিশেষে সকল পরিচালকের নিকট নিয়মিত ও যথা সময়ে প্রদান করা হয়ে থাকে। নোটিশ প্রদান হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সভার নথিপত্র-স্মারকসমূহ পরিচালকদেরকে ইন্ট্রা-ওয়েবের মাধ্যমে প্রেরণ করা হয় এবং পরবর্তীতে যথা নিয়মে হার্ডকপিও পাঠানো হয়, যার ভিত্তিতে পরিচালকগণ ব্যাংকের নীতি প্রণয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে ব্যাংক ব্যবস্থাপনাকে সুচিন্তিত ও মূল্যবান মতামত, পর্যবেক্ষণ ও পরামর্শ প্রদান করে থাকেন।

আইডিবি তার চিঠিতে বলেছে, ইসলামী ব্যাংকে বড় পরিবর্তনের পরে খুব কম সময়ের নোটিসে বোর্ড সভা ডাকা একটা সাধারণ নিয়মে পরিণত হয়েছে। এতে বিদেশি পরিচালকরা সভার নথিপত্র পর্যালোচনা এবং সভায় অংশ নিতে পারছেন না। অনেক সময় সভা শুরু হওয়ার আগ মুহূর্তে সভার নথিপত্র দেয়া হচ্ছে।

এছাড়া গত ৫ জানুয়ারির যে সভায় পরিবর্তন আনা হয় সেই নোটিশ দেয়া হয় ২ জানুয়ারি। যার কারণে গুরুত্বপূর্ণ ওই সভায় আইডিবির প্রতিনিধি উপস্থিত হতে পারেননি। এ কারণেই সাম্প্রতিক পরিবর্তনে আইডিবির অবস্থান জানানোর উদ্যোগ নিয়েছি।

নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগ প্রক্রিয়ায় কোনো ধরনের নিয়মের ব্যত্যয় ঘটেনি। ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদ শূন্য হওয়ার পর্ষদ সর্বসম্মতিক্রমে, প্রচলিত আইন ও বিধি-বিধান সম্পূর্ণরূপে অনুসরণ করে এবং নিয়ন্ত্রক সংস্থার যথাযথ অনুমোদনক্রমে দেশের ব্যাংকিং জগতের একজন সুদক্ষ, বিজ্ঞ ও দীর্ঘ অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ব্যক্তিত্বকে ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে নিয়োগদান করা হয়েছে। যিনি ইতোপূর্বে কয়েকটি ব্যাংকে সুনামের সঙ্গে ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদের দায়িত্ব পালন করেছেন।

এ প্রেক্ষাপটে ইসলামী ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সংশ্লিষ্ট সব স্টকহোল্ডারকে আশ্বস্ত করছে যে, সাম্প্রতিক পরিবর্তনে দেশের প্রচলিত আইন-কানুন এবং নিয়ন্ত্রক সংস্থা কর্তৃক ইস্যুকৃত বিধি-বিধান ও সার্কুলার যথাযথভাবে পরিচালিত হয়েছে এবং ভবিষ্যতেও যথাযথভাবে অনুসরণ করা হবে।

মন্তব্য

মতামত দিন

অর্থনীতি পাতার আরো খবর

পোশাক রপ্তানিতে ভারত বাংলাদেশকে পেছনে ফেলছে

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: পোশাক রপ্তানিতে বাংলাদেশ ক্রমেই পিছিয়ে যাচ্ছে। অন্যদিকে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে ভারত। এর কারণ সুষ্ঠু . . . বিস্তারিত

‘তন্নতন্ন করেও জামায়াত-শিবিরকে ইসলামী ব্যাংকের অর্থায়নের প্রমাণ পাইনি’

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: জামায়াত-শিবিরকে অর্থায়নে ইসলামী ব্যাংক জড়িত থাকার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি উল্লেখ করে ইসলাম . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com